এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "leaders"

জেলার শীর্ষনেতা- নেত্রীদের মধ্যে যোজন দূরত্ব! মেটাতে পারবেন মমতা? তাকিয়ে সব পক্ষই!

  গনি খানের শক্ত ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত ছিল মালদহ। প্রবল সিপিএমের দাপট থাকা সত্ত্বেও এখানে কংগ্রেসের সাফল্য রুখতে পারেনি কেউ। তবে সেই সিপিএমকে কুপোকাত করে 2011 সালে রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেস ক্ষমতা দখল করার পর মালদহে অস্তিত্ব জানান দিতে শুরু করে ঘাসফুল শিবির। প্রথম দফায় বেশকিছু বিধায়ক এই মালদা থেকে তৃণমূল পেলেও তারপর

যত দিন যাচ্ছে ভিড় কমছে বিজেপি পার্টি অফিসে! কি বলছেন সাংসদ-নেতা-নেত্রীরা?

  লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির কাছে অন্যতম "সেফসিট" হিসেবে পরিচিত ছিল কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্র। নির্বাচনের কিছুদিন আগে তৃণমূলের যুবনেতা নিশীথ প্রামাণিক বিজেপিতে যোগ দেয়। আর তারপরই প্রার্থী ঘোষণায় দেখা যায় যে, বিজেপি তাঁকে প্রার্থী করে দিয়েছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। যার ফলে একদিকে তৃণমূলের প্রার্থী পরেশ অধিকারীর সঙ্গে জোর লড়াইয়ে অবতীর্ণ হতে দেখা যায় প্রাক্তন

রাতের অন্ধকারে বন্যার ত্রাণ সামগ্রীও পাচার করছেন তৃণমূল নেতা! তীব্র ক্ষোভ গ্রামবাসীদের

  বছর দুয়েক আগে উত্তরবঙ্গে বীভৎস বন্যার পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল। আর সেই সময় বন্যায় ত্রাণ পাচ্ছেন না বলে উত্তরবঙ্গের একাধিক জেলার মানুষ অভিযোগ করেন। দেখা যায়, দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার এক তৃণমূল নেতা এর ফলে হেনস্থার শিকার পর্যন্ত হন। ত্রাণ বিলি করা নিয়ে তাকে প্রবল বিক্ষোভ দেখান সাধারন মানুষ। উত্তাল হয় দক্ষিণ দিনাজপুর

ঘুরে দাঁড়াচ্ছে কংগ্রেস, মোদির চাপ বাড়িয়ে দিয়ে মনোবল ফিরে পাচ্ছে নেতা-কর্মীরা

সদ্যসমাপ্ত 2019 এর লোকসভা নির্বাচনে অনেকটাই ব্যাকফুটে পড়ে গিয়েছিল কংগ্রেস। গোটা দেশের হাত শিবিরের কর্মী- সমর্থকরা প্রবল মোদি ঝড়ে বিধ্বস্ত হয়ে কিভাবে সামনের দিনগুলোতে বিভিন্ন নির্বাচনে তারা লড়াই করবেন, তা ভেবে পাচ্ছিলেন না। দলের পরাজয়ের সমস্ত দায় নিজের কাঁধে নিয়ে দলের সর্বভারতীয় সভাপতির পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছিলেন রাহুল গান্ধীও। পরবর্তীতে অনেক

আগে নিজেদের সমস্যা মেটান, তারপর আমাদের মেটাবেন! দিদিকে বলোর প্রচারে গিয়ে ক্ষোভের মুখে নেতারা

লোকসভা নির্বাচনে বিপর্যয়ের পর দলকে জনসংযোগে পাঠাতে প্রশান্ত কিশোরের পরিকল্পনা মাফিক "দিদিকে বলো" প্রকল্প চালু করেছিল তৃণমূল। যে প্রকল্পের মধ্যে দিয়ে কিছু কিছু নেতাদের দায়িত্ব দিয়ে বিভিন্ন জায়গায় সাধারণ মানুষের অভাব অভিযোগ শোনার চেষ্টা করেছিল ঘাসফুল শিবির। কিন্তু সাধারণ মানুষের অন্যান্য অভাব অভিযোগ অপেক্ষা তৃণমূলের অভ্যন্তরীণ কোন্দলই যে সাধারণ মানুষকে আরও

ভাতৃশোক ভুলে শুভেন্দু অধিকারীর অনুরোধে দলের কঠিন সময়ে সামনে থেকে নেতৃত্ব এগিয়ে এলেন দাদা

পুরানে দাদা-ভাইয়ের নীতিকথা আমরা রামায়ণে পড়েছিলাম। দাদা রামের প্রতি ভাই ভরত কিংবা লক্ষণের নিবেদন প্রায় সকলেরই জানা। হয়ত বাস্তবেও এরকম কিছু দাদা ভাইয়ের সম্পর্ক রয়েছে। আর সেরকমই একটা আভাস পাওয়া গেল ভাই কুরবান শার মৃত্যুতে শোকসন্তপ্ত অবস্থাতেও সেই ভাইয়ের পূরণ না করা দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিলেন তারই দাদা আফজল

কথা দিয়েও বিজেপিতে যোগদান অনুষ্ঠানে অনুপস্থিত কংগ্রেস নেতারা,নিজের গড়ে অস্বস্তিতে বিজেপি রাজ্য সভাপতি

রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের স্বয়ংসেবকদের দ্বারাই প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ভারতীয় জনতা পার্টি। অটল বিহারী বাজপেয়ী থেকে শুরু করে নারেন্দ্র মোদী, বিজেপির সমস্ত প্রভাবশালী ব্যক্তিরাই একদা সংঘের শাখার সদস্য ছিলেন। কিন্তু জন্মস্থান এক হওয়া সত্ত্বেও বৈচারিক দিক থেকে প্রায়শই ঠোকাঠোকি লাগতে দেখা যায় সঙ্ঘের সঙ্গে ভারতীয় জনতা পার্টির। আর তারই ছাপ এদিন দেখা গেল

পুজোর দিনেও ছাড় নেই তৃণমূল কর্মীদের! জনসংযোগে জোর দেওয়ার নিদান শীর্ষ নেতৃত্বের

কথায় আছে, ঠেলায় না পড়লে বিড়াল গাছে ওঠে না। সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে জনসংযোগের যথেষ্ট অভাবের জন্যই যে 34 থেকে 22 এ নেমে আসতে হয়েছে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসকে, তা বুঝতে বাকি নেই তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্বের। আর তাই তো এবার শারদোৎসবের সময়ও বেশি বেশি করে দলের কর্মীদের জনসংযোগের নির্দেশ দিল ঘাসফুল

ফের প্রকাশ্যে শাসকদলের তিন হেভিওয়েট নেতা বিধায়কদের লড়াই, জোর চর্চা রাজ্য রাজনীতিতে

আজ পশ্চিমবাংলার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা বিশিষ্ট চিকিৎসক বিধান চন্দ্র রায়ের জন্ম এবং মৃত্যু দিন পালিত হচ্ছে সারা রাজ্য জুড়ে। আর এই বিশিষ্ট চিকিৎসকের শ্রদ্ধা নিবেদনের মুহূর্তেও ফের সামনে চলে এল রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের গোষ্ঠী কোন্দল। সূত্রের খবর, এই বিধানচন্দ্র রায়ের নামে গড়ে ওঠা কলকাতার বিধাননগরের মেয়র তথা তৃণমূল বিধায়ক

ঘুরে দাঁড়াতে দলীয় নেতাদের গুরুত্ত্বপূর্ণ কয়েকটি পরামর্শ দিলেন শুভেন্দু,অধিকারী, জেনে নিন

লোকসভা নির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় 42 এ 42 এর স্লোগান দিয়েছিলেন। কিন্তু তার সেই স্বপ্নকে চূর্ণ করে গেরুয়া শিবির বাংলা থেকে 18 টি আসন দখল করে প্রবল অস্বস্তি বাড়িয়ে দিয়েছে তৃণমূলের। অন্যদিকে গত 2014 সালে তৃণমূল 34 টা আসন পেলেও এবার প্রবল মোদি ঝড়ে তাদের দখলে এসেছে মোটে 22 টি আসন।

Top
error: Content is protected !!