এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "job"

এবার চাকরির সুযোগ পুরুলিয়াবাসীর কাছে, জেনে নিন বিস্তারিত

রাজ্য সরকার আবার এনে দিচ্ছে চাকরির সুযোগ। এবার বেকারত্ব থেকে মুক্তি দিয়ে কর্মসংস্থানের পথে এগিয়ে চলেছে রাজ্য সরকার। আবারও একবার কাজের সুযোগ পেতে চলেছে রাজ্যের বেকার যুবক যুবতীরা। 2021 এর বিধানসভা ভোটের দিকে তাকিয়ে রাজ্যের মন পেতে আরো একবার জনমোহিনী সিদ্ধান্ত তৃণমূল সরকারের। এবার বিজ্ঞপ্তি জারি করে পুরুলিয়া প্রশাসনিক দপ্তর

চাকরির নামে লক্ষ লক্ষ টাকার কাটমানির অভিযোগ প্রাক্তন বিধায়কের বিরুদ্ধে, তুললেন দলীয় নেতাই

  লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের ভরাডুবির পেছনে দলের জনপ্রতিনিধিদের একাংশের দুর্নীতি যে প্রধানভাবে দায়ী, তা ফলাফল পর্যালোচনায় উঠে এসেছিল। যার পরেই দলের শৃঙ্খলা আনতে এবং স্বচ্ছ ভাবমূর্তি বজায় রাখতে কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করে তৃণমূল কংগ্রেস। "দিদিকে বলো" প্রকল্প এনে নিজেদের কর্মীদের বিরুদ্ধেও যদি কোনো মানুষের কোনো অভিযোগ থাকে, তা সরাসরি নেত্রীর কাছে

চাকরির দাবিতে মন্ত্রীর বাড়ির সামনে ধর্না দিয়ে গ্রেপ্তার হয়েও দমতে নারাজ টেট প্রার্থীরা!

  তারা তাদের দাবি থেকে যে সরবে না, তা আন্দোলন-বিক্ষোভের প্রথম দিকেই বোঝা গিয়েছিল। পরবর্তীতে এই আন্দোলন-বিক্ষোভের জন্য তারা গ্রেপ্তার হলেও নিজেদের দাবী থেকে সরল না। বস্তুত, গত 2014 সালের প্রাথমিক স্কুলে নিয়োগের জন্য টেট পরীক্ষার ফলাফল 2016 সালের নভেম্বরে প্রকাশিত হয়। উত্তর দিনাজপুর জেলার উচ্চমাধ্যমিক 215 জন উত্তীর্ণ হলেও 110 জনের

উর্দু ভাষায় টেট উত্তীর্ণদেরও মিলছে না চাকরি! সংখ্যালঘু মন্ত্রীর বাড়ির সামনেই ধর্না!

  এবার চাকরির দাবিতে মন্ত্রীর বাড়ির সামনে ধর্নায় বসে পড়লেন উর্দু মাধ্যমের টেট উত্তীর্ণরা। যাকে ঘিরে এখন চরম চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে সর্বত্র। সূত্রের খবর, রবিবার সকালে চাকরিতে নিয়োগের দাবিতে গোয়ালপুকুরের তৃণমূল বিধায়ক তথা রাষ্ট্রমন্ত্রী গোলাম রব্বানীর ইসলামপুরের বাড়ির সামনে ধর্নায় বসে করেন বেশকিছু চাকরি প্রার্থী। কিন্তু ঠিক কী কারণে মন্ত্রীর বাড়ির

কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে এবার আমাজন-ফ্লিপকার্টকে নিয়ে বড়সড় ভাবনা রাজ্য প্রশাসনের

2011 সালে রাজ্যে ক্ষমতায় আসা তৃণমূল সরকারের আমলে ব্যাপক কর্মসংস্থান হতে পারে বলে বিভিন্ন মহলে তরফে আশা করা হয়েছিল। কিন্তু তেমন ভাবে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস বেকার যুবক যুবতীদের জন্য নতুন কোনো কর্মসংস্থানের বাণী না দেওয়ায় হতাশার সৃষ্টি হয়েছিল বিভিন্ন মহলে। কিন্তু এবার বেকার যুবক যুবতীদের কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে রাজ্যের

সুপ্রিম কোর্টে বড়সড় ধাক্কা খেতেই পুজোর মুখে চাকরির নিয়োগপত্র পাঠানো শুরু রাজ্য সরকারের

কথায় আছে, ঠেলায় না পড়লে বিড়াল গাছে ওঠে না। আর এই কথাকেই হয়ত এবার নিজেদের আপ্তবাক্য হিসেবে ধরে নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে ধাক্কা খেতেই পুজোর মুখে চাকরির নিয়োগপত্র পাঠানো শুরু করল রাজ্য সরকার। বস্তুত, সম্প্রতি রাজ্য সরকারের "রিভিউ পিটিশন" খারিজ করেছিল সুপ্রিম কোর্ট। যেখানে শীর্ষ আদালত জানিয়েছিল, গত 2006 সালের নিয়োগ প্রক্রিয়ায়

রাজ্য সরকার এনে দিচ্ছে আবার চাকরির সুযোগ – জেনে নিন বিস্তারিত

এবার বেকারত্ব থেকে মুক্তি দিয়ে, কর্মসংস্থানের সুযোগ বৃদ্ধির সন্ধান নিয়ে ময়দানে হাজির তৃণমূল সরকার। অনেক না পাওয়ার মাঝে বেকারদের সামনে একটু হলেও আশার আলো জাগতে চলেছে। এদিন বিজ্ঞপ্তি জারি করে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ সমিতি তে চাকরির সুযোগ এর কথা বলা হয়েছে। বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে আছে এই সুযোগ। একাধিক পদ

রাজ্যে নিয়োগে বড়সড় দুর্নীতি সামনে আসতেই নড়েচড়ে বসছে সব মহল! বদলাচ্ছে নিয়ম

দীর্ঘদিন ধরেই রাজ্যের বিভিন্ন নিয়োগ প্রক্রিয়ায় বড়সড় দুর্নীতি চলছে বলে সরকারকে অস্বস্তিতে ফেলে দাবি করতে দেখা যাচ্ছিল বিরোধী দলগুলিকে। কিন্তু যাতে আর কেউ এই ধরনের অভিযোগ তুলতে না পারে, তার জন্য এবার রাজ্য বিদ্যুৎ বণ্টন কোম্পানির নিয়োগ পরীক্ষায় নিয়োগ-নীতি বদল করা হচ্ছে। সূত্রের খবর, গত জুন মাসে ‘অফিস এগজিকিউটিভ’ এবং ‘জুনিয়র

মুখ্যমন্ত্রীর নাম করে চাকরির টোপ দিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকার প্রতারণা, পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভ

রাজ্যস্তরে দুর্নীতি কি তাহলে কোনো মতেই থামবে না! প্রতিদিন সকালে খবরের কাগজে কাটমানি নিয়ে খবর যেন এই প্রশ্নই তুলে দিচ্ছে সর্বত্র। এবার আর কোনো শাসক দলের নেতা নন, খোদ তৃণমূল দলের সর্বাধিনায়িকা তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম জড়িয়ে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগকে ঘিরে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ল। জানা যায়,

প্রাথমিকে নিয়োগ নিয়ে এবার সুপ্রিম কোর্টের রোষের মুখে রাজ্য সরকার

অস্বস্তি যেন কিছুতেই কাটছে না রাজ্য সরকারের। ফের প্রাথমিকে নিয়োগ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের রোষের মুখে পড়ল রাজ্য। সূত্রের খবর, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের চাকরি প্রসঙ্গে সংগঠক শিক্ষকদের একগুচ্ছ মামলার শুনানিতে আজ কিছু ব্যাপারে রাজ্য সরকারের কাছে লিখিত জবাব চাইল সুপ্রিম কোর্ট। যেখানে আদালতের প্রশ্ন, স্ক্রুটিনি করে চাকরির যোগ্য বলে বিবেচিত হওয়ার পরেও

Top
error: Content is protected !!