এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "heavyweight leader"

বড়সড় ধাক্কা খেলেন বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু, জেনে নিন

বরাবরই খবরের শিরোনামে থাকতে পছন্দ করেন তিনি। আর খবরের শিরোনামে থাকার জন্য মাঝেমধ্যেই বেকায়দায় পড়তে হয় বঙ্গ বিজেপির সৈনিক সায়ন্তন বসুকে। এবার প্রাক্তন সিপিএম সাংসদ মহম্মদ সেলিমের রোষের মুখে পড়তে হল এই হেভিওয়েট বিজেপি নেতাকে। কিন্তু কি এমন হল, যার কারণে সিপিএম নেতার রোষের মুখে পড়তে হল সায়ন্তন বসুকে! জানা যায়,

হেভিওয়েট তৃনমূল মন্ত্রীর বিরুদ্ধে একের পর এক বিস্ফোরক অভিযোগ! পাল্টা দিলেন মন্ত্রীমশাইও

পশ্চিমবঙ্গের রাজনৈতিক ইতিহাসে বামফ্রন্ট বনাম তৃণমূলের লড়াই অত্যন্ত স্বাভাবিক বিষয়। কিন্তু বিগত পঞ্চায়েত নির্বাচনের সময় থেকে শুরু করে লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গের সামগ্রিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি যে পরিমাণ পাল্টে গেছে, তাতে একদিকে যেমন রাজ্যের প্রধান বিরোধীদলের জায়গা দখল করে নিয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি, অন্যদিকে তেমনই কার্যত অস্তিত্ব সংকটে ভুগতে

বিজেপিকে বড়সড় ধাক্কা দিয়ে পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে জল্পনা বাড়ালেন হেভিওয়েট বিধায়ক,শোরগোল রাজ্যে

বিজেপিকে বড়সড় ধাক্কা দিয়ে এবার গারুলিয়া পুরসভার চেয়ারম্যান সুনীল সিং চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করলেন। কয়েকদিন আগেই তার বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনা হয়েছিল তৃণমূলের তরফ থেকে। আর আজ তিনি নিজেই পদত্যাগপত্র তুলে দেন পুরসভার একজিকিউটিভ অফিসারকে। যা ঘিরে ব্যাপক শোরগোল শুরু রাজ্যে। গাড়ুলিয়ার চেয়ারম্যান সুনীল সিং কয়েকমাস আগেই বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন।

হেভিওয়েট নেতার ‘দুর্নীতি’ প্রমানে নথি সংগ্রহ শুরু দলের অন্দরেই! বাড়ছে শাসকদলের অস্বস্তি

প্রায় বেশ কিছুদিন আগে থেকেই ইংরেজবাজার পৌরসভার চেয়ারম্যান নীহাররঞ্জন ঘোষের বিরুদ্ধে অস্বচ্ছতা ও অনিয়মের অভিযোগ তুলে অনাস্থা আনতে উদ্যোগী হয় সেই পৌরসভারই তৃণমূল কাউন্সিলররা। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছয় যে পুরবোর্ড ভেঙে যাওয়ার উপক্রম দেখা দিতে শুরু করে। কিন্তু তা সত্ত্বেও কোনোমতে দলীয় কাউন্সিলরদের ক্ষোভকে উপশম করতে মাঠে নামতে দেখা যায় তৃণমূলের

হেভিওয়েট নেতার মান ভাঙাতে আপ্রাণ চেষ্টা দুই তৃণমূলী হেভিওয়েটের? শেষ রক্ষা হবে কি?

ইংরেজবাজার পুরসভার অনাস্থা জট কাটাতে ডাকা বৈঠক ফের উপেক্ষা করলেন কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরী।শনিবার তৃণমূলের মালদহ জেলা সভাপতি মৌসুম নুরের ডাকা বৈঠকে হাজির হলেন না অন্তত দশ জন কাউন্সিলর। সেই তালিকায় ছিলেন প্রাক্তন মন্ত্রী কৃষ্ণেন্দুও। এ দিন এই বৈঠকে মৌসমের সঙ্গে ছিলেন দলের জেলা পর্যবেক্ষক গোলাম রব্বানিও। দলীয় সূত্রের খবর, দু’ঘণ্টার বৈঠকের পর

হেভিওয়েট তৃণমূল নেতার পদ কেড়ে নিতেই শুরু তীব্র বাকযুদ্ধ! জেলার রাজনীতিতে নতুন মোড়?

লোকসভা নির্বাচনের আগে থেকেই দক্ষিণ দিনাজপুরে প্রকাশ্যে আসে দলের প্রাক্তন জেলা সভাপতি বিপ্লব মিত্র এবং 2019 সালে সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থী অর্পিতা ঘোষের মধ্যে দলীয় টিকিট পাওয়া নিয়ে দ্বন্দ্ব। আর এই অন্তর্কলহের জেরে দুজনের মধ্যে তিক্ততা বেড়ে ওঠে। পরবর্তীতে দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃণমূল প্রার্থী হিসেবে অর্পিতা

অনুব্রত-গড়ে পদ হারালেন শাসকদলের হেভিওয়েট নেতা, শুরু তীব্র জল্পনা

লোকসভা নির্বাচনে যে সমস্ত জায়গায় দলের ফলাফল খারাপ হয়েছে, সেই সমস্ত জায়গায় দলীয় নেতৃত্বের পরিবর্তন এনেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর এবার দলনেত্রীর দেখানো পথেই বীরভূমে তৃণমূলের অন্দরে শেষ কথা বলা অনুব্রত মণ্ডল বড়সড় সিদ্ধান্ত নিলেন। সূত্রের খবর, গত সোমবার সন্ধ্যায় বোলপুরে তৃণমূল কার্যালয়ে অনুব্রত মণ্ডলের নেতৃত্বে একটি জরুরি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। আর

মুকুল-অনুপম এলাকায় যেতেই বাড়ল চাপ! গভীর রাতে ছাড়া পেলেন হেভিওয়েট নেতা সহ ৪২ জন বিজেপি কর্মী

রাজ্যে আইনের শাসন নেই বলে দীর্ঘদিন ধরেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হতে দেখা গেছে বিজেপিকে। তবে বিজেপির এই আন্দোলনে এবার রীতিমতো পিছু হটতে দেখা গেল রাজ্য প্রশাসনকে। সূত্রের খবর, সিউড়িতে ধর্না মঞ্চে গ্রেপ্তার হওয়া বিজেপির ৪২ জন নেতা-কর্মীকে শনিবার গভীর রাতে ছেড়ে দেয় পুলিশ। যেখানে ধৃতদের ব্যক্তিগত বন্ডে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। প্রসঙ্গত

দিদিকে বল কর্মসূচির সাফল্য নিয়ে ধন্দে তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতা – জানুন বিস্তারিত

তৃণমূল দলকে দুর্নীতির আঁতুরঘর বলে বর্ণনা করেছে বিজেপি। একের পর এক অভিযোগে রীতিমত কোণঠাসা তৃণমূল। গোদের ওপর বিষফোঁড়ার মত তার ওপর আছে গোষ্ঠীদ্বন্দ। যা কোনভাবেই নিয়ন্ত্রণ হচ্ছেনা, তৃণমূল সুপ্রিমোর সাবধানবাণীও সেক্ষেত্রে কোন ফল দিচ্ছেনা। ঘটনার প্রমাণ আরো একবার পাওয়া গেল উত্তরপাড়ার তৃণমূল বিধায়কের গলায়। এদিন উত্তর পাড়ার তৃণমূল বিধায়ক প্রবীর ঘোষাল

এবার রাজ্যের হেভিওয়েট মন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করে সরব দলেরই যুবনেতা! তীব্র শোরগোল তৃনমূলে

তৃণমূলের অন্দর রাজনীতিতে ব্যক্তিত্বদের মধ্যে বিরোধ নতুন কিছু নয়। কিন্তু উত্তরবঙ্গের হেভিওয়েট নেতা তৃণমূলের জন্মলগ্নের সৈনিক পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পর্যটন মন্ত্রী দার্জিলিং জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি গৌতম দেব আগাগোড়াই অবিসংবাদিত নেতা হিসেবে পরিচিত। তিনি বহুবার দলের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বভার পালন করেছেন। আর এবার সেই গৌতমবাবুর পদত্যাগের দাবিতে সরব হলেন তৃণমূলের এক যুবনেতা।

Top
error: Content is protected !!