এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "heavyweight leader"

হেভিওয়েট নেতাকে দল ছেড়ে বেরিয়ে যেতে বললেন মুখ্যমন্ত্রী, শাসকদলে কোন্দল তুঙ্গে!

যত দিন যাচ্ছে, ততই বিহারের শাসকদল নীতীশ কুমারের দলে কোন্দল বাড়তে শুরু করেছে। একেই দলের অন্যতম নেতা তথা বিশিষ্ট রননীতিকার প্রশান্ত কিশোরের সঙ্গে বিভিন্ন ইস্যুতে মতানৈক্য দেখা যাচ্ছে জেডিইউয়ের। আর এবার দিল্লী বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিজেপির সঙ্গে জোট বাঁধা নিয়ে ক্ষোভের মুখে পড়ে দলীয় নেতাকে কড়া বার্তা দিলেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী

নির্বাচনের আগে অস্বস্তিতে শাসকদল, হেভিওয়েট নেতা যোগ দিলেন বিজেপিতে!

  হাতে আর কিছুদিন বাকি। তারপরেই অনুষ্ঠিত হবে দিল্লি বিধানসভা কেন্দ্রের নির্বাচন। কেন্দ্র সরকারের ক্ষমতায় বিজেপি থাকলেও, দিল্লি বিধানসভা কেন্দ্রে তারা এতদিন ক্ষমতায় ছিল না। কিন্তু এবার সেখানকার ক্ষমতায় থাকা আম আদমি পার্টিকে সরিয়ে দিল্লির সরকার গঠন করতে উদ্যোগী ভারতীয় জনতা পার্টি। ইতিমধ্যেই দিল্লি বিধানসভা কেন্দ্রে ফলাফল করার জন্য উদ্যোগী হয়েছে

দিলীপের পর বুদ্ধিজীবীদের আক্রমণ করে বিতর্কিত মন্তব্য এই হেভিওয়েট বিজেপি নেতার!

  শুরুটা করেছিলেন বঙ্গ বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। বিভিন্ন সময় কখনও শাসক দল তৃণমূলের উদ্দেশ্যে, আবার কখনও বা বাংলার বুদ্ধিজীবী সম্প্রদায়ের উদ্দেশ্যে কুকথার বন্যা বইয়ে দিয়েছিলেন তিনি। যাকে নিয়ে বঙ্গ রাজনীতিতে ব্যাপক সমালোচনা হয়েছিল। কিন্তু তা সত্ত্বেও দিলীপ ঘোষ থামেননি। আর এবার তার কুকথার ভাইরাস প্রবেশ করল বঙ্গ বিজেপির আরেক

দিলীপ ঘোষের প্রশংসা তৃণমূলের হেভিওয়েট মন্ত্রীর মুখে, জোর জল্পনা রাজ্যে

  নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন বেশ কিছুদিন আগেই লাগু হয়ে গিয়েছে। তবে এই আইন লাগু হওয়ার পর থেকেই তার চরম বিরোধিতা করতে শুরু করেছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। ইতিমধ্যেই কার্যত স্পষ্ট ভাষায় তৃণমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে দিয়েছেন যে, তিনি থাকতে কোনভাবেই বাংলায় এনআরসি হবে না। আর এই

কপাল পুড়ছে অনেক হেভিওয়েট নেতার, হারাবেন পদও, জোর চাঞ্চল্য!

  পৌরসভা নির্বাচনে টিকিট নিয়ে হা পিত্যেশ করেছিলেন প্রায় প্রতিটি রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরাই। নিজের ওয়ার্ডে প্রার্থী হওয়া নিয়ে আশায় প্রহর গুনছিলেন অনেকেই। কিন্তু সংরক্ষণের কোপে এবার সেই টিকিট পাওয়া থেকে বঞ্চিত হতে চলেছেন শাসক-বিরোধী অনেক রাজনৈতিক দলের নেতারাই। যা নিঃসন্দেহে হতাশগ্রস্ত করে তুলেছে তাদের। কোথাও বাদ যাচ্ছেন পৌরসভার চেয়ারম্যান, আবার কোথাও

BIG BREAKING – গ্রেফতার রাজ্যের হেভিওয়েট বিজেপি নেতা, জোর চাঞ্চল্য

কোচবিহারের শীতলকুচি যাওয়ার পথে গ্রেফতার হলেন বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু। জানা যাচ্ছে তাঁকে গ্রেফতার করে মাথাভাঙা থানায় রাখা হয়েছে। তৃণমূলকর্মীরা থানা ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন , পরিস্থিতি এতটাই নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায় পুলিশ লাঠি চার্জ করে।   জানা যাচ্ছে আজ রবিবার,১৪৪ ধারা জারি হওয়া কোচবিহারের শীতলকুচি যাচ্ছিলেন বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু।

উত্তরবঙ্গে অচেনা লোকের আমদানি, বিস্ফোরক অভিযোগ হেভিওয়েট তৃণমূল নেতার!

  নাগরিকত্ব সংশোধনী ইস্যু নিয়ে বর্তমানে তৃণমূল বনাম বিজেপির মধ্যে অহিনকুল সম্পর্ক তৈরি হয়েছে। ইতিমধ্যেই এই ইস্যুর বিরোধিতা করে তৃণমূল বিজেপির বিরুদ্ধে মানুষে মানুষের দ্বন্দ্ব লাগানোর অভিযোগ তুলতে শুরু করেছে। পাল্টা এর স্বপক্ষে সাধারণ মানুষের কাছে গিয়ে প্রচার করতে শুরু করেছে বিজেপি। সম্প্রতি উত্তরবঙ্গে বিজেপি এই নাগরিকত্ব সংশোধনী স্বপক্ষে মিছিল করার

নাগরিকত্ব ইস্যুতে দলের বিরোধীতা, মানতে না পেরে দল ছাড়লেন হেভিওয়েট নেতা!

সংসদে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাস হওয়ার পরেই তাতে স্বাক্ষর করে দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। যার ফলে রাষ্ট্রপতি স্বাক্ষর হয়ে যাওয়ার পরেই সেই বিল আইনে পরিণত হয়ে গিয়েছে। এদিকে এই আইন প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পরই দেশের বিভিন্ন প্রান্তে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর পক্ষ থেকে তা বাতিল করার দাবি জানানো হয়েছে। পাশাপাশি বিজেপির বিরুদ্ধে এই

সিএএর বিরুদ্ধে বক্তব্য দিয়েও মমতাকে কটাক্ষ হেভিওয়েট নেতার, জোর শোরগোল!

  দীর্ঘ 34 বছর ধরে বাংলার শাসন ক্ষমতা সামলেছেন তারা। তবে এখন তাদের বিরোধী আসনেই বসতে হচ্ছে। যত দিন যাচ্ছে, ততই কার্যত অস্তিত্ব হারিয়ে যেতে বসেছে বামেরা। তবে এই পরিস্থিতিতে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর দেশজুড়ে প্রতিবাদ আন্দোলন সংগঠিত করতে শুরু করেছেন সেই বাম শিবিরের নেতা কর্মীরা। কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের

দলীয় কর্মীকে চাকরি দেওয়ার নাম করে কাটমানি নেওয়ার অভিযোগ হেভিওয়েট তৃণমূল নেতার, অস্বস্তিতে শাসকদল

  লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের খারাপ ফলাফল হওয়ার পেছনে দলীয়স্তরে নেতাদের দুর্নীতি প্রধান ভাবে দায়ী বলে পর্যালোচনায় উঠে এসেছিল। যার পরেই সেই ফলাফল থেকে শিক্ষা নিয়ে সকল দলীয় নেতাদের স্বচ্ছভাবে কাজ করার নিদান দিয়েছিলেন তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্ব। আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের চালু করা উন্নয়ন প্রকল্পের কোনো কিছু সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে গেলেই

Top
error: Content is protected !!