এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "govt"

সরকারি জমিতে খেলার মাঠই বিক্রি করে দিলেন তৃণমূল নেতারা! বিক্ষোভে উত্তাল দুর্গাপুর

অদৃষ্টের কি নিষ্ঠুর পরিহাস! শাসকের রোষানলে পড়ে এবার সরকারি খেলার মাঠও বিক্রি হয়ে যেতে বসেছে। সূত্রের খবর, দুর্গাপুরের 16 নম্বর ওয়ার্ডের ধান্দাবাগ এলাকায় তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরকারি জায়গা বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে। যে ঘটনায় এখন প্রবল চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে এলাকায়। জানা গেছে, এদিন এই গোটা ঘটনার প্রতিবাদে স্থানীয় বাসিন্দারা প্রবল বিক্ষোভ দেখান।

অর্থনৈতিক মন্দা কাটাতে আরও ‘বন্ধুত্বপূর্ণ’ হবে মোদী-সরকার, ইঙ্গিত ক্রমেই স্পষ্ট

দীর্ঘদিন ধরেই অর্থনীতির মন্দা চলছে। যার ফলে অনেকটাই কোণঠাসা হয়েছে মোদি সরকার। কিন্তু এবার এই পরিস্থিতি থেকে বেরোতে সঙ্কট মোকাবিলার তৃতীয় দাওয়াই আনতে চলেছে তারা। বস্তুত, সুপার রিচ ট্যাক্স প্রত্যাহার করে নেওয়াসহ একঝাঁক বাজেট ঘোষণার সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে শিল্পবান্ধব বার্তা দেওয়ার ঘোষণা করেছিলেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। যার পরেই দ্বিতীয় বার্তা

সন্ত্রাসবাদে মদত দেওয়ার অভিযোগে এবার গ্রেফতার হলেন হেভিওয়েট বিধায়ক – জানুন বিস্তারিত

সম্প্রতি কেন্দ্রের বিজেপি সরকার সংসদে 2 কক্ষেই 370 ধারা অবলুপ্তি আইন পাস করেছে। আর এই 370 ধারা অবলুপ্তির পরই এনআইএ সক্রিয় হতে শুরু করেছে। আর এবার সন্ত্রাসবাদে টাকা যোগান দেওয়ার মামলায় নির্দল বিধায়ক ইঞ্জিনিয়ার রশিদকে গ্রেপ্তার করা হল। জানা গেছে, উত্তর কাশ্মীরের ল্যাঙ্গেট বিধানসভা কেন্দ্রের এই বিধায়ককে গত 2017 সালে কেন্দ্রীয়

প্রবল সঙ্কটে কর্নাটক, কি হল আবার! জেনে নিন বিস্তারিত

শেষ পর্যন্ত বিজেপির ইচ্ছা অনুযায়ী কর্নাটকে কংগ্রেস জেডিএস জোট সরকারের পতন হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী পদে ইস্তফা দিয়েছেন জেডিএসের এইচ ডি কুমারস্বামী। আর তারপরই জল্পনা শুরু হয়েছিল যে, তাহলে এবার হয়ত বিজেপি এই কর্নাটকে সরকার গঠনের জন্য আবেদন জানাতে পারে। কিন্তু এখনো পর্যন্ত বিজেপির বিএস ইয়েদুরাপ্পারা শীর্ষ নেতৃত্বের কাছ থেকে এখানে সরকার গঠনের

কর্নাটকের পরে এই রাজ্যের সরকার ফেলতে তৎপর হচ্ছে বিজেপি? দাবি এমনটাই

2014 সালের পর 2019 সালে ফের দ্বিতীয়বারের জন্য বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় বসেছে মোদি সরকার। আর তারপর থেকেই দিকে দিকে বিভিন্ন দল থেকে বিজেপিতে যোগদানের মাত্রা বাড়তে শুরু করেছে। ইতিমধ্যেই কর্নাটকে দীর্ঘ 14 মাস ধরে টালমাটাল অবস্থায় চলা কংগ্রেস জেডিএস জোট সরকারের পতন হয়েছে। যেখানে সরকার গড়ার জন্য আবেদন জানাতে উদ্যোগী

মমতাকে দেখে রাজ্যের দেখানো পথেই হাঁটলেন মোদী , জেনে নিন বিস্তারিত

বনাম রাজ্যের দ্বৈরথ বারে বারেই প্রত্যক্ষ করেছে বঙ্গবাসী। কন্যাশ্রী থেকে সবুজসাথী, খাদ্যসাথী - বিভিন্ন প্রকল্প কোন সরকারের! তা নিয়ে তীব্র দড়ি টানাটানি চলেছে রাজ্যের তৃণমূল বনাম কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের মধ্যে। তবে প্রশাসনিক প্রধান হিসেবে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বারেবারেই দাবি করেছেন, বাংলা আজ যা ভাবে, গোটা দেশ কাল তা ভাবে। কিন্তু

অবশেষে কি বিদায়ের পথে কর্নাটকের জোট সরকার! শেষ চেষ্টায় দুই পক্ষ

অবশেষে কি এবার কর্ণাটক থেকে বিদায় নিতে চলেছেন কুমারস্বামী সরকার! এখন এই প্রশ্নই ঘোরাফেরা করছে জাতীয় রাজনীতিতে। বর্তমানে এই কংগ্রেস জেডিএস জোট সরকারের একের পর এক বিধায়ক এবং মন্ত্রীদের পদত্যাগে প্রবল চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। জোট সরকারের ওপর থেকে সমর্থন প্রত্যাহার করে নিতে দেখা গেছে দুই নির্দল বিধায়ককেও। আর এই পরিস্থিতিতে সেই

চুক্তির ভিত্তিতে নিযুক্ত কর্মীদের নিয়ে নয়া নির্দেশিকা অর্থ দপ্তরের, জেনে নিন

অবশেষে স্পষ্ট হল অবস্থান। চুক্তির ভিত্তিতে নিযুক্ত, দৈনিক মজুরি সহ বেশ কিছু ধরনের কর্মীদের মধ্যে ঠিক কারা স্থায়ী কর্মী, এবার তা নির্দিষ্ট করে দিল অর্থ দপ্তর। জানা গেছে, কোনো উদ্দেশ্যে একসময় যে সমস্ত কর্মীদের নিযুক্ত করা হয়েছিল, তাদের চাকরি থাকবে এমন পরিস্থিতি থাকলে এইচআরএমএস ব্যবস্থার মাধ্যমেই তাদের বেতন দেওয়া যাবে। মূলত,

রাজ্যের সরকারি কর্মীদের শাস্তিমুলক বদলি নিয়ে সোচ্চার সরকারি কর্মচারী সংগঠনের, সুখবরের অপেক্ষায় বদলি হওয়া কর্মীরা

সম্প্রতি কলকাতার সচিবালয়ের অফিস থেকে জেলায় বদলি হওয়া কো-অর্ডিনেশন কমিটির নেতাদের ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে আশ্বাস দিতে দেখা গেছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। ইতিমধ্যেই রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস ও বিরোধী দল বিজেপি প্রভাবিত কর্মী সংগঠনগুলির পক্ষ থেকেও শাস্তিমুলক ব্যবস্থা হিসেবে দূরের জেলায় বদলি হওয়া নেতা এবং সদস্যদের ফিরিয়ে আনার দাবি তোলা

মাওবাদীদের সাহায্য নিয়ে মমতা ব্যানার্জী সরকার গঠন করেছেন, মুকুল রায়কে পাশে নিয়ে দাবি কৈলাস বিজয়বর্গীয়র

ফের একবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দিকে আক্রমণের তীর ছুড়ে দিলেন বিজেপি নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গীয়। ২০১৯ এ লোকসভা ভোটে বাংলা থেকে ২২ তা আসনের লক্ষসীমা রেখেছে বিজেপি। আর সেই লক্ষ্য নিয়েই বাংলা দখলের জন্য আস্তে আস্তে ঝাঁপাচ্ছে বিজেপি। যদিও তৃণমূল সরকার বিজেপিকে একচুলও জমি ছাড়তে নারাজ। আর এই নিয়েই দুই দলের তুতু

Top
error: Content is protected !!