এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "farmer"

কৃষিমন্ত্রীর জেলাতেই কৃষকের আত্মহত্যাকে ঘিরে চাঞ্চল্য,আত্মহত্যার কথা অস্বীকার কৃষিমন্ত্রীর

দেশের বিভিন্ন জায়গায় কৃষক মৃত্যু ঘটলেও এখনো পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গের কোথাও কৃষক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেনি বলেই জানা ছিল। এব্যাপারে পশ্চিমবঙ্গ যথেষ্ট গর্বের সাথে এই দাবি জানিয়ে এসেছে এতদিন। সারা দেশে যেখানে কৃষক মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে তোলপাড় কৃষক মহল থেকে রাজনৈতিক মহল সেখানে পশ্চিমবঙ্গ থেকে একজন কৃষকের মৃত্যুর ঘটনা সামনে না আসা

কৃষকদের জন্য একগুচ্ছ সুখবর নিয়ে এলেন মুখ্যমন্ত্রী

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বরাবরই বাংলার অন্নদাতা কৃষকের কথা চিন্তা করে একাধিক প্রকল্প তৈরি করেছেন। মূলত 2011 সালে রাজ্যের ক্ষমতায় আসার পরই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কিষাণ মান্ডি, থেকে শুরু করে হিমঘর, নির্মাণ সহায়ক মূল্যে ধান কেনা সহ একাধিক প্রকল্প শুরু করেছেন রাজ্যের কৃষকদের জন্য। পাশাপাশি কৃষকদের যেন মহাজনদের কাছ থেকে ঋণ

ভোট বড় বালাই! দিদিকে বলোতে এবার কৃষকের জমির আগাছাও পরিষ্কার করছে তৃণমূল!

  লোকসভা নির্বাচনের পর সাধারণ মানুষের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক গড়ে তুলতে তৃণমূলের রণনীতিকার প্রশান্ত কিশোর "দিদিকে বলো" কর্মসূচি দেন তৃণমূল কংগ্রেসকে। যার মাধ্যমে বর্তমানে গোটা তৃণমূল দল এই কর্মসূচিকে নিয়ে সাধারণ মানুষের কাছে কাছে পৌঁছে যাচ্ছে। আর এবার আলিপুরদুয়ারে এই "দিদিকে বলো" কর্মসূচির পাশাপাশি তৃণমূলের কৃষক সেল কিষান খেতমজুর সংগঠন কৃষকদের

রাজ্যের 68 লক্ষ কৃষককে বিশেষ অনুদান পাঠাতে রাজ্যকে অন্ধকারে রেখেই ব্যবস্থা করে ফেলল কেন্দ্র

বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্প নিয়ে রাজ্য বনাম কেন্দ্রের তরজা যেন থামছে না কিছুতেই। বিভিন্ন কাজে একে অপরকে টেক্কা দিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে দুই সরকারই। নিজেদের কৃষকদরদী সরকার বলে মাঝেমধ্যেই জনসভায় কৃষকদের উন্নতিকল্পে রাজ্য সরকার অনেক পদক্ষেপ নিচ্ছে বলে জানাতে দেখা যায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। এমনকি সারাদেশে বর্তমান বিজেপি সরকারের আমলে কৃষকদের অবস্থা

দিদিকে বলোর হাত ধরে কৃষক ভোট ফিরে পেতে বড়সড় পদক্ষেপ শাসকদলের – জানুন বিস্তারিত

লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের ফলাফল ভালো হয়নি। আর তারপরেই দলের রননীতিকার হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছে ভোটগুরু প্রশান্ত কিশোরকে। যার পরেই দিদিকে বলো কর্মসূচি করে দলকে জনসংযোগে পাঠিয়ে দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে এই কর্মসূচি করে শুধু সাধারণ মানুষের বাড়িতে পৌছনোই নয়, এবার চাষের খেতেও পৌঁছে যাবে ‘দিদিকে বলো’র প্রচার। সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার তৃণমূলের

রাজ্যের কৃষকদের গড় বার্ষিক আয় এখন প্রায় 3 লক্ষ টাকা – দাবি মমতা সরকারের

রাজ্যের কৃষক সমাজ অবহেলিত, এই দাবি তুলে মাঝেমধ্যেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে পথে নামতে দেখা গেছে বামপন্থী কৃষকসভাকে। আর এবার এই ব্যাপারে বিধানসভায় রাজ্যের কৃষকদের গড় বার্ষিক আয় ঠিক কতটা তা স্পষ্ট করলেন কৃষিমন্ত্রী আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়। সূত্রের খবর, মঙ্গলবার রাজ্য বিধানসভার অধিবেশনে বাজেট বিতর্কের জবাবী ভাষণ দিতে গিয়ে কৃষিমন্ত্রী বলেন, "2016-17 আর্থিক বছরে

লোকসভা ভোটের আগে কৃষকদের জন্য বড়সড় ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

লোকসভার মহাযুদ্ধ শুরু হওয়ার আগেই কৃষকদের হাত শক্ত করে ধরে ফেলতে মরিয়া মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আরে সেজন্যে কৃষকদের মুখে হাসি ফুটিয়ে বড়সড় ঘোষণা করে ফেললেন মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যসরকারের চালু করা অন্যতম প্রকল্প কৃষক বন্ধুর আওতাধীন চাষীদের সুবিধার জন্যে এবার স্মার্ট কার্ড দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল নবান্ন। গতকাল মুখ্যমন্ত্রীর কৃষি উপদেষ্টা প্রদীপ মজুমদার। পূর্ব বর্ধমান,পশ্চিম

যত দিন যাচ্ছে মুখ্যমন্ত্রী ততই কৃষক, খেটে খাওয়া মানুষ, ছাত্র যৌবনের মসিহা হয়ে উঠেছেন – দাবি প্রাক্তন হেভিওয়েট মন্ত্রীর

১৯'এর ব্রিগেড সমাবেশের প্রচারের জন্যে পূর্ব মেদিনীপুর সফরে গিয়েছিলেন তৃণমূলের পশ্চিমবঙ্গ কিষাণ খেতমজুর সংগঠনের রাজ্য সভাপতি বেচারাম মান্না। সেখানে পাঁশকুড়ার রঘুনাথবাড়ি রথতলা এলাকায় ব্রিগেডের সমর্থনে একটি সভায় এসে সরাসরিকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চাঁচাছোলায় ভাষায় আক্রমণ করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীকে দেশের শত্রু তথা দাঙ্গানায়ক বলে ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন,'ভারতবর্ষের জনগনের কাছে প্রধান

এবার মুখ্যমন্ত্রীর ঘুম ছোটাতে কৃষিঋণ মকুব ও উৎপাদিত ফসলের ন্যায্য দামসহ একাধিক দাবিতে মাঠে নামছেন সারা ভারত কৃষকসভা

এবার মহারাষ্ট্রের অনুকরণে কৃষিঋণ মকুব ও উৎপাদিত ফসলের ন্যায্য দাম সহ একগুচ্ছ দাবীকে সামনে রেখে উত্তরবঙ্গের কৃষকদের নিয়ে মাঠে নামার পরিকল্পনা সারা ভারত কৃষকসভার। লোকসভা ভোটের আগে রাজ্য সরকারকে চাপে ফেলতে বামেদের উদ্যোগে উত্তরকন্যায় লংমার্চ শুরু করল এই কৃষক সংগঠন। এর জন্যে গত রাত থেকে শিলিগুড়ি শহর এবং আশেপাশের এলাকা থেকে

প্রয়োজনে চেয়ারে বসিয়ে চা – গরিব চাষীদের কাছে রাজ্য সরকার কিভাবে দায়বদ্ধ জানিয়ে দিলেন খাদ্যমন্ত্রী

লোকসভা ভোটের আগে রাজ্যের গরীব চাষীদের অবস্থা খতিয়ে দেখার কড়া নির্দেশ রয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর। প্রশাসনের নির্দেশ মতোই এদিন বিকেলে পুরশুড়ায় কিষাণ মান্ডিতে ধান ক্রয়কেন্দ্র পরিদর্শন করতে আসেন রাজ্যের খাদ্য ও সরবরাহ মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। ফড়েদের ধান বিক্রি করার ঘটনায় এলাকায় বিক্ষোভ এবং উত্তেজনা ছড়ানোর অভিযোগ কানে আসায় পুরশুড়ার অবস্থা খতিয়ে দেখতে

Top
error: Content is protected !!