এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "didike blo"

“দিদিকে বলো” কর্মসূচিতে গিয়ে বাংলার হারিয়ে যাওয়া সংস্কৃতি ও “বন্ধু” খুঁজে পেলেন মন্ত্রী

লোকসভা নির্বাচনে দলের খারাপ ফলাফলের পর সাধারণ মানুষের সাথে যাতে আরও বেশি করে দলের জনপ্রতিনিধিরা মিশে যেতে পারেন, তার জন্য সকলকে নির্দেশ দিয়েছিলেন তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। "দিদিকে বলো" নামে একটি কর্মসূচি তৈরি করে সাধারণ মানুষের দুয়ারে দুয়ারে বর্তমানে তৃণমূল নেত্রীর নির্দেশে পৌঁছে যাচ্ছে তৃণমূলের বিধায়ক, নেতা, মন্ত্রী,

প্রশান্ত কিশোরকে নিয়ে বিস্ফোরক অভিযোগ বিজেপি নেতার, জেনে নিন

লোকসভা নির্বাচনে এবার তৃণমূল 22 এবং বিজেপি 18 টা আসন দখল করেছে। আর তৃণমূল প্রভাবিত রাজ্যে বিজেপির হঠাৎ করেই এই উত্থানে কিছুটা হলেও আতঙ্কিত হয়েছেন রাজ্যের ঘাসফুল শিবিরের নেতারা। আর পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে ফলাফল পর্যালোচনা বৈঠকে কেন দলের এই খারাপ ফলাফল হল! তা নিয়ে বিশ্লেষণ করতে গিয়ে জনসংযোগের যে

সদস্য সংগ্রহ অভিযানে ব্যাপক সাফল্য, “দিদিকে বলো” কর্মসূচিকে রাজনৈতিক গিমিক বলে কটাক্ষ বিজেপি নেত্রীর

লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের নাভিশ্বাস উঠিয়ে রাজ্যের 42 টি লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে 18 টা লোকসভা কেন্দ্র নিজেদের দখলে নিয়ে আসে গেরুয়া শিবির। তৃণমূল 22 টা আসন পেলেও বিজেপির এই উত্থানে তারা প্রবলভাবে আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। তবে শুধু লোকসভা ভোটে সাফল্য পাওয়াই নয়, ফলাফল প্রকাশের পর থেকেই রাজ্যের তৃণমূলের বিভিন্ন জনপ্রতিনিধিদেরকে ভাঙিয়ে

নেত্রীর নির্দেশ মাটির কাছাকাছি থাকতে অভিনব উদ্যোগ জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের, জেনে নিন

সদ্য সমাপ্ত সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল দেখে কিছুটা তাজ্জব বনে গিয়েছেন রাজ্যের শাসক দলের নেতারা। এক লহমায় তারা কেউই ভাবতে পারেননি যে, গত 2014 সালে তারা 34 টা আসন পেলেও এবার তা 22 এসে নেমে যাবে। কিন্তু সাধারণ মানুষের সাথে ঠিকমত জনসংযোগ না করলে যে হাতেনাতে ফল পেতে হয়, তা

“দিদিকে বলো” কর্মসূচি বানচাল করতে পাল্টা কৌশল নিচ্ছে বিজেপির, দাবি তৃণমূলের

লোকসভা নির্বাচনে দলের খারাপ ফলাফল হওয়ার পরই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুধাবন করেছিলেন যে, দলকে ঘুরে দাঁড় করাতে হলে জনসংযোগে পাঠাতে হবে দলীয় জনপ্রতিনিধিদের। আর তারপরই সম্প্রতি ভোটগুরু হিসেবে পরিচিত প্রশান্ত কিশোরকে দলের রণনীতিকার হিসেবে নিয়োগ করেন তৃণমূল সুপ্রিমো। যার জেরে কিছুদিন আগেই সেই প্রশান্ত কিশোরের পরামর্শেই নাকি তৃণমূল নেত্রী "দিদিকে বলো"

তৃনমূলের ”দিদিকে বলো”র পাল্টা বিজেপির “চায়ে পে চর্চা”, শোরগোল রাজ্য রাজনীতি

লোকসভা নির্বাচনে 34 থেকে দল 22 এ নেমে যাওয়ার পরই জনসংযোগ থেকেই যে তারা কিছুটা বিচ্যুত, তা আঁচ করতে পারেন তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তাইতো তড়িঘড়ি কিভাবে আগামী 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে দলকে জনসংযোগে পাঠানো যায়, তার জন্য নানা কৌশল আঁটতে থাকেন তিনি। সম্প্রতি সারা রাজ্য জুড়ে

“দিদিকে বলো”র পাল্টা নিয়ে এলো বিজেপি, জেনে নিন কি!

লোকসভা নির্বাচনে 42 স্লোগান দিয়ে 22 এ আসার পরই তৃণমূল নেত্রী উপলব্ধি করেছিলেন যে, তার দল জনসংযোগ থেকে বিচ্যুত হচ্ছে। যার ফলে দলের সমস্ত নেতা, বিধায়ক, মন্ত্রী, সাংসদদের তড়িঘড়ি জনসংযোগে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন তিনি। সম্প্রতি নজরুল মঞ্চে এই ব্যাপারে দলের পদাধিকারীদের সঙ্গে বৈঠক করে "দিদিকে বলো" নামে একটি কর্মসূচির সূচনা

তৃণমূলের “দিদিকে বলো” প্রকল্পকে হাতিয়ার করেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের চাপ বাড়িয়ে দিতে পথে বামেরা

লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলের পর দলের নেতা, মন্ত্রীদের সাথে যে সাধারণ মানুষের জনসংযোগ অতটা নেই এবং তার জন্যেই যে দলের এই খারাপ ফলাফল, তা বুঝতে পেরেছিলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তাইতো ফলাফল প্রকাশের পরই দলের নেতা, বিধায়কদের আরও বেশি করে সাধারণ মানুষের সঙ্গে জনসংযোগ করার নির্দেশ দিয়েছিলেন তিনি। সম্প্রতি "দিদিকে বলো"

প্রথম দিনেই ব্যাপক সাড়া, মনোবল ফিরে পাচ্ছে নেতা কর্মীরা, দাবি শাসকদলের

লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যে তৃণমূল ব্যাপক পরিমাণে ধাক্কা খেয়েছে। গত 2014 সালে 42 টির মধ্যে 34 টি আসনে জয়লাভ করলেও 2019 এ এসে তা 22 টিতে দাঁড়িয়েছে। অপরদিকে বিজেপি 18 টি আসন নিজেদের দখলে রেখেছে‌। যা নিঃসন্দেহে তৃণমূলের কাছে চিন্তার কারণ। আর দলের এই খারাপ ফলাফলের পরই জনসংযোগে যে যথেষ্ট ত্রুটি

Top
error: Content is protected !!