এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "cm"

মোদির সাথে বৈঠকে স্বয়ং তৃণমূল নেত্রী – দলের নেতাদের বিজেপি সংস্পর্শে সো-কজ ঘিরে এবার সাবধানী তৃণমূল

দলের নেতাদের বিজেপি সংস্পর্শ ঘিরে জোর চাঞ্চল্য ছড়িয়েছিলো তৃণমূলের অন্দরে। জেলার তৃণমূল নেতা,জনপ্রতিনিধিরা এই নিয়ে বেজায় আশঙ্কায় ছিলেন। কখন কোন বিজেপি নেতার সাথে দেখা হয়ে যায় আর তাদেরকে সো কজের মুখে পড়তে হয়। অবশ্য এই ভয়ের কারণও আছে। তা হলো বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি তথা সাংসদ দিলীপ ঘোষের সঙ্গে মেলার অনুষ্ঠানে

প্রশান্ত কিশোরের দাবি উড়িয়ে জবাব দিলেন মুখ্যমন্ত্রী, দূরত্ত্ব বাড়লো কি ?

  নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন লাগু হবার পর থেকেই দেশের প্রতিটা রাজনৈতিক দলের অন্দরে শুরু হয়েছে তৎপরতা। বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো এই আইনের বিরুদ্ধে বিরোধিতা করে রাস্তায় নামতে শুরু করেছে। তবে বিহারে বিজেপির জোটসঙ্গী নীতীশ কুমারের দল জেডিইউয়ের সহ-সভাপতি প্রশান্ত কিশোরের মন্তব্য নিয়ে কিছুদিন ধরেই জল্পনা তৈরি হয়েছিল। বিহারে বিজেপি এবং জেডিইউ একসাথে সরকার

রাজ্যপাল-মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্ঘাতে কি ইতি! জোর গুঞ্জন!

  রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধান রাজ্যপাল এবং রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান মুখ্যমন্ত্রীর মধ্যে সম্পর্কের ওঠানামার আলো-আঁধারির খেলা বিগত বেশ কিছু মাস ধরে চলছে। বস্তুত, পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল হিসেবে জগদীপ ধনকার যোগ দেওয়ার পর থেকেই বিভিন্ন বিষয়ে সাংবিধানিক প্রধানকে মন্তব্য করতে দেখা যায়। পাশাপাশি একাধিক জায়গায় নিজের মতো করে প্রশাসনিক বৈঠক করতে চাওয়ায় রাজ্য সরকারের তরফ

বিজেপির বিরুদ্ধে একজোট হতে অবিজেপি মুখ্যমন্ত্রীদের চিঠি মমতার, জোর গুঞ্জন

  প্রথম থেকেই নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে নিজের মতামত জানিয়ে আসছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ইতিমধ্যেই কলকাতার রাজপথে কখনও পদযাত্রা, আবার কখনও বা সভার মধ্যে দিয়ে নিজের প্রতিবাদ জারি রেখেছেন তিনি। তবে সারাদেশে আইন হয়েছে। তাই একা তিনি প্রতিবাদ করলে যে কাজে দেবে না, তা ভালই জানেন মমতা বন্দোপাধ্যায়ের।

সামনে এল মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্নের রূপশ্রী প্রকল্পের লক্ষ- লক্ষ টাকার দুর্নীতি! কড়া ব্যবস্থা?

2011 সালে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই সাধারণ মানুষের উন্নতিকল্পে নানা প্রকল্পের সূচনা করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ইতিমধ্যেই কন্যাশ্রী থেকে যুবশ্রী, সবুজসাথী এবং মেয়েদের বিয়ের ক্ষেত্রে যাতে কোনো খরচ না লাগে, তার জন্য রূপশ্রী প্রকল্পের সূচনা করেছে মা-মাটি-মানুষের সরকার। তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাধারণ দরিদ্র মানুষদের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে এত উন্নয়ন

সিএবি নিয়ে প্রতিবাদে আজ থেকে রাস্তায় খোদ মুখ্যমন্ত্রী! শান্তির আর্জিতেও অশান্তির আশঙ্কা?

  "আন্দোলন অগণতান্ত্রিক নয়, গণতান্ত্রিক ভাবে হোক।" নাগরিকত্ব আইন ইস্যুতে বাংলায় বিক্ষোভকারীদের প্রসঙ্গে আবেদন জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু তার সেই আবেদনে কর্ণপাত না করেই বাংলার বিভিন্ন প্রান্তে এই নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে গর্জে উঠেছেন বিক্ষোভকারীরা। পরিস্থিতি এমন জায়গায় পৌঁছে গেছে যে, মালদা, মুর্শিদাবাদ, উলুবেরিয়া, বসিরহাটের মত এলাকাগুলি জ্বলতে শুরু করেছে।

মানুষের টাকায় মানুষকে ভুল বুঝিয়ে আইনবিরুদ্ধ বিজ্ঞাপন মুখ্যমন্ত্রীর? বিস্ফোরক রাজ্যপাল

  অসমে এনআরসি চালুর পর থেকেই বাংলাতেও এনআরসি চালু হবে বলে দাবি করেছিল গেরুয়া শিবিরের নেতারা। তবে প্রথম থেকেই তিনি থাকতে বাংলাতে কোনভাবেই এনআরসি চালু করতে দেবেন না বলে জেহাদ ঘোষণা করতে দেখা গিয়েছিল তৃণমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। তবে সম্প্রতি সংসদের দুই কক্ষ নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাস হয়ে

অশান্ত বাংলাকে শান্ত করতে আপৎকালীন ভিত্তিতে কালীঘাটে উচ্চপর্যায়ের বৈঠক মুখ্যমন্ত্রীর

  নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে গত শুক্রবার থেকে বাংলার বিভিন্ন প্রান্তে প্রবল আন্দোলন শুরু হয়েছে। কোথাও রাস্তা অবরোধ, কোথাও ট্রেনে হামলা, আবার কোথাও বা স্টেশনে আগুন জ্বালিয়ে দেওয়ার মতো ঘটনা ঘটতে দেখা গেছে। যত দিন যাচ্ছে, ততই বাড়তে শুরু করেছে উত্তেজনা। আর এই পরিস্থিতিতে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন না মানলেও, আন্দোলনকারীদের আন্দোলন যাতে

মমতার পর দলকে বিজেপির হাত থেকে বাঁচাতে পিকেকে মরিয়া ডাক আরেক মুখ্যমন্ত্রীর!

  কিছুদিন আগেই সমাপ্ত হয়েছে দেশের লোকসভা নির্বাচন। যে নির্বাচনে তৃণমূল প্রভাবিত পশ্চিমবঙ্গেও বয়ে গিয়েছে বিজেপির মোদি ঝড়। যে ঝড়ের মধ্যে দিয়ে বাংলার 42 টি আসনের মধ্যে 18 টি আসন নিজেদের দখলে নিয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি। 22 টি আসন পেয়ে কার্যত চিন্তায় পড়ে গিয়েছিল শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। তবে বিজেপিকে কোণঠাসা করতে

মুখ্যমন্ত্রী নিজের হাতে চা বানিয়েছিলেন, এবার ভাঙা পড়লো দিঘার সেই চায়ের দোকান

রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে গিয়েছিলেন দীঘার বিজ্ঞান মঞ্চ লাগোয়া একটি ছোট চায়ের দোকানের মালিক পরিমল জানা। কারণ অবশ্য রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। চলতি বছরের অগাস্টে দীঘা সফরে গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর সেখানেই হাঁটতে হাঁটতে ঢুকে পড়েন পরিমল জানার চায়ের দোকানে। শুধু দোকানে ঢোকাই নয়, দোকানে ঢুকে নিজেই চা বানাতে শুরু করেন

Top
error: Content is protected !!