এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "bjp leader"

এবার বিজেপি ছাড়তে চলেছেন বাংলার এই হেভিওয়েট নেতা, জোর জল্পনা!

প্রায় বেশ কিছুদিন ধরেই বিজেপির সঙ্গে তার বনিবনা হচ্ছিল না। আর এবার নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে স্বপক্ষে প্রচার করতে যখন ব্যস্ত গোটা গেরুয়া শিবির, ঠিক তখনই দল ছাড়ার হুঁশিয়ারি দিলেন নেতাজির প্রপৌত্র চন্দ্র বসু। শুধু তাই নয়, সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ছবিতে নেতাজি সুভাষচন্দ্রের হাতে বিজেপির পতাকা ধরিয়ে দেওয়া নিয়ে

রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসনের জল্পনা বাড়িয়ে দিলেন বিজেপি নেতা , জেনে নিন

  রাজ্যের রাজ্যপাল হিসেবে জাগদীপ ধনকার দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই সরকারের সঙ্গে রাজ্যপালের মতানৈক্য তৈরি হয়েছে‌। বিভিন্ন ইস্যুতে রাজভবনের সঙ্গে নবান্নের দূরত্ব দিনকে দিন বাড়তে শুরু করেছে। যাকে নিঃসন্দেহে রাজ্যের প্রশাসনিক এবং সাংবিধানিক কাঠামোর পরিপন্থী বলেই দাবি করেছে রাজনৈতিক মহল। আর রাজ্যপাল বনাম রাজভবনের তিক্ততার সম্পর্কের মাঝে গোদের ওপর বিষফোঁড়া হিসেবে দেখা

হেভিওয়েট বিজেপি নেতার অস্ত্রেই গেরুয়া শিবিরকে মাত দিলেন  নেত্রী 

  বৃত্ত সম্পন্ন হল দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের। 2019 সালের লোকসভা নির্বাচনে বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রে ভারতীয় জনতা পার্টির প্রার্থী সুকান্ত মজুমদারের কাছে পরাজিত হতে হয় তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী অর্পিতা ঘোষকে। সেই সময় তৃণমূল কংগ্রেসের তদানীন্তন জেলা সভাপতি বিপ্লব মিত্রর বিরুদ্ধে নেপথ্যে থেকে বিজেপিকে মদত দেওয়ার অভিযোগ ওঠে। এরপরই তৃণমূল নেত্রী তথা

বড়সড় ধাক্কা বিজেপিতে, নেত্রীর হাত ধরে দলে ফিরলেন পুরোনো সৈনিক

  যত দিন যাচ্ছে, ততই অবস্থা খারাপ হতে শুরু করেছে ভারতীয় জনতা পার্টির। লোকসভা নির্বাচনে বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রে জয়লাভ করেছিল বিজেপি‌। তবে তারপরই তৃণমূল প্রার্থী অর্পিতা ঘোষ পরাজিত হওয়ার কারণে, জেলা সভাপতি পদ থেকে বিপ্লব মিত্রকে সরিয়ে দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যার ফলে কিছুটা হলেও মনঃক্ষুণ্ণ হন সেই বিপ্লববাবু। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছয়

যারা নাগরিকত্ব সংশোধনীর বিরুদ্ধে আন্দোলন করছে, তাদের বাংলাদেশী বলে মন্তব্য হেভিওয়েট বিজেপি নেতার, জোর বিতর্ক

  জাতীয় নাগরিকপঞ্জি সংশোধনী আইন ইতিমধ্যেই লাগু হয়েছে সারাদেশে। যার ফলে সেই আইনের বিরোধিতা করে বিজেপি দেশের মানুষদের বিরুদ্ধে চক্রান্ত করছে বলে দাবি মমতা বন্দোপাধ্যায়ের। ইতিমধ্যেই এই নাগরিকপঞ্জি সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে পথে নেমেছেন তিনি। বাংলায় যে তিনি এনআরসি হতে দেবেন না, সেই ব্যাপারে ইতিমধ্যেই সমাজের বিশিষ্টজনদের নিয়ে পদযাত্রা করে নিজের বক্তব্যের

গড়বেতা থেকে বাগনান! বিজেপি নেতা কর্মীদের দোকানে ভাঙচুর আগুন! অভিযুক্ত তৃণমূল

  রাজ্যে গণতন্ত্র নেই বলে মাঝেমধ্যেই সরব হতে দেখা যায় বিজেপি নেতাদের। লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির রাজ্যে উত্থানের পর গেরুয়া শিবিরের প্রতি শাসক দলের নেতাকর্মীরা প্রতিহিংসাবশত আচরণ করছে বলে অভিযোগ করা হয়েছিল। তবে বরাবরই শাসকদলের পক্ষ থেকে সেই অভিযোগকে অস্বীকার করা হয়েছে। আর এবার গড়বেতা থানার চন্দ্রকোনা রোড এলাকায় করসা 2 নম্বর

ঝাড়খণ্ডের খুনের মামলায় অভিযুক্তের বাইক-মোবাইল মিলল বাংলার বিজেপির দাপুটে নেতার বাড়িতে!

  জনমানসে যখন বিজেপির সম্পর্কে সদ্ভাবনা জন্মাচ্ছে, ঠিক তখনই একের পর এক নেতার কুকীর্তিতে বিধ্বস্ত হয়ে পড়ছে গেরুয়া শিবির। এবার ঝাড়খণ্ডের খুনের মামলায় অভিযুক্ত ব্যক্তির বাইক এবং মোবাইল জামুড়িয়ার বিজেপির জেলা সম্পাদকের বাড়ি থেকে উদ্ধার হওয়ায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ল। বস্তুত, ঝাড়খণ্ডের মিহিজাম থানা এলাকার বাসিন্দা স্করপিও গাড়ির মালিক প্রভাত কুমার গত

খড়গপুরে দলীয় প্রার্থীর প্রচার এসে মমতাকে নিয়ে বিস্ফোরক দাবি করলেন মুকুল রায়

  একসময় তিনি তৃণমূলের সেকেন্ড-ইন-কমান্ড ছিলেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছায়াসঙ্গীও বলা হত তাঁকে। আর ঘাসফুল শিবিরে থাকার সময় তৃণমূল দলের সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব নিজের হাতে সামলাতেন মুকুল রায়। তবে প্রায় অনেকদিন হয়ে গেল তিনি তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করেছেন। আর বিজেপিতে যোগ দিয়ে তৃণমূলের অস্বস্তি বাড়িয়ে একের পর এক হেভিওয়েট নেতাকে যেমন গেরুয়া

দল থেকে সদ্য বহিষ্কৃত নেতাকে সঙ্গে নিয়ে ঘুরছেন বিজেপি সাংসদ! তীব্র বিতর্ক গেরুয়া শিবিরে

লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি সাফল্য পাওয়ার পর আগামী বিধানসভা নির্বাচনকে টার্গেট করেছে তারা। আর বিধানসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে বিজেপি এখন নিজেদের দলের মধ্যে যেমন স্বচ্ছতা আনতে চাইছে, ঠিক তেমনই সংগঠনকে শক্তিশালী করতে চাইছে। ইতিপূর্বেই নানা ঘটনায় বিজেপি নিজেদের শৃঙ্খলার প্রমান দিতে অনেককেই দল থেকে বরখাস্ত করেছে। কিন্তু বিজেপির জেলা নেতৃত্ব থেকে

এনআরসি নিয়ে তৃণমূলের তীব্র প্রচারের পাল্টা দিতে বিজেপি নেতাদের প্রশিক্ষনে আসছেন কেন্দ্রীয় নেতারা

  লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির উত্থান ছিল চোখে পড়ার মত। 2 থেকে 18 টি আসন দখল করে বিজেপি কার্যত তাক লাগিয়ে দিয়েছে। উত্তরবঙ্গে 7 টি আসন দখল করে তৃণমূলকে কার্যত ধুয়ে মুছে সাফ করে দিয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি। তবে লোকসভায় বিজেপির উত্থান ঘটলেও, যত দিন যাচ্ছে ততই যেন বিজেপি প্রভাব কমতে শুরু

Top
error: Content is protected !!