এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "bardhaman"

বর্ধমানের জন্যে একগুচ্ছ প্রতিশ্রুতি আর প্রকল্প নিয়ে আজ জেলায় যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী

ক্ষমতায় আসার পর থেকেই মিনি মহাকরন নিয়ে জেলায় জেলায় পৌঁছে যেতে দেখা যায় রাজ্যের বর্তমান মা-মাটি-মানুষের সরকার ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। মাঝে লোকসভা নির্বাচন থাকায় সেই প্রশাসনিক বৈঠকে কিছুটা ছেদ পড়েছিল‌। কিন্তু আবার ফের উন্নয়নের ডালি নিয়ে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে যেতে শুরু করেছেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান। সূত্রের খবর, খবর আজ

বিরোধীদের দাবিকে সীলমোহর দিয়ে বাংলায় জঙ্গিদের উপদ্রব নিয়ে সতর্কবার্তা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের পক্ষ থেকে

বাংলায় জঙ্গিদের উপদ্রব দিনকে দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে বিভিন্ন সময়েই রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলার ব্যাপারে সরব হতে দেখা গেছে বিরোধীদের। আর এবার বিরোধীদের এই দাবিকে কিছুটা হলেও সীলমোহর দিয়ে রাজ্যের মুর্শিদাবাদ এবং বর্ধমান জেলার মাদ্রাসা নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের পক্ষ থেকে সতর্কবার্তা জারি করা হল। সূত্রের খবর, মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে,

অনুব্রতর বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে দল ছাড়ার পোস্ট, হেভিওয়েট নেত্রীর, পরে ডিলিট, জোর জল্পনা

একটি ফেসবুক পোস্টকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়ালো বর্ধমানের গুসকরায়।এই পোস্টটি করেন গুসকরা পৌরসভার প্রাক্তন তৃণমূল কাউন্সিলর মল্লিকা চোঙদার।ফেসবুকে করা সেই পোস্টের সঙ্গে তিনি জড়িয়ে দিলেন বীরভূমের বিতর্কিত তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডলের নাম। সরাসরি অনুব্রত মণ্ডলের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে সোশ্যাল মিডিয়ায় দল ছাড়ার বার্তা দিয়ে মল্লিকা চোঙদার লেখেন- "অনুব্রত মণ্ডলের দুর্ব্যবহারে

দিদির অন্যতম সেরা সৈনিক যে তিনিই বিজেপির ঘরে ভাঙ্গন ধরিয়ে ফের প্রমান অনুব্রতর

লোকসভা ভোটের পর থেকে 'ঘর ভাঙা'র পর্ব ক্রমশ দীর্ঘ হচ্ছে তৃণমূল শিবিরে। প্রায় প্রতিদিনই জোড়াফুল ছেড়ে পদ্মে যোগাদান করছেন দলের নেতা কর্মীরা। এই ধারাবাহিক ভাঙনের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে উলটপুরান ঘটালেন বীরভূম তৃণমূল কংগ্রেসের অবিসংবাদিত নেতা অনুব্রত মণ্ডল। অনুব্রত ম‍্যাজিকের জোরে বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে ফিরলেন সহস্রাধিক নেতা-কর্মী। গতকাল বর্ধমানের আউশগ্রামে তৃণমূলের একটি কর্মীসভার

সাঁইবাড়ি গণহত্যার স্মৃতি জাগিয়ে বর্ধমানের ভোটযুদ্ধ জোরদার করলেন হেভিওয়েট বিজেপি প্রার্থী

গত 2011 সালে রাজ্যে পালাবদলের ক্ষেত্রে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আন্দোলনের মধ্যে যেমন সিঙ্গুর, নন্দীগ্রামের মত জায়গাগুলির নাম যুক্ত ছিল, ঠিক তেমনই যুক্ত ছিল সাঁইবাড়ির নামও। তবে এবার রাজ্যের বর্তমান শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে সেই তৃণমূলকেই ব্যাকফুটে ফেলে নববর্ষের দিন সাঁইবাড়ির সেই শহীদ বেদীতে মাল্যদান করে নিজের প্রচার

গোষ্ঠীকোন্দল আটকাতে এবার প্রকাশ্যেই পুলিশে ধরানোর দাওয়াই তৃণমূল যুব নেতার – শুরু তীব্র বিতর্ক

নির্বাচনে সফল হওয়ার জন্য যে কোনো রাজনৈতিক দলের প্রথম শর্ত হল মজবুত সংগঠন। আর এই সাংগঠনিক শক্তিকে পোক্ত করতে গেল সবার আগে দরকার দলীয় আভ্যন্তরীন কোন্দলের ইতি টানা। একথা সহযোদ্ধাদের দফায় দফায় বুঝিয়ে এসেছেন দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর যবে থেকে ১৯'এর লোকসভা ভোটের সম্ভাব্য সময় নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছে, তবে থেকেই

চিন্তা বাড়িয়ে বড়সড় বিদ্রোহ বর্ধমানে – গণ ইস্তফা ব্লক, অঞ্চল সভাপতি সহ সমস্ত সদস্যের, অস্বস্তিতে শাসকদল

এবার তৃণমূল ছাত্র পরিষদের ব্লক সভাপতি সহ গ্রাম পঞ্চায়েতের দলীয় ছাত্র সংগঠনের বেশ কয়েকজন সভাপতি সহ 300 জন সদস্যের ইস্তফায় বড়সড় অস্বস্তিতে বর্ধমানের শাসক দল। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন জেলায় প্রশাসনিক সভা করছেন ঠিক তখনই সেই শাসকদলের ছাত্র সংগঠনের নেতাদের ইস্তফা রাজনৈতিক দিক থেকে অনেকটাই অস্বস্তিতে ফেলতে শুরু করেছে

একই অফিসে দু-দুজন ডিআই – চূড়ান্ত ধন্দে শিক্ষক থেকে অফিসের কর্মীরা

ডিআই বিভ্রাট পূর্ব বর্ধমানে! এদিন জেলার বেশ কয়েকজন শিক্ষক নিজেদের কাজকর্ম সারতে এসে৷ বর্ধমানে জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শক অফিসে এসে ধন্দে পড়ে যান। একই অফিসে দু'জন জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শক (মাধ্যমিক) অফিস চালাচ্ছেন। এই অবস্থায় কোন ডিআই চার্জে রয়েছেন আর কে রিজার্ভে রয়েছে তা নিয়েই ধন্দে পড়ে গেলেন অফিসের কর্মী থেকে শুরু

Top
error: Content is protected !!