এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "asansol"

“দিদিকে বলো” নিয়ে তৃণমূলকে কার্যত ধুয়ে দিলেন বাবুল সুপ্রিয়! জানুন বিস্তারিত

লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যে তৃণমূলকে টেক্কা দিয়ে বিরোধী স্থানে উঠে এসে বিজেপি শাসক দল তৃণমূলের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলতে শুরু করেছে। যার ফলে লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশের পরেই প্রশান্ত কিশোরের প্ল্যানে গোটা দলকে "দিদিকে বলো" কর্মসূচির মধ্য দিয়ে জনসংযোগে পাঠিয়ে দিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে তৃণমূল এই জনসংযোগ প্রকল্প করলেও

নিজের কেন্দ্রে বিক্ষোভের মুখে পড়লেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী, জেনে নিন

দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় এসেই কেন্দ্রের তরফে ভারতীয় রেলে বেসরকারি বিনিয়োগের উদ‍্যোগ নেওয়া হয়েছে। বাজেটে রেলকে 'পিপিপি' মডেল বা 'পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ'-এর প্রস্তাব দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন। সেই অনুযায়ী ইতিমধ্যে রেলের সাতটি প্রোডাকশন ইউনিটে বিলগ্নিকরনের প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। এর মধ‍্যে চিত্তরঞ্জনের রেল ইঞ্জিন কারখানা অন‍্যতম। কেন্দ্রের এই পদক্ষেপকে সমর্থন করে আসানসোলে বিক্ষোভের

উলটপুরাণ বাংলায়! হেভিওয়েট বিজেপি সাংসদের বিরুদ্ধে কাটমানির অভিযোগ! উত্তাল সোশ্যাল মিডিয়া

লোকসভা নির্বাচনে এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় 42 এ 42 এর ডাক দিয়েছিলেন। কিন্তু তাঁর সেই স্লোগান পূর্ণ হয়নি। উল্টে বিজেপি বাংলা থেকে 18 টি আসন নিজেদের দখলে নিয়ে তৃণমূলের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলতে শুরু করেছে। আর দলের এই খারাপ ফলাফলের পরই ফলাফল পর্যালোচনা বৈঠকে কি কারণে এই খারাপ ফলাফল হল, তা নিয়ে

বাংলায় রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করতে দিচ্ছে না বিজেপি, বিস্ফোরক দাবি বিজেপির মন্ত্রীর

লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই রাজ্যে ঘটে চলেছে লাগাতার হিংসার ঘটনা। একের পর এক হিংসা এবং সংঘর্ষে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের কর্মীরা প্রাণ হারাতে শুরু করেছেন। যার ফলে রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা অবনতির অভিযোগ তুলে সোচ্চার হতে দেখা যাচ্ছে বিরোধী দল বিজেপিকে। যে ঘটনায় সম্প্রতি জল্পনা ছড়িয়েছিল যে, বাংলায় অভূতপূর্বভাবে উত্থান ঘটা 18 টি

আসানসোলে ডিসাইডিং ফ্যাক্টর “জয় শ্রীরাম” বুঝেই ভাগ বসাতে ঝাপালেন তৃণমূল নেতারাও!

ইতিমধ্যেই রাজ্যের পাঁচটি কেন্দ্রে লোকসভা নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। আর যে সমস্ত কেন্দ্রের এখনো নির্বাচন হয়নি, সেই সমস্ত কেন্দ্রগুলিতে বিভিন্ন কায়দায় মানুষের সমর্থন পেতে জোর প্রচার শুরু করেছে শাসক-বিরোধী সমস্ত রাজনৈতিক দলের প্রার্থীরাই। মূলত এবারের নির্বাচনে ভোটার অপেক্ষা রামকে নিজেদের দখলে রাখতে তৎপর হয়ে উঠেছে রাজনৈতিক দলগুলো। আর এরকমই একটি কেন্দ্র আসানসোল

অর্জুনকে নিয়ে এতদিন পরে মুখ খুললেন নেত্রী, কি বললেন প্রাক্তন সৈনিককে নিয়ে -জেনে নিন

ভাটপাড়ার বিধায়ককে 'নাম না করে 'গদার' বলে আক্রমণ শানালেন নেত্রী। তৃণমূলে 'গদ্দার 'কথাটির সূচনা হয় সেদিন - যেদিন তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে মুকুল রায় যোগ দিয়েছিলেন। তৃণমূলের নেতা নেত্রীরা প্রকাশ্য সভাতে মুকুল রায় এর নাম করে, কখনো নাম না করে 'গদ্দার 'বলেছেন। অভিষেক ব্যানার্জিও প্রকাশ্য সভা থেকে মুকুল রায়কে 'গদ্দার' বলে আখ্যায়িত

ফ্লেক্স-দেওয়াল লিখন এখন অতীত – তৃণমূল-বামফ্রন্ট-বিজেপি সকলেরই ভরসা এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার!

এতদিন যে কোনো নির্বাচনেই দেওয়াল লিখন কিংবা পোস্টারের উপর ভরসা করেই জোর প্রচারের পক্ষে সওয়াল করত বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলো। কিন্তু মানুষ যত আধুনিক হচ্ছে ততই উন্নত হচ্ছে প্রযুক্তি। আর তাই নব্য যুগের এই নব্য প্রযুক্তিকে হাতিয়ার করে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের কাছে নিজেদের দলীয় প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার আবেদন

এখনও সুচিত্রা সেনের “সেন্টিমেন্ট” কাজে লাগিয়ে আসানসোলে বাজিমাতের মহা-পরিকল্পনা মুনমুন সেনের

গত 2014 লোকসভা নির্বাচনে আসানসোল লোকসভা কেন্দ্র দখল করেছিল বিজেপি। আর এবার সেখানে কাঁটা দিয়ে কাঁটা তুলতে অভিনেত্রী প্রয়াত সুচিত্রা সেনের মেয়ে মুনমুন সেনকে প্রার্থী করেছে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। তবে শুধু মুনমুনকে প্রার্থী করাই নয়, আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বাঙালির স্বয়নে, স্বপনে ও জাগরনে থাকা সেই মুনমুনের মা প্রয়াত কালোজয়ী

মাদার-যুবর মান-অভিমান-দ্বন্দ্ব ভুলিয়ে বিজেপিকে হারাতে বড়সড় প্রচেষ্টা শুরু হেভিওয়েট মন্ত্রীর

প্রায়শই তৃণমূলের যুব সংগঠনের সাথে মাদার সংগঠনের লড়াইয়ে সারা রাজ্যের মধ্যে রণক্ষেত্র আকার ধারণ করতে দেখা গিয়েছিল কোচবিহারের দিনহাটাকে। এমনকি যুব বনাম মাদারের এই গন্ডগোল দমাতে দলের শীর্ষ নেতৃত্বের পক্ষ থেকে বারে বারে কোচবিহারের তৃনমূল নেতাদের সতর্ক করা হলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। কিন্তু এবার আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের দামামা বাজার সাথে

কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়ে ভয় নেই, বিধানসভার “পিছিয়ে থাকার অংক” মেলাতেই বেশি ব্যস্ত অনুব্রত মণ্ডল

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে প্রায় অনেক দিন ধরেই গোটা বীরভূম জেলা জুড়ে বিভিন্ন বুথ ভিত্তিক কর্মী সম্মেলনে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। প্রায় প্রতিটি বুথে গিয়েই আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে দলের পদাধিকারীরা ঠিক কত লিড দিতে পারবেন তা নিয়ে বিভিন্ন কর্মী-সমর্থকদের কাছে জবাব চেয়েছেন মমতা

Top
error: Content is protected !!