এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "anupam hazra"

মুকুল-অনুপম এলাকায় যেতেই বাড়ল চাপ! গভীর রাতে ছাড়া পেলেন হেভিওয়েট নেতা সহ ৪২ জন বিজেপি কর্মী

রাজ্যে আইনের শাসন নেই বলে দীর্ঘদিন ধরেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হতে দেখা গেছে বিজেপিকে। তবে বিজেপির এই আন্দোলনে এবার রীতিমতো পিছু হটতে দেখা গেল রাজ্য প্রশাসনকে। সূত্রের খবর, সিউড়িতে ধর্না মঞ্চে গ্রেপ্তার হওয়া বিজেপির ৪২ জন নেতা-কর্মীকে শনিবার গভীর রাতে ছেড়ে দেয় পুলিশ। যেখানে ধৃতদের ব্যক্তিগত বন্ডে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। প্রসঙ্গত

BIG BREAKING-গ্রেফতার বিজেপি নেতা অনুপম হাজরা, জোর শোরগোল রাজ্যে

প্রাইমারি ট্রেইনড টিচার অ্যাসোসিয়েশনের মিছিলে হেঁটে গ্রেফতার বিজেপি নেতা অনুপম হাজরা। জানা যাচ্ছে যে, প্রাইমারি ট্রেইনড টিচার অ্যাসোসিয়েশনের নানা দাবি ঘিরে মিছিল হয় এদিন আর সেখানেই অংশগ্রহন করেন অনুপম হাজরা। অভিযোগ শিক্ষকদের মিছিল সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউয়ের দিকে আসতেই পুলিশ বাধা দিতে শুরু করে। এর পর পরিস্থিতি উতপ্ত হয় , শুরু হয় ধাক্কাধাক্কি।

প্রাক্তন নেত্রীর বিরুদ্ধে শালীনতার মাত্রা ছাড়ালেন হেভিওয়েট বিজেপি নেতা

রাজনীতিতে কুকথা যেন থামছে না কিছুতেই। শাসক থেকে বিরোধী, একে অপরকে উদ্দেশ্য করে রাজনৈতিক মন্তব্য করা অপেক্ষা কুমন্তব্য করার প্রতিযোগিতাই এখন যেন সব থেকে বেশি চোখে পড়ছে বঙ্গ রাজনীতিতে। বস্তুত, লোকসভা নির্বাচনের অনেক আগেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন প্রাক্তন সাংসদ তথা বিশিষ্ট অধ্যাপক অনুপম হাজরা। তবে শিবির বদলালেও সেইভাবে মমতা

কাটমানির বস্তা দিদির খুব প্রিয়, বিস্ফোরক দাবি প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদের

মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণার পর থেকে রাজ্য রাজনীতিতে তীব্র উত্তেজনা বজায় রয়েছে কাটমানি ফেরত কে কেন্দ্র করে। জেলায় জেলায় সাধারণ মানুষের বিক্ষোভের মুখে পড়ছেন তৃণমূলের ছোটো ও মাঝারি নেতা কর্মীরা ।আবার বিজেপির পক্ষ থেকে কাটমানি প্রসঙ্গে বারবার তৃণমূলের শীর্ষনেতৃত্বের বিরুদ্ধে আঙ্গুল তোলা হয়েছে। এই বিতর্ক নতুন মোড় নিল অধুনা বিজেপি নেতা, প্রাক্তন তৃণমূল

একদিকে ‘মিথ্যা অশ্লীল ছবি’, অন্যদিকে ‘বিকৃত মিথ্যা খবর’ – তৃণমূলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে বিস্ফোরক অভিযোগ অনুপমের

অনুপম হাজরা ২০১৪ সালে লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের টিকিটে বোলপুর লোকসভা কেন্দ্র থেকে দাঁড়িয়েছিলেন আর সেখান থেকে দাঁড়িয়ে জেতেনও। কিন্তু নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায় দলের নানা বিষয়ে পোস্ট ও তৃণমূলের বোলপুরের জেলা সভাপতি অনুব্রত মন্ডলের সাথে বিবাদে জড়িয়ে কার্যত দলে একপ্রকার ব্রাত্য হয়ে পড়েন তিনি। আর এর পরেই বিষ্ণুপুরের সাংসদ তথা অনুপম

“মিমি-বিকাশকে” পূর্ণ সম্মান দিয়েও “রাজনৈতিক সচেতন” যাদবপুরে তাদের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে প্রচার অনুপমের

লোকসভা নির্বাচনের দিন যত এগিয়ে আসছে ততই রাজনৈতিক দলগুলোর পক্ষ থেকে একে অপরকে উদ্দেশ্য করে জোর টিপ্পনি শুরু হয়েছে। বিরোধী রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে একচুলও জায়গা ছাড়তে নারাজ অন্য রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিরা। ইতিমধ্যেই বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা একে অপরের বিরুদ্ধে কুমন্তব্য করে শিরোনামে আসতে শুরু করেছেন। তবে এরই ফাঁকে গত লোকসভা নির্বাচনে বীরভূমের

পিছিয়ে থেকে যাদবপুরে দৌড় শুরু অনুপমের, মিমি জোর দিচ্ছেন বেশি স্টুডিওপাড়ায়

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে যাদবপুর লোকসভা কেন্দ্রে শাসক-বিরোধী প্রার্থীদের জমজমাট রাজনৈতিক লড়াইয়ে অনেকটাই অক্সিজেন পাচ্ছে সমস্ত রাজনৈতিক দলগুলো। একদিকে এই যাদবপুর লোকসভা কেন্দ্রে তৃণমূলের প্রার্থী হয়েছেন বিশিষ্ট টলি অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী, আবার অপরদিকে সদ্য তৃণমূল ত্যাগী বীরভূম লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূলের প্রাক্তন সাংসদ তথা বর্তমান বিজেপি নেতা অনুপম হাজরাকে এইখানে প্রার্থী করেছে

যাদবপুরে কার পাল্লা ভারী মিমি না অনুপম? বিজেপি তৃণমূলের কার ভাগ্যে আসবে শেষ হাসি হাসা

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে মূল লড়াই রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল বনাম বিরোধী দল বিজেপির মধ্যেই যে হবে সেই ব্যাপারে একপ্রকার নিশ্চিত রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। আর সেইমতই রাজ্যের প্রতিটি লোকসভা কেন্দ্রে কে কাকে টেক্কা দেবে সেই ব্যাপারে এখন থেকেই নানা সমীকরণ শুরু করে দিয়েছে অভিজ্ঞ মহল। আর এবারে রাজ্যের অন্যান্য লোকসভা কেন্দ্রের সাথে সাথে

দলের শীর্ষ নেতৃত্বের অনুপম হাজরার বহিষ্কারের সিদ্ধান্তে খুশির জোয়ার এই শিবিরে

একই দিনে যেন জোড়া পতন ঘটল তৃণমূলে। একদিকে নয়াদিল্লিতে বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুরের তৃণমূল সাংসদ সৌমিত্র খাঁয়ের বিজেপিতে যোগদান, আর অন্যদিকে সেই সৌমিত্র খাঁয়ের পথ মাড়াতে পারেন বোলপুরের তৃণমূল সাংসদ অনুপম হাজরা-সেই আশঙ্কায় আগেভাগেই এদিন তৃণমূল ভবন থেকে অনুপম হাজরাকে বহিষ্কার করার ঘটনায় তোলপাড় হয়ে উঠল রাজ্য রাজনীতি। প্রসঙ্গত, বীরভূম জেলার রাজনীতিতে জেলা

.বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ফের মামলা করলেন অনুপম হাজরা

হাইকোর্টের নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও কাজে যোগ দিতে পারছেন না। বলা ভাল তাঁকে কাজে যোগ দিতে দেওয়া হচ্ছে না – এমন গুরুতর অভিযোগ তুললেন বোলপুরের তৃণমূল সাংসদ অনুপম হাজরা। তাঁর অভিযোগের তীর ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য সবুজকলি সেন, ভারপ্রাপ্ত কর্মসচিব সৌগত চট্টোপাধ্যায় ও সমাজকর্ম বিভাগের প্রধান কুমকুম ভট্টাচার্যের দিকে। বিশ্বভারতীর সমাজকর্ম বিভাগের অধ্যাপক ছিলেন

Top
error: Content is protected !!