এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "শিক্ষক সমাজ"

সরকারি কর্মচারীদের বিরুদ্ধে ‘হিংস্র ও পাশবিক’ আচরণের বিস্ফোরক অভিযোগ উঠল মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিরোধী নেত্রী থাকার সময় থেকেই দাবি করে এসেছেন তিনি রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের উন্নয়নে অত্যন্ত আন্তরিক। তিনি বারেবারেই বিভিন্ন জনসভায় দাবি করেছেন, বাম আমলের বিপুল পরিমান ঋণের বোঝা মাথায় নিয়েও তিনি রাজ্যের উন্নয়ন করে চলেছেন এবং একই সাথে যখন যেটুকু সম্ভব হয়েছে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের প্রাপ্য মেটানোর

আজকের পর বাংলার সরকারি কর্মচারী ও শিক্ষক ভোটের রঙটা কি গেরুয়া হয়েই গেল? বাড়ছে জল্পনা

বর্তমান রাজ্য সরকারের উপর এই মুহূর্তে বোধহয় সবথেকে বেশি ক্ষিপ্ত রাজ্যের লক্ষ লক্ষ সরকারি কর্মচারী, শিক্ষক ও সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত কর্মচারীরা। একের পর এক আন্দোলন ও রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে মামলা সেই ইঙ্গিতই দিচ্ছে। আর রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের এই আন্দোলনের সঙ্গে দীর্ঘদিন যুক্ত থাকা নেতা তথা সরকারি কর্মচারী পরিষদের রাজ্য আহ্বায়ক দেবাশীষ

প্রশ্নফাঁস কাণ্ডে এযাবৎ কালের সবথেকে বড় শিক্ষক জমায়েত ও আন্দোলন আগামীকাল, ঝড় উঠতে চলেছে বিকাশ ভবন অভিযানে

রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষকদের এক বৃহদংশের অভিযোগ, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ওপেন স্কুলিং বা NIOS কর্তৃপক্ষের অমানবিক ও অনৈতিক সিদ্ধান্তে, বর্তমানে রাজ্যের ১ লক্ষ ৬৯ হাজার প্রাথমিক, এস.এস.কে, এম.এস.কে ও বেসরকারী চাকুরীরত শিক্ষক-শিক্ষিকাদের জীবন-জীবিকা আজ বিপন্ন। আর তাই, প্রশ্নফাঁস কাণ্ডের জেরে কর্তৃপক্ষের দুই 'অমানবিক' সিদ্ধান্তে চাকরি খোয়ানোর আতঙ্কে ভুগছেন রাজ্যের হাজার হাজার

নিরাপত্তা সুনিশ্চিত না হলে লোকসভা ভোটে ভোটকর্মী হিসাবে ভোট নিতে যাবেন না শিক্ষক শিক্ষাকর্মীরা

লোকসভা নির্বাচনে ভোটকর্মী হিসাবে যথাযথ নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানিয়ে গতকাল পশ্চিম মেদিনীপুরের জেলা শাসকের নিকট ডেপুটেশন দিল শিক্ষক-শিক্ষাকর্মী-শিক্ষানুরাগী ঐক্যমঞ্চ। ঐক্যমঞ্চের ১১ জনের এক প্রতিনিধিদল জেলাশাসকের এডিএম প্রতিমা দাসের সাথে সাক্ষাৎ করেন। তিনি বলেন, নিরাপত্তার বিষয়টি অবশ্যই দেখা হবে। স্পর্শকাতর বুথ গুলিতে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এর পাশাপাশিই তিনি জানান,

NIOS-এর প্রশ্নফাঁস কাণ্ডে কলকাতা হাইকোর্টে আজ বড়সড় পদক্ষেপ শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চের – জানুন বিস্তারিত

পশ্চিমবঙ্গে নবনিযুক্ত ও অবশিষ্ট প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য ন্যাশনাল ইন্সটিউট অফ ওপেন স্কুলিং-এর (এনআইওএস) যে প্রশিক্ষণের পরীক্ষা (ডিএলএড) হয়েছিল - সেই পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে পরীক্ষা বাতিল হয়ে যায় শুধুমাত্র পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষকদের জন্য। সর্বভারতীয় পরীক্ষা হলেও - শুধুমাত্র বাংলার ক্ষেত্রে এহেন সিদ্ধান্ত নেওয়ায় চূড়ান্তরূপে ক্ষুব্ধ বঙ্গের শিক্ষক সমাজ। ইতিমধ্যেই রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষকদের

পিআরটি স্কেল ও অন্যান্য দাবিতে দিলীপ ঘোষের নেতৃত্ত্বে কলকাতার রাজপথে ঝড় তুলতে চলেছে বিজেপি শিক্ষক সেল

পশ্চিমবঙ্গের সমগ্র শিক্ষক সমাজ বর্তমান সরকারের শিক্ষার পরিকাঠামো ও বেতন বঞ্চনার বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফুঁসছে। শিক্ষার হাল ফেরাতে ও শিক্ষকদের বেতন বঞ্চনার অবসান ঘটাতে সবসময় শিক্ষক সমাজের পাশে আছেন - এই বার্তা দিলেন পশ্চিমবঙ্গের প্রধান বিরোধী দল বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। দিলীপবাবুর নির্দেশে নতুন বছরের শুরুতেই পথে নামছে ভারতীয় জনতা

এখনো সময় আছে, সরকারি কর্মচারী ও শিক্ষকদের ন্যায্য প্রাপ্য মিটিয়ে দিন, অন্যথায় বৃহত্তর আন্দোলন: দিলীপ ঘোষ

দীর্ঘদিন ধরেই বকেয়া ডিএ ও কেন্দ্রীয়হারে বেতন না পেয়ে ক্ষোভের পরিমান আকাশ ছুঁয়েছে রাজ্যের সরকারি কর্মচারী ও শিক্ষকদের। দিকে দিকে বিভিন্ন সংগঠন বিভিন্নভাবে আন্দোলন করছে দলমত নির্বিশেষে। এমনকি, এই নিয়ে মুখ খুলে বদলি হতে হয়েছে শাসকদলের ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত একাধিক সরকারি কর্মচারী সংগঠনের নেতাকে। বিরোধীদের অবস্থাও তথৈবচ। আর এইসবের পরিপ্রেক্ষিতে বিজেপি

শিক্ষক আন্দোলনের বড় সাফল্য – শিক্ষকের ঐক্যের কাছে পিছু হটে অবশেষে অনুমোদিত এই ফান্ড – জানুন বিস্তারিত

যত দিন যাচ্ছে ততই যেন সুসংহত অথচ দৃঢ় প্রত্যয়ী পথে রাজ্য-রাজনীতিকে আন্দোলনের পথ দেখাচ্ছেন রাজ্যের শিক্ষকরা। দীর্ঘদিন ধরে বকেয়া বিপুল পরিমান ডিএ, পে কমিশনও নজিরবিহীনভাবে দীর্ঘসূত্রিতার রেকর্ড ভেঙে সাড়ে তিন বছরের মেয়াদের দিকে এগোচ্ছে। এদিকে, রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষকদের যোগ্যতা চার বছরের বাড়াতে বাধ্য করে কেন্দ্রের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ করিয়ে নিলেও দেখা

প্রাথমিক শিক্ষকদের পিআরটি স্কেলের দাবিতে এখনও পর্যন্ত নেওয়া পদক্ষেপ সমূহ – এরপরেও সরকার নিশ্চল!

দীর্ঘদিন ধরেই ক্ষোভ-বিক্ষোভ চলছিল - কিন্তু এবারে একেবারে মরিয়া হয়ে উঠেছেন রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষকরা। দলমত নির্বিশেষে শিক্ষকদের মধ্যে আওয়াজ উঠে গেছে - অনেক হয়েছে, এবার যেকোন মূল্যে পিআরটি স্কেল চাই। আর সেই লক্ষ্যকে সামনে রেখে কেন্দ্রীয়ভাবে আন্দোলন করে কলকাতার শহীদ মিনারের পাদদেশে গত ২৯ ও ৩০ শে অক্টোবর ঝড় তুলে

Top
error: Content is protected !!