এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "ভারতীয় জনতা পার্টি"

আজকের পরে বাংলায় বিজেপির বিধায়ক সংখ্যা কত দাঁড়াল? কে কে আছেন সেই তালিকায়? দেখে নিন একনজরে

২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে বাংলায় রেকর্ডকালীন ভালো ফল করে তিন-তিনজন বিধায়ক পায় ভারতীয় জনতা পার্টি। কিন্তু, তারপর থেকেই দ্রুত বদলাতে থাকে বাংলার রাজনৈতিক পটচিত্র - বামফ্রন্ট ও কংগ্রেসকে পিছনে ফেলে দ্রুত প্রধান বিরোধী হিসাবে উঠে আসে বিজেপি। মুকুল রায় তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেবার পরেই বিভিন্ন উপনির্বাচনে গেরুয়া শিবির বিশাল

লোকসভার লড়াই: বিষ্ণুপুর লোকসভা ও অন্তর্গত বিধানসভার সর্বশেষ জনমত সমীক্ষার ফলাফল

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে বাংলার ৪২ টি লোকসভা আসনের সাম্ভাব্য ফলাফল কি হতে পারে – প্রতিটা বিধানসভা ধরে ধরে আমরা আপনাদের সামনে তুলে আনার চেষ্টা করছি। এর আগে আমরা পর্যায়ক্রমে ৩ টি সমীক্ষা আপনাদের সামনে তুলে ধরি – লোকসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে এটি আমাদের চতুর্থ স্যাম্পল সার্ভে। এরপর প্রার্থী তালিকা

লোকসভার লড়াই: আলিপুরদুয়ার লোকসভা ও অন্তর্গত বিধানসভার সর্বশেষ জনমত সমীক্ষার ফলাফল

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে বাংলার ৪২ টি লোকসভা আসনের সাম্ভাব্য ফলাফল কি হতে পারে – প্রতিটা বিধানসভা ধরে ধরে আমরা আপনাদের সামনে তুলে আনার চেষ্টা করছি। এর আগে আমরা পর্যায়ক্রমে ৩ টি সমীক্ষা আপনাদের সামনে তুলে ধরি – লোকসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে এটি আমাদের চতুর্থ স্যাম্পল সার্ভে। এরপর প্রার্থী তালিকা

নরেন্দ্র মোদিকে হঠিয়ে প্রথম বাঙালি প্রধানমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি – কি বলছে ইন্ডিয়া টিভি-সিএনএক্সের সমীক্ষা

ভারতীয় জনতা পার্টি যখন দাবি করছে ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে ২০১৪ সালের থেকেও বেশি আসন জিতে কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রী হিসাবে পুনরায় শপথ গ্রহণ করবেন নরেন্দ্র মোদী - ঠিক তখনই রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের দাবি - ২০১৯ বিজেপি ফিনিশ। আর শুধু তাই নয় - একইসঙ্গে তাদের দাবি - রাজ্যে ৪২ টির মধ্যে

দিলীপ ঘোষ বিজেপির সভাপতি থাকলে আমাদের লাভ, আমরা চাই উনি আরও ২০ বছর থাকুন – জানিয়ে দিল তৃণমূল

রাজ্য রাজনীতিতে বর্তমানে দুই যুযুধান প্রতিপক্ষের নাম তৃণমূল কংগ্রেস ও ভারতীয় জনতা পার্টি। তৃণমূল বিজেপিকে কেন্দ্র থেকে ক্ষমতাচ্যুত করতে চায় - আবার উল্টোদিকে বিজেপি তৃণমূলকে রাজ্য থেকে ক্ষমতাচ্যুত করতে চায়। ফলে, স্বাভাবিকভাবেই দুই দলের চাপান উতোর থাকবে। কিন্তু তৃণমূল কংগ্রেসের হেভিওয়েট নেতা তথা রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক সবাইকে চমকে দিয়ে

আবার বিজেপি ভেঙে শক্তি বৃদ্ধি করল শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস

রাজ্য রাজনীতিতে যত দিন যাচ্ছে ততই দুই যুযুধান প্রতিপক্ষ তৃণমূল কংগ্রেস ও ভারতীয় জনতা পার্টি একে অপরের ঘর ভাঙার কৌশল নিচ্ছে। কিছুদিন আগেই শাসকদলের বিষ্ণুপুরের লোকসভা সাংসদ সৌমিত্র খাঁ তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও দলের বর্তমান অঘোষিত দুনম্বর নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়ে গেরুয়া শিবিরে যোগদান করেছেন। তারপরেই জল্পনা

বাংলা বিজয়ে মোদী-শাহের ভরসার মুখ হতে চলেছেন কি মুকুল রায়ই? নতুন পদক্ষেপে জল্পনা চরমে

মুকুল রায় তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করলেও বিজেপি নিজেদের ধারা মেনে দীর্ঘদিন মুকুলবাবুকে দলের একজন সাধারণ কর্মী করেই রেখেছিল। তৃণমূল কংগ্রেসের সেকেন্ড ইন কম্যান্ড দলে এলেও পদ মেলে নি - কেননা বিজেপির বক্তব্য ছিল পরিষ্কার। ভারতীয় জনতা পার্টি একটি সর্বভারতীয় দল - এখানে এলেই 'ততকাল' পদ মেলে না -

মমতা ব্যানার্জীকে কিভাবে ছোট করা যায় এবং অপদস্ত করা যায় এটাই ওদের একমাত্র এজেন্ডা : শুভেন্দু অধিকারী

কার্তিক গুহ, ঝাড়গ্রাম:- নেতাই-কাণ্ডের অষ্টম বর্ষপূর্তি আজ, সোমবার। গ্রামের শহিদবেদি প্রাঙ্গণে স্মরণ অনুষ্ঠানের মূল বক্তা রাজ্যের পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। নেতাই শহীদ বেদীতে মাল্যদান করেন শুভেন্দু অধিকারী, চূড়ামণি মাহত, দুলাল মুর্মু, মাধবী বিশ্বাস, উত্তরা সিং হাজরা, সুকুমার হাঁসদা ,অজিত মাইতি সহ তৃণমূল কংগ্রেসের একাধিক নেতা। প্রসঙ্গত, এই নেতাই-কাণ্ডকে হাতিয়ার করেই

পিআরটি স্কেল ও অন্যান্য দাবিতে দিলীপ ঘোষের নেতৃত্ত্বে কলকাতার রাজপথে ঝড় তুলতে চলেছে বিজেপি শিক্ষক সেল

পশ্চিমবঙ্গের সমগ্র শিক্ষক সমাজ বর্তমান সরকারের শিক্ষার পরিকাঠামো ও বেতন বঞ্চনার বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফুঁসছে। শিক্ষার হাল ফেরাতে ও শিক্ষকদের বেতন বঞ্চনার অবসান ঘটাতে সবসময় শিক্ষক সমাজের পাশে আছেন - এই বার্তা দিলেন পশ্চিমবঙ্গের প্রধান বিরোধী দল বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। দিলীপবাবুর নির্দেশে নতুন বছরের শুরুতেই পথে নামছে ভারতীয় জনতা

গো-বলয়ই কি গুলিয়ে দিল লোকসভার ভোট অঙ্ক? সাধারণ নির্বাচন ঘিরে অনিশ্চয়তা খোদ গেরুয়া শিবিরের অন্দরেই

১৯'এর লোকসভা ভোটের প্রস্তুতি শুরু হয়েছে কয়েক মাস আগেই। কিন্তু ভোটের দিনক্ষণ নিয়ে এখনো কোনো আলোচনায় বসেনি নির্বাচন কমিশন। আগামী বছরের গোড়ার দিকেই ভোট হওয়ার প্রবল সম্ভাবনার কথা আগেই জানা গিয়েছে। আগামী বছরের ১ ফেব্রুয়ারি ভোটের নির্ঘন্ট ঘোষণা করার কথা রয়েছে নির্বাচন কমিশনের। সেইমতোই নির্দেশ পেয়ে রাজ্যে রাজ্যে প্রস্তুতি নিচ্ছিল বিজেপি

Top
error: Content is protected !!