এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "ব্রিগেড সমাবেশ"

নরেন্দ্র মোদি-‌অমিত শাহর মাথা ঘুরিয়ে দিয়েছেন মমতা ব্যানার্জি! বড় ‘সার্টিফিকেট’ বিজেপির জোটসঙ্গীর

কেন্দ্র থেকে 'জনবিরোধী' বিজেপি সরকারকে সরাতে এক ছাতার তলায় আসার প্রক্রিয়া শুরু করেছে সমস্ত বিরোধী দলগুলো। আর তারই প্রাথমিক পদক্ষেপ হিসাবে কলকাতার ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে এক বিশাল জনসমাবেশের আয়োজন করেন তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যে সমাবেশে যোগ দেন দেশের ২৩ টি আঞ্চলিক ও জাতীয় দলের ২৬ জন শীর্ষনেতারা। যদিও,

১৯ তারিখ তো পেরিয়ে গেল! আদৌ কি পড়বে তৃণমূলের উইকেট? কি বলছে গেরুয়া শিবির?

রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস আগেই ঘোষণা করেছিল যে ২০১৯ সালের জানুয়ারী মাস পড়লেই কলকাতার ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে এক বিশাল জনসমাবেশ করবে। যেখানে, সারা ভারতের সমস্ত বিজেপি বিরোধী শক্তি এক জায়গায় হয়ে আওয়াজ তুলবে - দুহাজার উনিশ, বিজেপি ফিনিশ! আর এরই পরিপ্রেক্ষিতে কিছুদিন আগে জল্পনা রটে, একদিকে যখন ১৯ শে জানুয়ারী

ফিরহাদ হাকিমের সভায় ডাক পেলেন না বর্তমান সাংসদ ও প্রাক্তন মন্ত্রী – তীব্র অসন্তোষ শাসকদলের অন্দরেই

সরকারের উদ্যোগে বিভিন্ন জেলার প্রশাসনিক বৈঠকে বিরোধীদলের জনপ্রতিনিধিরা ডাক পান না বলে রাজ্যের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ই তোপ দাগতে যায় বিরোধীদের। কিন্তু এবারে আর বিরোধীদের কোনো জনপ্রতিনিধি নন, খোদ শাসকদলের দলীয় সভায় আমন্ত্রণই পেলেন না বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ অর্পিতা ঘোষ এবং দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার প্রাক্তন তৃণমূল সভাপতি তথা বালুরঘাটের প্রাক্তন

শুভেন্দু অধিকারীর হাত ধরে আরও এক হেভিওয়েট প্রাক্তন বাম বিধায়ক শাসকদলের পথে

নতুন বছরের শুরুতেই মজবুত হতে চলছে মালদহের তৃণমূল কংগ্রেস সংগঠন। বহুদিনের জল্পনাকে সত্যি করে প্রাক্তন বাম বিধায়ক রহিম বক্সি আগামীকাল তৃণমূলে যোগ দিতে চলেছেন। ১৯'এর ব্রিগেড সমাবেশকে নজরে রেখেই জেলাস্তরের দলীয় কাজকর্ম খতিয়ে দেখতে দুদিনের সফরে আজ মালদহে আসতে চলেছেন জেলা তৃণমূল পর্যবেক্ষক তথা মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। আজ, পুরাতন মালদহে

গো-বলয়ের জয় দিয়েছে নতুন অক্সিজেন, বঙ্গ রাজনীতিতে ঘুরে দাঁড়াতে এবার বড়সড় পদক্ষেপ হাত শিবিরের

২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে নরেন্দ্র মোদীর কাছে পরাভূত হওয়ার পর গোটা দেশের রাজনীতিতেই যেন হঠাৎ করে কংগ্রেস ক্ষয়িষ্ণু শক্তিতে পরিণত হয়েছিল। এই রাজ্যও তার ব্যতিক্রম ছিল না - ২০১৬ বিধানসভা নির্বাচনে বামফ্রন্টের সঙ্গে জোট করে বাংলায় প্রধান বিরোধী দলের তকমা জুটলেও - একের পর এক দলীয় নেতা-বিধায়ক হারিয়ে ক্রমশ 'সাইনবোর্ড'

১৯ শে ব্রিগেডে জেলা থেকে লক্ষ লক্ষ জনসমাগম করতে বিশেষ মনিটরিং কমিটি ঘিরে তীব্র অসন্তোষ শাসক দলের অন্দরেই

শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের উনিশের ব্রিগেড অভিযানকে সামনে রেখে মুর্শিদাবাদ জেলা থেকে দলের চেয়ারম্যান মহম্মদ সোহারাবের এর নেতৃত্বে একটি মনিটরিং কমিটি গঠন করা হয়েছে। সেই কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে মোহম্মদ আলি ও সাগির হোসেনকে।এছাড়াও এই কমিটিতে আরো দুজন মুখপাত্র নিয়োগ করা হয়েছে, বলে জানান জেলা সভাপতি সুব্রত সাহা। কিন্তু, এই

মুর্শিদাবাদে শাসকদলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব চরমে – জেলা কার্যালয়েই জেলা সহ-সভাপতিকে বাঁশ দিয়ে পিটিয়ে গ্রেপ্তার কাউন্সিলার

দলে গোষ্ঠী কোন্দল কমাতে এবং সঠিক কর্মীদের গুরুত্ব দিতে যখন বিভিন্ন জেলার নেতাদের কড়া বার্তা দিচ্ছেন তৃণমূল সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, ঠিক তখনই সেই বিভিন্ন জেলার শাসকদলের বিভিন্ন সক্রিয় নেতারাই দলীয় গোষ্ঠী কোন্দলের শিকারে আহত হচ্ছেন। এবার বহরমপুরে তৃণমূলের জেলা কার্যালয়েই আক্রান্ত হলেন মুর্শিদাবাদ জেলা তৃণমূলের সহ সভাপতি অশোক

পুলিশ প্রশাসনের উপর নির্ভরশীল হয়ে নয় – পার্টির কাজ পার্টিকেই করতে হবে: কর্মীসভায় বিস্ফোরক শুভেন্দু অধিকারী

লোকসভা ভোটকে টার্গেট করেই জেলায় জেলায় ব্লকে ব্লকে দলীয় সংগঠনকে মজবুত করার কাজে নেমে পড়েছে শাসকদল। বিরোধীদের রোখার পথ বাতলে দেওয়ার পাশাপাশি প্রয়োজনে তুলে ধরা হচ্ছে সংগঠনের আভ্যন্তরীন দোষত্রুটিগুলোকে। দলীয় সাংগঠনিক গলদ উপসমে রাজ্য নেতৃত্বরা কড়া হাতে লাগাম ধরে রেখেছেন। কীভাবে, কোন কোন কাজ করলে তৃনমূল সরকারের ভাবমূর্তি আরো স্বচ্ছভাবে রাজ্যবাসীর

Top
error: Content is protected !!