এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "বিধানসভা নির্বাচন"

বড় ধাক্কা কংগ্রেসের! একযোগে ১০ বিধায়কের যোগ বিজেপিতে

বাংলায় এবার লোকসভা নির্বাচনের আগে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস দাবি করেছিল - ৪২ এ ৪২, একইসঙ্গে তাদের দাবি ছিল - প্রধানমন্ত্রীর চেয়ার থেকে নরেন্দ্র মোদিকে সরিয়ে দেশের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু গত ২৩ শে মে ফলাফল বেরোলে দেখা যায় সেসব কিছুই হয় নি, উল্টে একাই ৩০৩ টি আসন

গেরুয়া ঝড় থামাতে ভরসা সেই অনুব্রত মন্ডলই, আবার বিজেপিতে ভাঙন ধরিয়ে স্বস্তি দিলেন নেত্রীকে

লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের ভরাডুবি এবং বিজেপির উত্থান ঘটার পরেই রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় বিজেপি তাদের শক্তি বৃদ্ধি করতে শুরু করেছে। একদা বীরভূম জেলা তৃণমূলের শক্তঘাঁটি বলে পরিচিত হলেও এবং ভোটের ফলাফল প্রকাশে সেই জেলার দুটি লোকসভা আসনে তৃণমূল জিতলেও, বিভিন্ন জায়গায় শাসকদলের পরাজয় বা পিছিয়ে থাকা চোখে পড়ার মত। যা পরবর্তী

পুলিশ কর্মীদের জন্য সুখবর, বড়সড় নির্দেশিকা জারি নবান্ন থেকে – জেনে নিন বিস্তারিত

এবারের লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের খারাপ ফলাফল হওয়ার পেছনে সরকারি কর্মীদের সমর্থন যে অনেকাংশেই কম ছিল, তা বুঝতে বাকি নেই কারোরই। কেননা দীর্ঘদিন ধরেই মহার্ঘ ভাতা না দেওয়ার ফলে রাজ্যের শাসকদলের বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারীদের মনে তীব্র ক্ষোভ তৈরি হয়েছিল। আর সরকারি কর্মীদের সেই ক্ষোভ প্রশমিত না হলে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচন যে

মুকুল-শঙ্কুর হাত ধরে এবার খোদ কলকাতার বুকে তৃণমূলের যুব সংগঠনে বড়সড় ভাঙন ধরালো বিজেপি

লোকসভা নির্বাচনে বাংলা থেকে বিজেপি ১৮ টি আসন জেতার পরেই, রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে শাসকদল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদানের হিড়িক লেগেছে। রাজনৈতিক গুরু মুকুল রায় যখন তৃণমূলের মাদার সংগঠনকে ভেঙে ছিন্নভিন্ন করে দিচ্ছেন, তখন প্রিয়তম শিষ্য শঙ্কুদেব পণ্ডা একই দায়িত্ব নিয়ে নিয়েছেন তৃণমূলের ছাত্র ও যুব সংগঠনে থাবা বসাতে। এতদিন, শঙ্কুদেব পণ্ডার

আজকের পরে বাংলায় বিজেপির বিধায়ক সংখ্যা কত দাঁড়াল? কে কে আছেন সেই তালিকায়? দেখে নিন একনজরে

২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে বাংলায় রেকর্ডকালীন ভালো ফল করে তিন-তিনজন বিধায়ক পায় ভারতীয় জনতা পার্টি। কিন্তু, তারপর থেকেই দ্রুত বদলাতে থাকে বাংলার রাজনৈতিক পটচিত্র - বামফ্রন্ট ও কংগ্রেসকে পিছনে ফেলে দ্রুত প্রধান বিরোধী হিসাবে উঠে আসে বিজেপি। মুকুল রায় তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেবার পরেই বিভিন্ন উপনির্বাচনে গেরুয়া শিবির বিশাল

বিজেপির জয় নিশ্চিত, বহু আসনে তৃণমূল তৃতীয়! সুনীল দেওধরের গোপন রিপোর্টে খুশির হাওয়া গেরুয়া শিবিরে

এবারের লোকসভা নির্বাচনে দিল্লিতে পুনরায় ক্ষমতার ফেরার পাশাপাশি বাংলায় দুর্দান্ত ফলাফল করার ব্যাপারে বেশ আত্মবিশ্বাসী গেরুয়া শিবির। নির্বাচনের বহু দিন আগে থেকেই বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ দাবি করে আসছিলেন, বাংলা থেকে এবারে নাকি গেরুয়া শিবির কমপক্ষে ২২-২৩ টি আসন জিততে চলেছে। কিন্তু, বাংলায় বিজেপির সংগঠন এখনও সেভাবে পোক্ত হয়

মুর্শিদাবাদে অধীর-ম্যাজিক অব্যাহত, এবার তাঁর হাত ধরে কংগ্রেসে যোগ দিলেন প্রাক্তন হেভিওয়েট বিধায়ক

মুর্শিদাবাদ জেলা ও অধীর রঞ্জন চৌধুরী যেন একে অপরের সমার্থক হয়ে গিয়েছিল। নিজের 'গরীবের রবিনহুড' ভাবমূর্তি নিয়ে মুর্শিদাবাদ জেলাকে কার্যত 'কংগ্রেসের-গড়' করে ফেলেছিলেন তিনি। কিন্তু বিগত বিধানসভা নির্বাচনে তিনি বামফ্রন্টের সঙ্গে জোট করে তৃণমূল কংগ্রেসকে হারানোর পরিকল্পনা করতেই যেন - তাঁকে রাজনৈতিকভাবে শেষ করে দেওয়ায় মূল লক্ষ্য হয়ে দাঁড়ায় শাসকদলের। মুর্শিদাবাদ

পিসি-ভাইপোর ‘চক্রান্তেই’ কি টুকরো টুকরো হয়ে যাবে ‘বাঙালি প্রধানমন্ত্রীর’ স্বপ্ন?

প্রিয় বন্ধু বাংলা এক্সক্লুসিভ - আর মাস দুয়েকের মধ্যেই শুরু হয়ে যাবে দেশের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের লক্ষ্যে সাধারণ লোকসভা নির্বাচন। আর সেই নির্বাচনে বিজেপিকে কেন্দ্র থেকে হঠাতে দীর্ঘদিনের বৈরিতা ভুলে এক ছাতার তলায় আসার প্রক্রিয়া শুরু করেছে কংগ্রেস সহ বিভিন্ন আঞ্চলিক দলগুলো। আর তা দেখে, গেরুয়া শিবিরের একটাই প্রশ্ন -

ব্রিগেডে হাসিমুখে পাশে বসে থাকলেও, এবার কি বড় ধাক্কা দিতে চলেছেন দিদির এই বিশেষ বন্ধু?

২১ শে জুলাইয়ের মঞ্চ থেকেই তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বোচ্চ নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেছিলেন ২০১৯ এর ১৯ শে জানুয়ারী ব্রিগেডে বিজেপি বিরোধী দেশের সকল রাজনৈতিক দলকে নিয়ে এক বৃহত্তর সমাবেশ করবেন। আর সেই লক্ষ্যে দুর্গাপুজো শেষ হতেই কার্যত নাওয়া-খাওয়া ভুলে গেছেন শাসকদলের সর্বস্তরের নেতা-কর্মীরা। আর সেই অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে - ব্রিগেড

ব্রিগেডের আগেই বড় চমক, তৃণমূলে যোগ দিলেন হেভিওয়েট বাম বিধায়ক

এই মুহূর্তে তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী-সমর্থকদের নয়নের মনি শুভেন্দু অধিকারী কিছুদিন আগেই হুঙ্কার ছেড়েছিলেন মুর্শিদাবাদে ১০ দিনের মধ্যে বড় উইকেট ফেলবেন। আর এবার নিজের দাবির স্বপক্ষে বাস্তবিকই তা করে দেখালেন তিনি। ব্রিগেডের প্রস্তুতি সভায় মুর্শিদাবাদে গিয়ে জলঙ্গির সিপিএম বিধায়ক আব্দুল রজ্জাককে তৃণমূলে নিলেন তিনি। প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের নির্বাচনে গোটা বাংলা জুড়ে ঘাসফুলের

Top
error: Content is protected !!