এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "বিজেপি সরকার"

তৃণমূল নেত্রীর চিন্তা বাড়িয়ে এবার প্রধানমন্ত্রীত্বের দৌড়ে ঢুকে পড়লেন এই হেভিওয়েট নেতাও

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে কেন্দ্র থেকে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকারকে হঠাতে মরিয়া বিরোধীরা। আর সেই লক্ষ্যে গত ১৯ শে জানুয়ারি কলকাতার ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে ২৩ দলের ২৬ জন শীর্ষনেতা উপস্থিত থেকে এক বিশাল জনসমাবেশে অংশগ্রহণ করেন। কিন্তু, সেই জোটকে তীব্র কটাক্ষ করে গেরুয়া শিবির প্রশ্ন তোলে - এই জোটের নেতা

নরেন্দ্র মোদি-‌অমিত শাহর মাথা ঘুরিয়ে দিয়েছেন মমতা ব্যানার্জি! বড় ‘সার্টিফিকেট’ বিজেপির জোটসঙ্গীর

কেন্দ্র থেকে 'জনবিরোধী' বিজেপি সরকারকে সরাতে এক ছাতার তলায় আসার প্রক্রিয়া শুরু করেছে সমস্ত বিরোধী দলগুলো। আর তারই প্রাথমিক পদক্ষেপ হিসাবে কলকাতার ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে এক বিশাল জনসমাবেশের আয়োজন করেন তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যে সমাবেশে যোগ দেন দেশের ২৩ টি আঞ্চলিক ও জাতীয় দলের ২৬ জন শীর্ষনেতারা। যদিও,

লোকসভার আগে প্রধানমন্ত্রীকে বড় ধাক্কা দিয়ে ৪৩ বছরের পুরোনো ‘বন্ধুর’ ‘চায়েওয়ালা’ ভাবমূর্তি নিয়ে বিস্ফোরক দাবি

২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের আগে থেকেই নিজেকে 'চায়েওয়ালা' হিসাবে দেশবাসীর সামনে তুলে ধরেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী স্বয়ং। কংগ্রেসকে দেশ থেকে মুছে দিতে 'পরিবারতন্ত্রের' বিরুদ্ধে এক 'চায়েওয়ালার' লড়াইকে সবার সামনে এনেছে গেরুয়া শিবির। আর আমজনতার কাছে তা যে অত্যন্ত গ্রহণযোগ্য হয়েছে - তা বিজেপির আকাশচুম্বী সাফল্যেই প্রমাণিত। কিন্তু, ঠিক তার পাঁচ বছর

বাংলাই পথ দেখায় – মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্ব কার্যত মেনে নিলেন রাহুল গান্ধী

কেন্দ্র থেকে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকারকে উৎখাত করে দেশে নতুন সরকার প্রতিষ্ঠার স্বপ্নকে সামনে রেখে আজ কলকাতার ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের মহা জনসমাবেশ। রাজ্যের কংগ্রেস নেতারা যতই তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে তোপ দাগুন বা তৃণমূল রাজ্যের গণতন্ত্রকে ধ্বংস করছেন বলে অভিযোগ জানান - কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি রাহুল

আজ তৃণমূলের ঐতিহাসিক ব্রিগেড সমাবেশ – মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্ব মেনে নেন কিনা বিরোধী নেতারা নজর সেদিকেই

২০১৪ সালে দেশজুড়ে প্রবল মোদী হাওয়ার মধ্যেও বাংলায় প্রবলভাবে ছিল দিদি-হাওয়া। আর সেই হাওয়াতে ভর করেই রাজ্য থেকে নিজেদের সর্বকালীন রেকর্ড সংখ্যক ৩৪ টি আসন দখলে এনেছিল তৃণমূল কংগ্রেস। লোকসভাতে যদিও বিজেপির নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার সামনে কাজে লাগে নি সেই সংখ্যা - কিন্তু দেশের চতুর্থ বৃহত্তম দল হয়ে তাক লাগিয়ে দিয়েছিল

কবে হতে পারে লোকসভা নির্বাচন? মোট কত দফায় ভোট? স্পষ্ট করে দিল নির্বাচন কমিশন

একদিকে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকারের অভিমত তারা দেশের সাধারণ মানুষের জন্য যা কাজ করেছে তাতে নরেন্দ্র মোদির টানা দ্বিতীয়বারের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কুর্সিতে বসা শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা। অন্যদিকে রাহুল গান্ধীর নেতৃত্বাধীন জাতীয় কংগ্রেস মনে করছে মানুষ মোটেই বিজেপির দেখানো সপ্নমত 'আচ্ছে দিন' পায় নি, আর তাই রাজনীতির চাকা ঘুরবে -

১৯শে ব্রিগেডে’র চমক – দেশের ১৪/১৫ জন ভাবী প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও আসছেন কৈলাশ বিজয়বর্গীয় ও মুকুল রায়!!

রাত পোহালেই ১৯ শে জানুয়ারী কলকাতার ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে মহাসমাবেশ করতে চলেছে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। সেই সমাবেশে রেকর্ড জমায়েতের পাশাপাশি - কেন্দ্র থেকে বিজেপি সরকারকে হঠাতে মরিয়া একঝাঁক আঞ্চলিক ও জাতীয় দলের শীর্ষনেতারাও হাজির থাকতে চলেছেন। তৃণমূল শিবিরের দাবি, এই সমাবেশ থেকেই 'প্ৰথম বাঙালি প্রধানমন্ত্রী' হিসাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামে

তিন ধাক্কায় বেসামাল গেরুয়া শিবির কি ১৯-এর ‘মহাচমক’ থেকে পিছু হঠছে? জল্পনা চরমে

আগামী ১৯ শে জানুয়ারী কলকাতার ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে মহাসমাবেশ করতে চলেছে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। সেই সমাবেশে রেকর্ড জমায়েতের পাশাপাশি - কেন্দ্র থেকে বিজেপি সরকারকে হঠাতে মরিয়া একঝাঁক আঞ্চলিক ও জাতীয় দলের শীর্ষনেতারাও হাজির থাকতে চলেছেন। তৃণমূল শিবিরের দাবি, এই সমাবেশ থেকেই 'প্ৰথম বাঙালি প্রধানমন্ত্রী' হিসাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামে সিলমোহর

সর্বকালের সব রেকর্ড ভেঙে দেওয়া ব্রিগেডের সফল রূপায়নে তৃণমূল নেত্রীর প্রধান ভরসা হতে চলেছেন যুবরাজই

হাতে আর মাত্র কয়েকটা দিন। আর তারপরই দেশের সমস্ত বিরোধী নেতাকে এক মঞ্চে আনতে চলেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রসঙ্গত আগামী ১৯ শে জানুয়ারি তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ডাকে কলকাতার ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে ঐতিহাসিক জনসভার আয়োজন করা হয়েছে। যে জনসভার মূল উদ্দেশ্যই হল, আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের আগে

১৯ শে তৃণমূলের ব্রিগেডের দিনেই দিল্লিতে তৃণমূলের ঘুম উড়িয়ে দিতে বিশেষ পরিকল্পনায় মুকুল রায়

আগামী ১৯ শে জানুয়ারী ব্রিগেডে দেশের বিজেপি বিরোধী সমস্ত দলগুলিকে এক জায়গায় এনে - কেন্দ্র থেকে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকারের 'বিদায় ঘন্টা' বাজানোর ডাক, দলের ২১ শে জুলাইয়ের শহীদ দিবসের মঞ্চ থেকেই দিয়েছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বোচ্চ নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তাই, সেই ১৯ শে জানুয়ারিকে সফল করতে চূড়ান্ত প্রস্তুতি

Top
error: Content is protected !!