এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "পার্থ চট্টোপাধ্যায়"

NIOS প্রশ্নফাঁস কান্ডে মর্মান্তিক পরিণতি, প্রাথমিক শিক্ষক তথা পরীক্ষার্থীর মৃত্যু

রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষকদের এক বৃহদংশের অভিযোগ, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ওপেন স্কুলিং বা NIOS কর্তৃপক্ষের অমানবিক ও অনৈতিক সিদ্ধান্তে, বর্তমানে রাজ্যের ১ লক্ষ ৬৯ হাজার প্রাথমিক, এস.এস.কে, এম.এস.কে ও বেসরকারী চাকুরীরত শিক্ষক-শিক্ষিকাদের জীবন-জীবিকা আজ বিপন্ন। আর তাই, প্রশ্নফাঁস কাণ্ডের জেরে কর্তৃপক্ষের দুই 'অমানবিক' সিদ্ধান্তে চাকরি খোয়ানোর আতঙ্কে ভুগছেন রাজ্যের হাজার হাজার

সরকারি কর্মচারীদের বিরুদ্ধে ‘হিংস্র ও পাশবিক’ আচরণের বিস্ফোরক অভিযোগ উঠল মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিরোধী নেত্রী থাকার সময় থেকেই দাবি করে এসেছেন তিনি রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের উন্নয়নে অত্যন্ত আন্তরিক। তিনি বারেবারেই বিভিন্ন জনসভায় দাবি করেছেন, বাম আমলের বিপুল পরিমান ঋণের বোঝা মাথায় নিয়েও তিনি রাজ্যের উন্নয়ন করে চলেছেন এবং একই সাথে যখন যেটুকু সম্ভব হয়েছে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের প্রাপ্য মেটানোর

শিক্ষাক্ষেত্রে ‘ইন্টার্ন’ নিয়োগ নিয়ে রাজ্যপাল থেকে শিক্ষামন্ত্রী, WBPTTA-এর জোড়া বড়সড় উদ্যোগ

গত ১৪ ই জানুয়ারী রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন যে রাজ্যের শিক্ষাক্ষেত্রে শিক্ষকদের অপ্রতুল অবস্থা সামাল দিতে এবং রাজ্যের শিক্ষিত বেকার যুবক-যুবতীদের কথা ভেবে আগামীদিনে রাজ্যের প্রাথমিক থেকে উচ্চমাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত ইন্টার্ন নিয়োগ করা হবে। আর, রাজ্যের প্রাথমিক স্কুলগুলিতে ইন্টার্নদের মাসিক ২,০০০ টাকা এবং উচ্চ-প্রাথমিকের ক্ষেত্রে ২,৫০০ টাকা করে ইন্টার্নশিপ দেওয়া

১৯শে ব্রিগেডে’র চমক – দেশের ১৪/১৫ জন ভাবী প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও আসছেন কৈলাশ বিজয়বর্গীয় ও মুকুল রায়!!

রাত পোহালেই ১৯ শে জানুয়ারী কলকাতার ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে মহাসমাবেশ করতে চলেছে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। সেই সমাবেশে রেকর্ড জমায়েতের পাশাপাশি - কেন্দ্র থেকে বিজেপি সরকারকে হঠাতে মরিয়া একঝাঁক আঞ্চলিক ও জাতীয় দলের শীর্ষনেতারাও হাজির থাকতে চলেছেন। তৃণমূল শিবিরের দাবি, এই সমাবেশ থেকেই 'প্ৰথম বাঙালি প্রধানমন্ত্রী' হিসাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামে

তৃণমূল কংগ্রেস থেকে বহিস্কৃত হয়েই বড়সড় ‘অফার’ পেলেন অনুপম হাজরা

তৃণমূল কংগ্রেসের বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁ রীতিমত বিস্ফোরক অভিযোগ তুলে দল ছাড়ার পরেই তৃণমূল কংগ্রেস মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানিয়ে দেন যে সেদিন সকালেই নাকি সৌমিত্রবাবুকে দল থেকে বহিস্কার করা হয়েছে। দলীয় সাংসদকে দল থেকে বহিস্কার করা হল - অথচ তা নিয়ে কোনো প্রেস-মিট বা প্রেস-বিজ্ঞপ্তি হল না! এই নিয়ে যখন

শুধুমাত্র তৃণমূল ভাঙাই নয়, আরও বড় ‘চমক’ দিতে চলেছেন মুকুল রায়? জল্পনা চরমে

কিছুদিন আগেই মুকুল রায়ের হাত ধরে অভিনেত্রী মৌসুমী চট্টোপাধ্যায় ও বিষ্ণুপুরের তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ সৌমিত্র খাঁ বিজেপিতে যোগদান করে। আর এর পরেই সৌমিত্রবাবুর পাশাপাশি বোলপুরের সাংসদ অনুপম হাজরাকেও দলবিরোধী কাজের তকমা দিয়ে দল থেকে বহিস্কৃত করেন তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। ফলে, জল্পনা ছড়ায় সৌমিত্রবাবুর মত অনুপমবাবুও নাকি এবার বিজেপিতে যোগদান

‘হরিদাস ভাইপোকে’ দিল্লিতে কে কত টাকা নিয়েছে তার ‘লঙ্কাকান্ড’ সুপ্রিম কোর্টে দেখাতে চান এবার সৌমিত্র খাঁ

তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বোচ্চ নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও দলের বর্তমানে অঘোষিত দুনম্বর নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে একরাশ ক্ষোভ উগরে দিয়ে কিছুদিন আগে তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করেন বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। স্বাভাবিকভাবেই এরপর তৃণমূল কংগ্রেস মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় তাঁকে দল থেকে বহিস্কার করেন। কিন্তু, সৌমিত্রবাবুর বিরুদ্ধে সংবাদমাধ্যমের সামনে সবথেকে বেশি আক্রমণাত্মক

দল থেকে বহিস্কৃত হয়ে প্রকাশ্যেই তৃণমূল নেত্রী ও ‘কাকুকে’ বার্তা দিলেন অনুপম হাজরা – ঝড় রাজ্য-রাজনীতিতে

তৃণমূল কংগ্রেসের বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁ রীতিমত বিস্ফোরক অভিযোগ তুলে দল ছাড়ার পরেই তৃণমূল কংগ্রেস মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানিয়ে দেন যে সেদিন সকালেই নাকি সৌমিত্রবাবুকে দল থেকে বহিস্কার করা হয়েছে। দলীয় সাংসদকে দল থেকে বহিস্কার করা হল - অথচ তা নিয়ে কোনো প্রেস-মিট বা প্রেস-বিজ্ঞপ্তি হল না! এই নিয়ে যখন

বিজেপিতে যোগদান নিয়ে মুখ খুলে এবার চমকে দিলেন দীনেশ ত্রিবেদী

কিছুদিন আগেই তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বোচ্চ নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও দলের অঘোষিত দুনম্বর নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে একরাশ ক্ষোভ উগরে দিয়ে দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। সেদিনই সৌমিত্র খাঁয়ের পাশাপাশি তৃণমূল কংগ্রেস মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বোলপুরের সাংসদ অনুপম হাজরাকেও দল থেকে বহিষ্কারের কথা ঘোষণা করেন। এরপর থেকেই জল্পনা

১৯ শে তৃণমূলের ব্রিগেডের দিনেই দিল্লিতে তৃণমূলের ঘুম উড়িয়ে দিতে বিশেষ পরিকল্পনায় মুকুল রায়

আগামী ১৯ শে জানুয়ারী ব্রিগেডে দেশের বিজেপি বিরোধী সমস্ত দলগুলিকে এক জায়গায় এনে - কেন্দ্র থেকে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকারের 'বিদায় ঘন্টা' বাজানোর ডাক, দলের ২১ শে জুলাইয়ের শহীদ দিবসের মঞ্চ থেকেই দিয়েছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বোচ্চ নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তাই, সেই ১৯ শে জানুয়ারিকে সফল করতে চূড়ান্ত প্রস্তুতি

Top
error: Content is protected !!