এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "নরেন্দ্র মোদি"

বড় ধাক্কা কংগ্রেসের! একযোগে ১০ বিধায়কের যোগ বিজেপিতে

বাংলায় এবার লোকসভা নির্বাচনের আগে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস দাবি করেছিল - ৪২ এ ৪২, একইসঙ্গে তাদের দাবি ছিল - প্রধানমন্ত্রীর চেয়ার থেকে নরেন্দ্র মোদিকে সরিয়ে দেশের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু গত ২৩ শে মে ফলাফল বেরোলে দেখা যায় সেসব কিছুই হয় নি, উল্টে একাই ৩০৩ টি আসন

নরেন্দ্র মোদির কামাল! প্রধানমন্ত্রী জনধন যোজনায় পার ১ লক্ষ কোটি টাকা!

এবার বড়সড় সাফল্য পেল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির স্বপ্নের প্রকল্প প্রধানমন্ত্রী জনধন যোজনা। প্রধানমন্ত্রীর কুর্সিতে বসেই নরেন্দ্র মোদী ঘোষণা করেছিলেন দেশের সব মানুষের বিশেষ করে গরিব ও পিছিয়ে পড়া মানুষের নিজস্ব ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থাকাটা জরুরি। কেননা, এরফলে সরকার সমস্ত রকমের সরকারি সুবিধা ও সাবসিডি সরাসরি গরিব মানুষের অ্যাকাউন্টে পৌঁছে দিতে পারবে।

তৃণমূল নেত্রীর চিন্তা বাড়িয়ে এবার প্রধানমন্ত্রীত্বের দৌড়ে ঢুকে পড়লেন এই হেভিওয়েট নেতাও

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে কেন্দ্র থেকে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকারকে হঠাতে মরিয়া বিরোধীরা। আর সেই লক্ষ্যে গত ১৯ শে জানুয়ারি কলকাতার ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে ২৩ দলের ২৬ জন শীর্ষনেতা উপস্থিত থেকে এক বিশাল জনসমাবেশে অংশগ্রহণ করেন। কিন্তু, সেই জোটকে তীব্র কটাক্ষ করে গেরুয়া শিবির প্রশ্ন তোলে - এই জোটের নেতা

পিসি-ভাইপোর ‘চক্রান্তেই’ কি টুকরো টুকরো হয়ে যাবে ‘বাঙালি প্রধানমন্ত্রীর’ স্বপ্ন?

প্রিয় বন্ধু বাংলা এক্সক্লুসিভ - আর মাস দুয়েকের মধ্যেই শুরু হয়ে যাবে দেশের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের লক্ষ্যে সাধারণ লোকসভা নির্বাচন। আর সেই নির্বাচনে বিজেপিকে কেন্দ্র থেকে হঠাতে দীর্ঘদিনের বৈরিতা ভুলে এক ছাতার তলায় আসার প্রক্রিয়া শুরু করেছে কংগ্রেস সহ বিভিন্ন আঞ্চলিক দলগুলো। আর তা দেখে, গেরুয়া শিবিরের একটাই প্রশ্ন -

সাধারণ মধ্যবিত্ত ও কৃষকদের জন্য বড়সড় ‘উপহার’ ঘোষণার পথে প্রধানমন্ত্রী, খরচ হতে পারে ১ লক্ষ কোটি টাকা

২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী হিসাবে দেশের দায়িত্ব নেওয়ার পর নরেন্দ্র মোদির সামনে দুটি রাস্তা খোলা ছিল। এক, আগের সরকারগুলির দেখানো পথেই জনমোহিনী হয়ে নিজের জনপ্রিয়তা আরও বাড়িয়ে নেওয়া। আর দুই, দেশের অর্থনীতির কড়া সংস্কার করে ভারতের অর্থনীতিকে আরও মজবুত করা। দ্বিতীয় পথটি নিতে গেলে অবশ্যই আমজনতাকে খুশি করা যাবে না -

বাংলাই পথ দেখায় – মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্ব কার্যত মেনে নিলেন রাহুল গান্ধী

কেন্দ্র থেকে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকারকে উৎখাত করে দেশে নতুন সরকার প্রতিষ্ঠার স্বপ্নকে সামনে রেখে আজ কলকাতার ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের মহা জনসমাবেশ। রাজ্যের কংগ্রেস নেতারা যতই তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে তোপ দাগুন বা তৃণমূল রাজ্যের গণতন্ত্রকে ধ্বংস করছেন বলে অভিযোগ জানান - কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি রাহুল

আজ তৃণমূলের ঐতিহাসিক ব্রিগেড সমাবেশ – মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্ব মেনে নেন কিনা বিরোধী নেতারা নজর সেদিকেই

২০১৪ সালে দেশজুড়ে প্রবল মোদী হাওয়ার মধ্যেও বাংলায় প্রবলভাবে ছিল দিদি-হাওয়া। আর সেই হাওয়াতে ভর করেই রাজ্য থেকে নিজেদের সর্বকালীন রেকর্ড সংখ্যক ৩৪ টি আসন দখলে এনেছিল তৃণমূল কংগ্রেস। লোকসভাতে যদিও বিজেপির নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার সামনে কাজে লাগে নি সেই সংখ্যা - কিন্তু দেশের চতুর্থ বৃহত্তম দল হয়ে তাক লাগিয়ে দিয়েছিল

বেজে গেল লোকসভা ভোটের দামামা, রাজ্য পুলিশ নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্তের পথে জাতীয় নির্বাচন কমিশন

দেখতে দেখতে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন সরকার পাঁচ বছর পূর্ন করতে চলল। ফলে সময় এসেছে আবার দেশজুড়ে সাধারণ নির্বাচনের। ইতিমধ্যেই রাজ্যে ভোটার তালিকা সংশোধনের কাজ সম্পূর্ণ। অন্যদিকে, গতকালই নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে আগামী নির্বাচন ঘোষণা হতে পারে মার্চের প্রথম সপ্তাহে এবং ৬-৭ দফায় হতে পারে সেই নির্বাচন। আর এর পরিপ্রেক্ষিতে রাজ্য

কবে হতে পারে লোকসভা নির্বাচন? মোট কত দফায় ভোট? স্পষ্ট করে দিল নির্বাচন কমিশন

একদিকে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকারের অভিমত তারা দেশের সাধারণ মানুষের জন্য যা কাজ করেছে তাতে নরেন্দ্র মোদির টানা দ্বিতীয়বারের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কুর্সিতে বসা শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা। অন্যদিকে রাহুল গান্ধীর নেতৃত্বাধীন জাতীয় কংগ্রেস মনে করছে মানুষ মোটেই বিজেপির দেখানো সপ্নমত 'আচ্ছে দিন' পায় নি, আর তাই রাজনীতির চাকা ঘুরবে -

বিজেপির হয়ে আর টিকিট পাবেন না এই হেভিওয়েটরা? জল্পনা চরমে

সামনেই লোকসভা ভোট - আর সেখানে পুনরায় জয় লাভ করে দ্বিতীয়বারের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কুর্সিতে বসতে মরিয়া নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি। কিন্তু, এবারের কাজটা যে মোটেই সহজ নয় তা বিগত বেশ কিছু নির্বাচনের ফলাফলেই প্রমাণিত। প্রথমত, ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিজেপি মানুষকে 'আচ্ছে দিনের' স্বপ্ন ফেরি করেছিল - কিন্তু, ২০১৯-এ এসে মানুষ

Top
error: Content is protected !!