এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "নবান্ন"

রেজ্জাক-পুত্রের পর এবার আরেক হেভিওয়েট-পুত্রের ‘কাটমানি’ কাণ্ডে তীব্র অস্বস্তিতে তৃণমূল

বাংলায় বিজেপির তীব্র উত্থানের পর তৃণমূল কংগ্রেস নিজের ভুলত্রুটি নিয়ে আলোচনায় বসে সিদ্ধান্তে আসে স্থানীয় স্তরে নেতাদের দুর্নীতি - এই ভরাডুবির অন্যতম বড় কারণ। মুখ্যমন্ত্রীর একের পর এক প্রকল্প যা সাধারণ মানুষকে বড়সড় সুবিধা দিতে পারত, সেখানে তৃণমূল নেতারা মাঝখান থেকে 'কাটমানি' নেওয়ায়, সাধারণ মানুষ নাকি যথাযথ পরিষেবা পান নি।

পুলিশ কর্মীদের জন্য সুখবর, বড়সড় নির্দেশিকা জারি নবান্ন থেকে – জেনে নিন বিস্তারিত

এবারের লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের খারাপ ফলাফল হওয়ার পেছনে সরকারি কর্মীদের সমর্থন যে অনেকাংশেই কম ছিল, তা বুঝতে বাকি নেই কারোরই। কেননা দীর্ঘদিন ধরেই মহার্ঘ ভাতা না দেওয়ার ফলে রাজ্যের শাসকদলের বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারীদের মনে তীব্র ক্ষোভ তৈরি হয়েছিল। আর সরকারি কর্মীদের সেই ক্ষোভ প্রশমিত না হলে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচন যে

আবার বাড়তে চলেছে পশ্চিমবঙ্গের বিধায়কদের বেতন, ক্ষোভ সরকারি কর্মী ও শিক্ষকমহলে

রাজ্যে যখন বাম শাসন ছিল, তখন প্রধান বিরোধী নেত্রী হিসাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ডিএ নিয়ে সরকারি কর্মীদের আন্দোলনে গিয়ে বলেছিলেন, যে সরকার সরকারি কর্মীদের প্রাপ্য দিতে পারে না, তাদের অধিকার নেই এক মুহূর্তও ক্ষমতায় থাকার। রাজ্য সরকারি কর্মীরা ও শিক্ষকরা, এর পরে অনেক আশা নিয়ে দুহাত ভরে তাঁকে সমর্থন জানিয়েছিলেন ২০১১

বেজে গেল লোকসভা ভোটের দামামা, রাজ্য পুলিশ নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্তের পথে জাতীয় নির্বাচন কমিশন

দেখতে দেখতে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন সরকার পাঁচ বছর পূর্ন করতে চলল। ফলে সময় এসেছে আবার দেশজুড়ে সাধারণ নির্বাচনের। ইতিমধ্যেই রাজ্যে ভোটার তালিকা সংশোধনের কাজ সম্পূর্ণ। অন্যদিকে, গতকালই নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে আগামী নির্বাচন ঘোষণা হতে পারে মার্চের প্রথম সপ্তাহে এবং ৬-৭ দফায় হতে পারে সেই নির্বাচন। আর এর পরিপ্রেক্ষিতে রাজ্য

সাম্প্রদায়িকতা ও বিজেপি বিরোধী হয়ে হয়েও কেন্দ্র বিরোধী ধর্মঘট কেন ও কিভাবে ব্যর্থ করা হবে জানালেন পার্থ চ্যাটার্জি

দেশ থেকে বিজেপিকে উৎখাত করতে প্রায় উঠতে বসতেই গেরুয়া শিবিরের উদ্দেশ্যে এখন তোপ দাগেন রাজ্যের শাসক দল তৃণমূলের নেতারা। এবার বিজেপির বিরুদ্ধেই গর্জে উঠে আগামী ৮ এবং ৯ জানুয়ারি সারা দেশ জুড়ে বাম এবং দক্ষিণপন্থী ট্রেড ইউনিয়নের পক্ষ থেকে দু'দিনব্যাপী এক ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়েছে। কিন্তু বিজেপি বিরোধী সেই ধর্মঘট

পরিকাঠামোর অভাবে পাচারের সময় গরু বাজেয়াপ্ত করেও নাকাল পুলিশ, নবান্নের কাছে এল বিশেষ আবেদন

উপযুক্ত স্থানের অভাবে পাচারের সময় ধরা পড়া গবাদি পশু বাজেয়াপ্ত করা সত্ত্বেও সমস্যায় পড়তে হচ্ছে পুলিশকে। তাই এবার নবান্নে দরবার করল তাঁরা। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বাংলাদেশ লাগোয়া হওয়ায় এখানে প্রায়শই সীমান্তবর্তী এলাকায় চোরাকারবারিদের একটি চক্র কাজ করে। এর বিশেষ অঙ্গ হিসাবে বর্ডার দিয়ে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য পাচার হওয়াই ছিল

রাজ্যের ৭২ লক্ষ মানুষের জন্য নববর্ষের ‘জোড়া-উপহার’ ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর, জেনে নিন বিস্তারিত

আর কয়েকঘন্টা বাদেই পুরোনো বছরকে বিদায় দিয়ে নতুন বছরের সূচনা হতে চলেছে। আর এই প্রথম নজিরবিহীনভাবে রাজ্য সরকারের তরফে বর্ষবরণের উদ্যোগ নেওয়া হল। নবান্ন থেকে সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেন, ঠিক রাত ১২ টায় বর্ষবরণের সাইরেন বাজাবে রাজ্য সরকার। তবে, শুধু বর্ষবরণই নয় - ঠিক তার আগে নববর্ষের উপহার

প্রথম শ্রেণী থেকে গ্র্যাজুয়েশন পর্যন্ত – শুধু হুগলি জেলাতেই ৫৭ হাজার সংখ্যালঘু পড়ুয়াকে ১১ কোটির স্কলারশিপ রাজ্য সরকারের

হুগলি জেলার প্রথম থেকে গ্র্যাজুয়েশন পর্যন্ত সংখ্যালঘু পড়ুয়াদের স্কলারশিপ পাওয়া নিয়ে বড়সড় তথ্য উঠে এল প্রশাসনিক রিপোর্টে। ২০১৭-১৮ আর্থিক বর্ষে সংশ্লিষ্ট জেলায় প্রায় ৫৭ হাজার সংখ্যালঘু পড়ুয়াকে স্কলারশিপ হিসাবে প্রায় ১১ কোটি টাকা দিচ্ছে রাজ্য সরকার। এর মধ্যে প্রায় ৯ কোটি টাকা ইতিমধ্যেই পড়ুয়াদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পাঠানো হয়েছে বলে সূত্রের

রাজ্য-রাজনীতিতে আবার প্রবল রাজনৈতিক অসহিষ্ণুতা! মুখ্যমন্ত্রীকে ‘কুবাক্যে’ আক্রমন হেভিওয়েট গেরুয়া নেতার

বঙ্গ রাজনীতিতে বিভিন্ন সময় বক্তব্য রাখতে গিয়ে শালীনতার মাত্রা ছাড়িয়েছেন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা-নেত্রীরা। আর বিরোধী নেত্রী থাকার সময়, এই অশ্লীল মন্তব্য ও কুবাক্য সব থেকে বেশি সহ্য করতে হয়েছে বঙ্গের বর্তমান শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস এবং তার সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। অতীতে বিরোধী নেত্রী থাকার সময় এই মমতা

সুপ্রিম কোর্টে ক্যাভিয়েট থেকে নবান্নের শীর্ষকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক – রথ নিয়ে একের পর এক সদর্থক পদক্ষেপ গেরুয়া শিবিরের

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের আগে এই বাংলাকে পাখির চোখ করা বিজেপি নেতৃত্ব প্রথম থেকেই রথযাত্রার মধ্যে দিয়ে এই বাংলার শাসক দল তৃণমূলকে চাপে রাখতে চেয়েছিল। কলকাতা হাইকোর্টের রায়ে সেই বিজেপির রথযাত্রা এখন প্রায় বিশবাঁও জলে। তবে সিঙ্গল বেঞ্চ বিজেপির এই রথযাত্রা নিয়ে অনিশ্চয়তার রায় দিলেও, গত শুক্রবার এই রথ যাত্রার ব্যাপারে বিজেপি

Top
error: Content is protected !!