এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "জলপাইগুড়ি কুচবিহার সেরা নিউজ samnei"

কাটমানি ও কমিশন খাওয়া কি তৃণমূলের রন্ধ্রে রন্ধ্রে? “নজরদারি সেল” করে জল্পনা বাড়ালেন মমতাই

বিগত বাম সরকারের আমলে গণতন্ত্র নেই বলে সারা রাজ্যজুড়ে আলোড়ন তুলে দিয়েছিলেন তৎকালীন বিরোধী দলনেত্রী তথা আজকের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু ক্ষমতায় আসতে না আসতেই সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তার দল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধেও এখন দুর্নীতির অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে। গত 2011 সাল থেকে তৃণমূল রাজ্যে ভালো ফল করলেও মানুষের চাপা

“মওকা” মিলতেই রবীন্দ্রনাথকে কোণঠাসা করতে চলেছেন পার্থ? তীব্র জল্পনা শাসকদলের অন্দরে

কাকা বনাম ভাইপোর লড়াইয়ে বারেবারেই উত্তপ্ত হয়েছে কোচবিহার জেলা রাজনীতি। এই জেলারই সদ্য প্রাক্তন তৃণমূলের সভাপতি তথা মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষের হাত ধরেই রাজনীতিতে উত্থান ঘটেছিল কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্রের প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদ তথা বর্তমান কোচবিহার জেলা যুব তৃনমূলের সভাপতি তথা কোচবিহার জেলা তৃনমূলের কার্যকরী সভাপতি পার্থপ্রতিম রায়ের। কাকা ভাইপোর লড়াইয়েই এবার সেই

দেড় বছর হয়ে গেলেও ‘গদ্দারকে’ ভুলতে পারেননি তৃণমূল নেত্রী! ‘গদ্দার’ শুধু মুচকি হেঁসে উইকেটের পর উইকেট ফেলতেই ব্যস্ত!

প্রিয় বন্ধু বাংলা এক্সক্লুসিভ - বাংলার আকাশ-বাতাস যখন শিউলির গন্ধে ম-ম করছে তখনই এক অক্টোবরের সকালে রাজ্য-রাজনীতিকে চমকে দিয়ে তৎকালীন রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের অঘোষিত দুনম্বর নেতা মুকুল রায় ঘোষণা করেছিলেন - তিনি শাসকদলের সঙ্গে সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করতে চলেছেন। বেশ কিছুদিন 'সাসপেন্স' বজায় রেখে অবশেষে নভেম্বরের এক অপরাহ্নে একজন

যোগী আদিত্যনাথের পাল্টা সভা বাতিলই করে দিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়! ভয় পেয়েছে বলে তীব্র কটাক্ষ বিজেপির

লোকসভা নির্বাচনের আগে বাংলাকে পাখির চোখ করেছে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। আর তাই কখনও বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ, কখনও বা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, আবার কখনও বা ভিন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের দিয়ে রাজ্যে পদ্ম ফোটানোর চেষ্টা করছেন বঙ্গ-বিজেপির মুকুল রায়, দীলিপ ঘোষরা। কিন্তু রাজ্যের মাটিতে বিজেপি পদ্ম ফোটানোর চেষ্টা করবে, আর তাতে

সোমেন মিত্রের নেতৃত্ত্বে ঘুরছে কি চাকা? এবার তৃণমূল ছেড়ে কয়েকশো কর্মী ফিরে গেলেন কংগ্রেসে

অধীর রঞ্জন চৌধুরীর জায়গায় সোমেন মিত্রকে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির দায়িত্ত্ব দেওয়ার পরেই - সোমেনবাবু ঘোষণা করেছিলেন, কংগ্রেস ছেড়ে যাঁরা অন্যদলে গেছেন, তাঁরা সেখানে ভালো নেই বলে খবর পেয়েছি। পুরোনো কংগ্রেসীদের ঘরে ফেরানো হবে এবং অন্যান্য দলে যাঁরা সম্ভবনাময় তাঁদেরও কংগ্রেসে শামিল করার চেষ্টা হবে। কথা রাখছেন সোমেনবাবু - যেখানে কংগ্রেস ছেড়ে

আটকাতে পারল না অনুব্রত মন্ডলের ‘উন্নয়ন মন্ত্র’, বিজেপির ‘ঘরের ছেলে ঘরে’ – জানুন বিস্তারিত

রাজ্য রাজনীতিতে এই মুহূর্তে খবরের শিরোনামে থাকা অন্যতম জেলার নাম বীরভূম - আর তার সৌজন্যে তৃণমূল কংগ্রেসের দাপুটে জেলা সভাপতি অনুব্রত মন্ডল। পঞ্চায়েত নির্বাচনে 'রাস্তায় উন্নয়ন দাঁড় করিয়ে' বা 'মশারির ব্যবস্থা' করে গোটা জেলাকেই কার্যত তৃণমূল কংগ্রেসের দখলে রেখেছিলেন তিনি। তবে, হাতে গোনা যে কয়েকটা জায়গায় নির্বাচন হয়েছিল - সেখানে

বিজেপির রাজ্য সভাপতি পদ নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্ত, ঘোষণা হতে পারে যে কোন সময়

মাস কয়েক আগে হঠাৎই রাজ্য রাজনীতিতে জল্পনা ছড়িয়ে পরে বিজেপির রাজ্য সভাপতি পদে বদল নিয়ে। যদিও সেই সময় দিল্লিতে এক বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয় - যেহেতু সামনেই লোকসভা নির্বাচন তাই, সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের মেয়াদ আরও এক বছর বৃদ্ধি করা হল। কিন্তু, সেই বৈঠকে রাজ্য সভাপতিদের নিয়ে সুস্পষ্ট করে কিছু জানান

এই মুহূর্তে লোকসভা নির্বাচন হলে কি হবে বাংলার ফলাফল? কি বলছে রিপাবলিক টিভির সমীক্ষা?

লোকসভা নির্বাচনের আর কয়েক মাস বাকি। আর সেই নির্বাচনকে সামনে রেখে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম নিজেদের মত করে সমীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছে। সেরকমই একটি সমীক্ষা রিপাবলিক টিভি ও সি-ভোটার সংস্থা মিলে করেছে। সেই সমীক্ষা অনুযায়ী, এই মুহূর্তে ভোট হলে বাংলায় বিভিন্ন দলের প্রাপ্ত ভোট শতাংশ হতে পারে - তৃণমূল কংগ্রেস - ৪০.০% বিজেপি - ৩০.২% বামফ্রন্ট

কলেজে অস্থায়ী কর্মী নিয়োগে স্বজনপোষণের অভিযোগে চাপ বাড়াচ্ছে বিরোধীরা, তদন্তে ডিএম – অস্বস্তি শাসকদলে

এবার স্বজনপোষণের অভিযোগ উঠল কলেজের অস্থায়ী কর্মী নিয়োগে। আরএসপি, কংগ্রেস ও বিজেপি একযোগে আন্দোলনে নেমেছে কুমারগঞ্জ কলেজে ১৬ জন অস্থায়ী কর্মীর নিয়োগকে কেন্দ্র করে। আর সম্মিলিত বিরোধীদের আন্দোলনের জেরে এই নিয়ে তদন্তের আশ্বাস দিয়েছেন দক্ষিণ দিনাজপুরের জেলাশাসক দীপাপ প্রিয়া বলে সূত্রের খবর। প্রসঙ্গত এর আগে, একই জেলার বালুরঘাট পুরসভায় অস্থায়ী কর্মী

গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র – জানুন বিস্তারিত

অসুস্থ প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সৌমেন্দ্রনাথ মিত্র। রবিবার শ্বাসকষ্টের সমস্যার কারণে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়েছে এই বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতাকে। বর্তমানে দক্ষিণ কলকাতার একটি হাসপাতালে ভর্তি আছেন সোমেনবাবু বলে সূত্রের খবর। তাঁর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে যে বুকে সর্দি বসেছিল বেশ কয়েকদিন ধরেই, পরে সেটাই বাড়াবাড়ি হয়ে শ্বাসকষ্ট হতে দেখা গেলে, আর

Top
error: Content is protected !!