এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন"

বেজে গেল লোকসভা ভোটের দামামা, রাজ্য পুলিশ নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্তের পথে জাতীয় নির্বাচন কমিশন

দেখতে দেখতে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন সরকার পাঁচ বছর পূর্ন করতে চলল। ফলে সময় এসেছে আবার দেশজুড়ে সাধারণ নির্বাচনের। ইতিমধ্যেই রাজ্যে ভোটার তালিকা সংশোধনের কাজ সম্পূর্ণ। অন্যদিকে, গতকালই নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে আগামী নির্বাচন ঘোষণা হতে পারে মার্চের প্রথম সপ্তাহে এবং ৬-৭ দফায় হতে পারে সেই নির্বাচন। আর এর পরিপ্রেক্ষিতে রাজ্য

কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে বড়সড় বিড়ম্বনায় বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ – জানুন বিস্তারিত

রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের আক্রমণের নিশানায় এখন সবার উপরে যে দুটি নাম তা হল মুকুল রায় ও দিলীপ ঘোষ। এমনকি, দিলীপবাবুকে নিয়ে ক্ষোভ দলেরই একাংশের মধ্যে। কেননা, বিভিন্ন জনসভায় গিয়ে দিলীপবাবু যেসব আক্রমণাত্মক কথা বলেন তা নাকি বিজেপির ভাবমূর্তি নষ্ট করছে বলে দলের ওই অংশের অভিযোগ। এরই মধ্যে দলের প্রাক্তনী তথা

তৃণমূলের ‘প্যাঁচে’ তৃণমূলেরই ‘ঘুম ওড়াতে’ দিল্লিতে বড়সড় পরিকল্পনায় মুকুল রায় – জানুন বিস্তারিত

রাজ্য রাজনীতিতে ইদানিং দুটি কথা খুব জনপ্রিয় হয়ে গেছে। এক - রাস্তায় দাঁড়িয়ে আছে উন্নয়ন আর দুই, বাংলায় গণতন্ত্র নেই! বিগত পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগেই তৃণমূল কংগ্রেসের বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মন্ডল প্রথম 'রাস্তায় উন্নয়ন দাঁড়ানোর' তত্ত্ব বলেন। যা নিয়ে কম বিতর্ক হয় নি সেই সময়! অনুব্রতবাবু নিজের ব্যাখ্যায় জানিয়েছিলেন -

আগামী নির্বাচন কি ব্যালটে? বড় সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিল সুপ্রিম কোর্ট – জানুন বিস্তারিত

ইভিএমের কারচুপির অভিযোগে একাধিকবার বিরোধীরা সরব হয়েছেন। নির্বাচন হোক বা উপনির্বাচন, লোকসভা হোক বা বিধানসভা নির্বাচন কমিশন বহুবার কোনঠাসা হয়েছে বিরোধীদের অভিযোগে। বিরোধীদের সঙ্গে সঙ্গে আমজনতাও একই ইস্যুতে আওয়াজ তুলে নির্বাচন কমিশনকে দফায় দফায় কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছে। প্রত্যেকবার নির্বাচনের পরই অভিযোগের একই ছবি প্রকাশ্যে আসে। মুখ বুঝে চুপচাপ সহ্যও করতে

Top
error: Content is protected !!