এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "আসন্ন লোকসভা নির্বাচন" (Page 2)

বাংলা বিজয়ে মোদী-শাহের ভরসার মুখ হতে চলেছেন কি মুকুল রায়ই? নতুন পদক্ষেপে জল্পনা চরমে

মুকুল রায় তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করলেও বিজেপি নিজেদের ধারা মেনে দীর্ঘদিন মুকুলবাবুকে দলের একজন সাধারণ কর্মী করেই রেখেছিল। তৃণমূল কংগ্রেসের সেকেন্ড ইন কম্যান্ড দলে এলেও পদ মেলে নি - কেননা বিজেপির বক্তব্য ছিল পরিষ্কার। ভারতীয় জনতা পার্টি একটি সর্বভারতীয় দল - এখানে এলেই 'ততকাল' পদ মেলে না -

কে কোথায় টিকিট পাবেন বড় কথা নয়, একমাত্র লক্ষ্য তৃণমূল কংগ্রেসকে আড়াআড়ি ভাঙা – স্পষ্ট করলেন বিজেপি নেতা

বিজেপির কেন্দ্রীয় অধিবেশন উপলক্ষে বাংলা বিজেপির সমগ্র রাজ্য নেতৃত্ব তো বটেই, এমনকি জেলা নেতৃত্বও আপাতত দিল্লিতে। কিন্তু, তার মাঝেই নতুন করে বিতর্ক শুরু হয়েছে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির টিকিট প্রাপ্তি নিয়ে। এ বারে নজিরবিহীনভাবে লোকসভা নির্বাচনে বাংলা থেকে বিজেপির টিকিট পাওয়া নিয়ে চাহিদা তুঙ্গে। রাজ্যের প্রতিটি লোকসভা আসনের জন্য গড়ে

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে লড়াইটা তৃণমূল বনাম বিজেপি – স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন শুভেন্দু অধিকারী

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে - এ যেন ভূতের মুখে রাম নাম! যেখানে তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বোচ্চ নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ অন্যান্য শীর্ষনেতারা প্রতিটা জনসভায় রীতিমত দাবি করে বলছেন, বাংলায় বিজেপির কোনো অস্তিত্ব নেই, ২০১৪-এর জেতা দুটো আসনও নাকি বিজেপি আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে ধরে রাখতে পারব না! সেখানে, সম্পূর্ণ উল্টো পথে হেঁটে তৃণমূল

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে আর লড়তে চাইছেন না এই হেভিওয়েট তৃণমূল সাংসদ – নাছোড় খোদ দলনেত্রী

রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসে এই মুহূর্তে অন্যতম সম্মানীয় ও রাশভারী নেতার নাম সুব্রত বক্সি। তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বোচ্চ নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ও বিশ্বাসযোগ্য সৈনিক হিসাবেই তিনি পরিচিত। ২০১১ সালে যখন রাজ্যে পরিবর্তনের হাওয়া উঠেছিল - তখন ভবানীপুর বিধানসভা কেন্দ্রের সুব্রতবাবুকে টিকিট দেন মমতা ব্যানার্জি। যাতে, যদি সরকার গড়তে পারে তৃণমূল

আজ কি দিল্লিতে আবার মুকুল-ম্যাজিক? শাসকদলের আরেকটি উইকেটের পতনের আশায় গেরুয়া শিবির

বিগত কয়েকদিনে মুকুল রায়ের হাত ধরে দু-দুজন হেভিওয়েট যোগ দিয়েছেন গেরুয়া শিবিরে। প্রথমে যোগ দেন বিগত দিনের জনপ্রিয় অভিনেত্রী মৌসুমী চট্টোপাধ্যায় - আর তার রেশ মিলিয়ে যেতে না যেতেই সবাইকে চমকে দিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁ - দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও দলের অঘোষিত দুনম্বর নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে

বিজেপিতে যোগ দিয়েই বড় প্রাপ্তি প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদ সৌমিত্র খাঁর – জানুন বিস্তারিত

রাজ্য রাজনীতিতে এখন খবরের শিরোনামে তৃণমূল কংগ্রেসের বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। কিছুদিন আগেই খবরে প্রকাশিত হয় - তৃণমূল ত্যাগী বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রাখার কারণে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে আর তিনি তৃণমূল কংগ্রেসের টিকিট পাচ্ছেন না - আর তাই তিনি নাকি বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন। এই ব্যাপারে মুকুলবাবুর সঙ্গে

দিলীপ ঘোষের তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদানের সম্ভবনা নিয়ে মুখ খুললেন হেভিওয়েট তৃণমূল কংগ্রেস নেতা

রাজ্য রাজনীতি আপাতত তুলকালাম প্রবল প্রতিপক্ষ তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বোচ্চ নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের প্রধানমন্ত্রীর আসনে দেখার বাসনা নিয়ে সাংবাদিক বৈঠক। গত ৫ ই জানুয়ারী মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্মদিনে তাঁকে শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে দিলীপবাবু একেবারে তাঁকে প্রধানমন্ত্রীর কুর্শিতেই বসিয়ে দেন! দিলীপবাবু সাংবাদিক বৈঠকে বলেন, বাংলার যদি কারও প্রধানমন্ত্রী

বেআইনি বালি খাদান মামলায় এবার ‘ভাইপোর’ ঘুম ওড়াতে চলেছে সিবিআই – জানুন বিস্তারিত

ভারতীয় রাজনীতিতে একটি কথা প্রচলিত আছে - উত্তরপ্রদেশ যাঁর, দিল্লির কুর্শি তাঁর! আর এই কথাকে পুনরায় সত্যি করে ২০১৪ এর লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি ও জোটসঙ্গী মিলে উত্তরপ্রদেশের ৮০ টি লোকসভা আসনের মধ্যে ৭৩ টিই নিজেদের দখলে রাখে। কংগ্রেস বা সমাজবাদী পার্টি কোনোরকমে মুখরক্ষা করলেও খাতা খুলতে পারে না বহুজন সমাজবাদী

লোকসভা নির্বাচনের আগে আরও বড় দায়িত্ত্ব অনুব্রত মন্ডলের কাঁধে – জানুন বিস্তারিত

রাজ্য রাজনীতিতে কোনো জনপ্রতিনিধি না হয়েও সব সময়েই যিনি খবরের শিরোনামে থাকেন তিনি আর কেউ নন, বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অনুব্রত মন্ডল। কিছুদিন আগেও যিনি বিখ্যাত ছিলেন - পুলিশের উপর বোমা মারার নিদান দিয়ে, বা বিরোধীদের গুড়-বাতাসা বা ঢাকের চরাম চরাম বোলের জন্য। পঞ্চায়েত নির্বাচন থেকে অবশ্য উনি বিশেষ

আর বারাণসী নয় – প্রধানমন্ত্রী নতুন কেন্দ্র থেকে নির্বাচনে লড়বেন? জল্পনা বাড়ালেন বিজেপি নেতা

২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে তৎকালীন বিজেপির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদী এক সাথে দুটি কেন্দ্র থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সিদ্ধান্ত নেন। গুজরাটের ভদোদরা ও উত্তরপ্রদেশের বারাণসী। দুটি কেন্দ্র থেকেই বিপুল ভোটে জয়ী হওয়ার পর - বারাণসী কেন্দ্রটি নিজের জন্য রেখে ভদোদরা কেন্দ্রটি তিনি ছেড়ে দেন। কিন্তু আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে এই দুটি কেন্দ্রের একটিও

Top
error: Content is protected !!