এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মেদিনীপুর > শুভেন্দু-গড়ে দুই তৃণমূল নেতার পুকুরে বিষ, রাজনৈতিক প্রতিশোধ? তীব্র চাঞ্চল্য এলাকায়

শুভেন্দু-গড়ে দুই তৃণমূল নেতার পুকুরে বিষ, রাজনৈতিক প্রতিশোধ? তীব্র চাঞ্চল্য এলাকায়

রাজ্যের শাসক দলের প্রভাবশালী মন্ত্রীর খাস তালুকেই এবার বিরোধী সন্ত্রাস। পূর্ব মেদিনীপুরের মহিষাদল ইটামগরা -২ গ্রামপঞ্চায়েতের কাপাসএড়াতে দুই তৃণমূল কংগ্রেস নেতার পুকুরে বিষ প্রয়োগের অভিযোগ উঠল স্থানীয় বিরোধী রাজনৈতিক দলের বিরুদ্ধে। মহিষাদল থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে । অবশ্য বিরোধীরা তাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ মানতে নারাজ। প্রসঙ্গতঃ মঙ্গলবার সকালে স্থানীয় দুই তৃণমূল কংগ্রেস নেতা সত্যজিত্‍ দাস ও ওমপ্রকাশ দাসের পরিবারের লোকজন দেখেন তাঁদের পুকুরের সমস্ত মাছ মরে গিয়ে ভেসে উঠেছে। তাঁদের মতে আগের দিন রাতেই তাঁদের পুকুড়ে কেউ বিষ প্রয়োগ করে। পুকুড় পাড় থেকে একটি বিষের বোতলও উদ্ধার করা হয়েছে। জানা যাচ্ছে দুটি পুকুরে বিষ প্রয়োগের ফলে প্রায় ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকার ক্ষতি হয়েছে ।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

ক্ষতির পরিমান উল্লেখ করে এমন অভিযোগ ঐ দুই নেতার পরিবারের। এই ঘটনা প্রসঙ্গে, মহিষাদল পঞ্চায়েত সমিতির স্বাস্থ্য কর্মাধ্যক্ষ তরুনকান্তি দাস নিজের প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বললেন, ” ভোট প্রক্রিয়া শেষ হলেও বিরোধীরা এলাকায় অশান্তি সৃষ্টি করে চলেছে। হিংসায় এলাকায় আমাদের দলের দুই তৃণমূল নেতার পুকুরে রাতের বেলায় বিষ প্রয়োগ করে হাজার হাজার টাকা মাছ নষ্ট করেছে। আমরা বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসনকে জানিয়েছি। আমরা চাই যে বা যারা এই ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের কড়া শাস্তি হোক।” মহিষাদল পঞ্চায়েত সমিতির সহ সভাপতি তিলক চক্রবর্তী এলাকার রাজনৈতিক পরিবেশ সম্পর্কে নিজস্ব মতামত জানিয়ে বললেন, “ইটামগরা- ২ অঞ্চলে তৃণমূলের প্রতিনিধিরাই জয়লাভ করেছে। ফলে বিরোধিরা হিংসা এলাকায় অশান্তির বাতাবরণ তৈরি করে চলেছে। পুলিশ প্রশাসনকে বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা গ্রহনের আবেদন জানিয়েছি।” অন্যদিকে বিজেপির জেলা সভাপতি প্রদীপ দাস সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেই বললেন, “তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দলের ফলে শুধু এধরণের ঘটনা মহিষাদল ব্লক নয় জেলার সর্বত্র হচ্ছে। নিজেদের এই গোষ্ঠীকোন্দলকে চাপা দেওয়ার জন্য বিরোধীদের বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগ তুলছে ওরা।” অঞ্চলের সিপিএম নেতা লাল্টু মাঝির বয়ান অনুসারে, “শাসকদল বিভিন্নসভায় বলছে রাজ্যে সিপিএমের কোনও অস্তিত্ব নেই কিন্তু নিজেদের কুকীর্তি চাপা দিতে আমাদের ঘাড়ে এসব দোষ চাপাচ্ছে।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!