এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মেদিনীপুর > ভদ্র হও নম্র হও – নাহলে কী ধরনের ব্লিচিং ও ফিনাইল দিয়ে নোংরা আবর্জনা পরিষ্কার করতে হয় জানি: শুভেন্দু

ভদ্র হও নম্র হও – নাহলে কী ধরনের ব্লিচিং ও ফিনাইল দিয়ে নোংরা আবর্জনা পরিষ্কার করতে হয় জানি: শুভেন্দু


একের পর এক নির্বাচনী জনসভা থেকে বিরোধীদের কড়া ভাষায় আক্রমণ করতে দেখা যাচ্ছে তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পরেই তৃণমূলের হেভিওয়েটদের প্রচার তালিকায় রয়েছেন রাজ্যের পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।

ইতিমধ্যেই বিভিন্ন জায়গায় নির্বাচনী জনসভায় গিয়ে বিরোধীদের উদ্দেশ্যে আক্রমণাত্মক ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে দেখা যাচ্ছে সেই শুভেন্দু বাবুকেও। আর এবার মঙ্গলবার ময়নার বাকচার ইজমালিচক হোস্টেল মাঠের জনসভা থেকে ফের বিরোধীদের উদ্দেশ্যে কড়া ভাষায় হুশিয়ারি দিতে দেখা গেল সেই শুভেন্দু অধিকারীকে।

এদিনের এই সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি বলেন, “বিগত পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর থেকে দুষ্কৃতীরা কয়েকটা এলাকায় উত্তপ্ত করে রেখেছে। 2004 সালে যেদিন আমি প্রথম লক্ষ্মণ শেঠের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে ছিলাম তখন বরুনা বুথে ব্যালটবক্স জলে ফেলে দেওয়া হয়েছিল। আসলে আমি এদের একটু বাড়ার সুযোগ দিয়েছি। তবে আর বেশি সময় লাগবে না। মঙ্গলবার অক্ষয় তৃতীয়া। একটা অমাবস্যা গিয়েছে। আগামী অমাবস্যায় আর দেখতে হবে না।”

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে নন্দীগ্রামের অতীতের দীর্ঘ আন্দোলনের কথা বিরোধীদের হুঁশিয়ারি দিয়ে এদিন শুভেন্দু অধিকারী বলেন, “রাজনৈতিক বাপ ঠাকুরদারা নন্দীগ্রামে 41 জনকে মেরেছিল। তাদের কি অবস্থা করেছে তা সকলেই জানে। তোমরা তো সব পেচি মস্তান। আরে আমি 15 বছর ধরে পরীক্ষা দিয়েছি। সবাই বলেছিল নন্দীগ্রাম শেষ হয়ে গিয়েছে, আমি তুলে দিয়েছি। আর তুলতে তুলতে সিপিএম এখন ভোকাট্টা। আর সিপিএমের লোকগুলো লাল জামা খুলে পুরনো বোতলে নতুন মদের মতো গেরুয়া জামা পড়েছে।

এখানে দিব্যেন্দু অধিকারী জিতবে, ঘাটালে দীপক অধিকারী জিতবে, মেদিনীপুরে মানস ভূঁইয়াও জিতবে। ভদ্র হও, নম্র হও, না হলে কি ধরনের ব্লিচিং ও ফিনাইল দিয়ে নোংরা আবর্জনা পরিষ্কার করতে হয় তা আমি জানি।” পাশাপাশি নন্দীগ্রাম থেকে দিব্যেন্দু অধিকারী এক লক্ষর বেশি পাবেন বলেও বিরোধীদের উদ্দেশ্যে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেন শুভেন্দুবাবু। এদিকে বাকচার সভার পরে এদিন পটাশপুরের আড়গোয়ালের সভায় উপস্থিত হয়ে কাঁথি লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী শিশির অধিকারী সমর্থনে বক্তব্য রাখেন রাজ্যের পরিবহনমন্ত্রী।

সেখানেই বিরোধী প্রার্থীদের কটাক্ষ করে তিনি বলেন, “শিশির অধিকারী একজন পরীক্ষিত রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব এবং প্রবীণ নেতা। তার বিরুদ্ধে বিজেপি একজন ডাক্তারবাবুকে দাঁড় করিয়েছে। যিনি কাথির ফাঁকিবাজ চিকিৎসক হিসেবে পরিচিত। সিপিএম একটা নাবালক প্রার্থীকে দাঁড় করিয়েছে। পঞ্চায়েত প্রধান তো দূর অস্ত, কলেজের সিআর হওয়ার যোগ্যতাও ওর নেই।” সব মিলিয়ে এবার নির্বাচনী জনসভা থেকে বিরোধীদের উদ্দেশ্যে কড়া ভাষায় আক্রমণ ও হুঁশিয়ারি দিলেন তৃণমূলের শুভেন্দু অধিকারী।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!