এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > খারাপ কাজের দায়িত্ব দল নেবে না, স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন শুভেন্দু অধিকারী!

খারাপ কাজের দায়িত্ব দল নেবে না, স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন শুভেন্দু অধিকারী!

গত লোকসভা নির্বাচনে অনেক কেন্দ্রে তৃণমূল প্রার্থীদের পরাজয়ের পেছনে যে কারণকে দায়ী করা হয়েছে, তা হল নিচুতলার নেতা-কর্মীদের দুর্নীতি। তবে গত লোকসভা থেকে শিক্ষা নিয়ে এখন এই ব্যাপারে অনেকটাই সচেতন রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। দলের অনেক নেতা-কর্মীরা কিছু অবৈধ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকলে, দল যে তাকে অনুমোদন দেয় না, তা অনেকবার জানিয়ে দিয়েছে তৃণমূল নেতৃত্ব।

কিন্তু তা সত্ত্বেও কাঠগড়ায় দাঁড়ানো সেই সমস্ত নেতা-নেত্রীদের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি ঘাসফুল শিবিরকে। যা নিয়ে সাধারণ মানুষের মনে তৃণমূল সম্পর্কে তৈরি হয়েছে খারাপ ধারণা। তবে এবার এই ব্যাপারে কড়া হুঁশিয়ারি দিতে দেখা গেল রাজ্যের হেভিওয়েট মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীকে।

বস্তুত, কোলাঘাট তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের অফিসারকে মারধরের ঘটনায় সম্প্রতি গ্রেপ্তার হয়েছেন শহীদ মাতঙ্গিনী পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি দিবাকর জানা। যার ফলে কিছুটা অস্বস্তিতে পড়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। তবে সেই গ্রেপ্তার হওয়া পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতিকে অনেক আগেই দল থেকে সাসপেন্ড করতে দেখা গেছে তৃণমূল নেতৃত্বকে। আর এই ঘটনার পরদিনই শনিবার শহীদ মাতঙ্গিনী ব্লকের কাকটিয়ায় নজরুল মঞ্চে ব্লক কমিটির বর্ধিত সভায় এসে সকলকে সতর্ক করে দিলেন শুভেন্দু অধিকারী। যেখানে তিনি স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দেন যে, কেউ যদি কোনো ভুল করে, তার দায় কখনও দল নেবে না।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এদিন তিনি বলেন, “মালের দায়িত্ব আরোহীর মতই নিজের কৃতকর্মের দায়িত্ব নিজেকেই নিতে হবে। আমরা সেই দায়ভার নেব না। আমরা ঝেড়ে ফেলে দেব। এটাই আমাদের স্পষ্ট নীতি। চলার পথে অনেকেই ভালো কাজের পাশাপাশি ভুল কাজ করে ফেলেন। তাদের সংশোধনের সুযোগ আছে। আমরা সেই সুযোগ দিই। সেই সুযোগ নিতে গেলে প্রথমে নেতা থেকে কর্মী, কর্মী থেকে সমর্থক এবং সমর্থক থেকে ভোটার হয়ে বাড়িতে বসে থাকতে হবে। তারপর ভুল সংশোধন করে কাজের ভিত্তিতে নিজের সর্বোচ্চ জায়গায় চলে যাবেন।”

এদিকে আগামীদিনে দল যাতে সুষ্ঠুভাবে এখানে পরিচালনা হয়, এদিন তার জন্যও নির্দেশ দেন শুভেন্দু অধিকারী। তিনি বলেন, “আগামীদিনে দল যাতে সুষ্ঠুভাবে চলে, সেটা আপনারা দেখবেন। 2008 সালে পঞ্চায়েত ভোটের সময় থেকে 2019 সালের লোকসভা ভোট পর্যন্ত মূল্যায়ন করলে দেখা যাবে, এই ব্লকের মানুষ অত্যন্ত সচেতন। তারা আপনাদের ঐক্যবদ্ধ দেখতে চায়। কেউ কেউ এই ব্লকে দলকে প্রতিষ্ঠা করেছেন বলে দাবি করেন। আমি এই বিষয়ে বলব, নন্দীগ্রাম গণআন্দোলন না হলে এবং 2008 সালে পঞ্চায়েত ভোটে এসইউসির বন্ধুরা সাহায্য না করলে, এই ব্লকে আপনি কোনোদিন জিততে পারতেন না। এসব বলে লাভ নেই। বিডিও অফিসে আটকে দিয়ে পঞ্চায়েত ভোটে জেতা বা লোকসভা, বিধানসভা ভোটে জেতা দুটো একসঙ্গে চলবে না। কঠিন কিছু হয়ে গেলে তাকে সহজ করতে সব সময় আমার ভালো লাগে। যেমন খড়গপুর কঠিন হয়ে গিয়েছিল। আমি সহজ করে দিয়েছি। আপনাদের ব্লক জটিল হয়েছিল। আমি সহজ করে দেব।”

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলছেন, এদিনের এই সভা থেকে যতটা না বিরোধীদের উদ্দেশ্য মন্তব্য করেছেন শুভেন্দু অধিকারী, তার থেকে অনেক বেশি নাম না করে নিজের দলের দিবাকর জানার উদ্দেশ্যে মন্তব্য করেছেন তিনি। পাশাপাশি তার মত ভুল যাতে আর কেউ না করেন এবং যদি কেউ এরকম ভুল করেন, তাহলে তার দায়িত্ব যে সেই ব্যক্তিকেই নিতে হবে, তা স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছেন তৃনমূলের এই হেভিওয়েট মন্ত্রী।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!