এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে বিরক্ত হয়েই কি ব্রিগেড চলো কর্মসূচি নিয়ে মুর্শিদাবাদে বড়সড় সিদ্ধান্ত শুভেন্দু অধিকারীর? বাড়ছে জল্পনা

গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে বিরক্ত হয়েই কি ব্রিগেড চলো কর্মসূচি নিয়ে মুর্শিদাবাদে বড়সড় সিদ্ধান্ত শুভেন্দু অধিকারীর? বাড়ছে জল্পনা

একদা কংগ্রেসের শক্ত ঘাঁটি বলেই পরিচিত মুর্শিদাবাদ জেলায় এবার শাসকদলের গোষ্ঠী কোন্দল নিয়ে প্রবল চিন্তিত জেলা তৃণমূলের পর্যবেক্ষক তথা মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। আর তাইতো এবার জেলা তৃনমূল নেতাদের উদ্যোগে তৈরি ব্রিগেড চলো কর্মসূচি নিয়ে দুটি প্রচার কমিটি বাতিলের সিদ্ধান্ত নিলেন তিনি। কিন্তু হঠাৎ এই প্রচার কমিটি বাতিল করতে হলো কেন তাঁকে?

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এই ব্রিগেড চলো কর্মসূচির প্রচার অভিযানের রাশ ঠিক কার হাতে থাকবে তা নিয়ে মুর্শিদাবাদ জেলা তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে তীব্র কোন্দল সৃষ্টি হয়। একদিকে মুর্শিদাবাদ জেলা তৃণমূলের সভাপতি সুব্রত সাহা সাংবাদিক সম্মেলন করে এই ব্রিগেডের প্রচারের ব্যাপারে 14 জনের সেন্ট্রাল মনিটরিং কমিটি ঘোষণা করেন। যেখানে অনেকেরই অভিযোগ ছিল যে, জেলা সভাপতির এই কমিটিতে জেলার সিংহভাগ তৃণমূল নেতারাই ছিলেন না। বদলে তিনি তাঁর নিজের ছেলেকে এই কমিটিতে স্থান দিয়েছেন।

আর তাই জেলা সভাপতির উদ্যোগে গঠিত এই নতুন কমিটি গঠন হওয়ার পরই পাল্টা সাংবাদিক সম্মেলন করে মহুকুমা ভিত্তিক পাঁচটি ব্রিগেডের প্রচার কমিটি গঠন করেন শাসক দলেরই অপর একটি গোষ্ঠী। যে সাংবাদিক বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মুর্শিদাবাদ জেলা তৃণমূলের সহ-সভাপতি অশোক দাস, বিধায়ক নিয়ামত শেখ, লালবাগ মহাকুমা তৃণমূলের সভাপতি রাজীব হোসেন সহ অন্যান্যরা।

এদিকে জেলার তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর এহেন দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে আসার পরই গত 10 ডিসেম্বর সেই মুর্শিদাবাদ জেলা তৃণমূলের কার্যালয়ে আক্রান্ত হতে হয় জেলা তৃণমূলের সহ-সভাপতি অশোক দাসকে। আর এরপরই জেলার রাজনীতিতে তীব্র শোরগোলের সৃষ্টি হয়। অশোক দাস এর উপর হামলার ঘটনায় নাম জড়ায় খোদ দলেরই এক কাউন্সিলারের। এমতাবস্থায় এবার গত বৃহস্পতিবার মুর্শিদাবাদ জেলার নেতাদের কলকাতায় ডেকে এই গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব কমাতে ও দলীয় কার্যালয়ের নিরাপত্তা বাড়াতে কড়া নির্দেশ দিলেন জেলা তৃণমূলের পর্যবেক্ষক তথা রাজ্যের পরিবহন ও পরিবেশ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।

সূত্রের খবর, এই বৈঠকেই ব্রিগেড চলো কর্মসূচি নিয়ে সেন্ট্রাল মনিটরিং কমিটি ও মহকুমা ভিত্তিক পাঁচটি কমিটি বাতিল করে দেন শুভেন্দু বাবু। পাশাপাশি জেলার ছয়জনের কোর কমিটির সাথে আলোচনা না করে জেলা কমিটি কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারবে না বলে দিন জেলা নেতাদের স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দেন মুর্শিদাবাদ জেলা তৃণমূলের পর্যবেক্ষক।

অন্যদিকে বহরমপুর শহরের টেক্সটাইল মোড়ে তৃণমূলের জেলা কার্যালয়ের 4 প্রান্তে সিসি ক্যামেরা ও তিনটি শিফটে দুজন করে বেসরকারি নিরাপত্তারক্ষী মোতায়েন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এদিন এই প্রসঙ্গে বহরমপুর টাউন তৃণমূলের সভাপতি নাড়ুগোপাল মুখোপাধ্যায় বলেন, “দল বড় হওয়ায় কার্যালয়ের গুরুত্ব এখন বেড়েছে। প্রতিদিন এখানে প্রচুর মানুষ আসেন। কে কী উদ্দেশ্যে আসেন তা তো বলা সম্ভব না। তাই দলের জেলা পর্যবেক্ষকের নির্দেশেই এই কার্যালয়ের নিরাপত্তা ব্যবস্থা চাঙ্গা করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

কিন্তু হঠাৎ পরিবহন মন্ত্রীর নেতৃত্বে হওয় বৈঠকে কেন ব্রিগেডের প্রচারের জন্য জেলার কমিটিকে বাতিল করা হল? এদিন এই প্রসঙ্গে মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদের সভাধিপতি তৃণমূলের জেলা কমিটির সদস্য মোশারফ হোসেন মন্ডল বলেন, “এই বৈঠক দলের অভ্যন্তরীণ বিষয়। তাই এ সম্পর্কে প্রকাশ্যে কিছু বলা যাবে না। পরিবহন মন্ত্রীর নেতৃত্বে আরও একজোট হয়ে লোকসভা ভোটে লড়াই করে জেলার তিনটি কেন্দ্র আমরা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে উপহার দেব।” সব মিলিয়ে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের আগে জেলা তৃণমূলের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব কমাতে এবং নিজেদের ঘাঁটি শক্ত করতে উদ্যোগী তৃণমূলের শুভেন্দু অধিকারী।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!