এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > আজ মুর্শিদাবাদে শাসকদলের ‘জনশক্তি প্রদর্শন’ – শুভেন্দু অধিকারীর নেতৃত্বে ‘মিনি-ব্রিগেড’-এর অঙ্গীকার জেলা নেতৃত্বের

আজ মুর্শিদাবাদে শাসকদলের ‘জনশক্তি প্রদর্শন’ – শুভেন্দু অধিকারীর নেতৃত্বে ‘মিনি-ব্রিগেড’-এর অঙ্গীকার জেলা নেতৃত্বের

পরিবহনমন্ত্রী তথা তৃণমূলের জেলা পর্যবেক্ষক শুভেন্দু অধিকারির এদিনের মিনি ব্রিগেড সভায় রেকর্ড পরিমান লোক জমায়েত হওয়ার আশঙ্কা শাসকদলের। মুর্শিদাবাদের এই দুটি শহরে বহরমপুর এবং জঙ্গীপুরে শুভেন্দু অধিকারীর নেতৃত্বে সভা হওয়ার কথা রয়েছে। দুটি সভাতেই ৪০-৬০ হাজার করে লোক জমায়েত করার লক্ষ্যমাত্রার কথা আগেই জানিয়ে দিয়েছিলেন জেলা তৃণমূল নেতৃত্বরা।

এর জেরে দুটি শহরেই ব্যাপক যানজটের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। তবে সপ্তাহের ব্যস্ততম দিনে জনজীবনকে স্বাভাবিক রাখতে পুলিশের পাশাপাশি প্রায় ১৪০০ ভলেন্টিয়ারকে রাস্তায় নামানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন জেলাস্তরের প্রশাসনিক কর্মকর্তারা। চলতি মাসেরই ১৯ তারিখ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রস্তাবিত বহু কাঙ্খিত সর্বভারতীয় ব্রিগেড সমাবেশ।

হাতে গোনা আর কয়েকদিনই বাকি মাত্র। জোর কদমে চলছে বৃহত্তর জনসমাবেশের শেষপর্বের প্রস্তুতি। তাই দলনেত্রীর নির্দেশ মেনেই এদিন অধীর চৌধুরীর শক্তিঘাঁটি বহরমপুরের টেক্সটাইল মোড়ে ব্রিগেড সমাবেশের প্রস্তুতি সভা করতে উদ্যোগী হলেন শুভেন্দু অধিকারী।

বহরমপুরে বেলা ১ নাগাদ সভা শুরু হওয়া কথা জানা গিয়েছে জেলা সূত্রের খবরে। বহরমপুর শহর ও ব্লক,বেলডাঙা-১ এবং ২ ব্লক,হরিহরপাড়া,নওদা প্রভৃতি এলাকা থেকে বাইক,টোটো,ট্রেকার,পিকআপ ভ্যান প্রভৃতিতে করে ইতিমধ্যেই প্রায় ৪০ হাজার লোককে সভায় আনা হয়েছে। সভাকে মিনি ব্রিগেডের চেহার দেওয়ার জন্যেই এতো লোককে সভায় হাজির করানো হয়েছে বলেই জানা গিয়েছে দলীয় সূত্রের খবরে।

সভা চলবে বিকেল ৪ টে পর্যন্ত। বহরমপুরের আগে জঙ্গিপুরের ম্যাকেঞ্জি পার্কে আরো একটি মিনি ব্রিগেড সভার আয়োজন করা হল শুভেন্দু অধিকারীর নেতৃত্বে। সেখানেও রেকর্ড পরিমান লোক জমায়েত হয়েছে। সভায় সাগরদিঘি, রঘুনাথগঞ্জ-১ ও ২, সূতি-১ ও ২, ফরাক্কা ব্লক এবং জঙ্গিপুর ও ধুলিয়ান শহর থেকে প্রায় ৬০হাজার লোক জমায়েত করার লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করতে পেরেছে তৃণমূল,এমনটাই খবর দলীয় সূত্রের।

সভায় শুভেন্দু অধিকারী ছাড়া উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় বিধায়ক,দলের জেলা সভাপতি সুব্রত সাহা সহ আরো অনেকে। অন্যদিকে,বহরমপুরের সভায় শুভেন্দু অধিকারীর পাশাপাশি উপস্থিত রয়েছেন জেলা পরিষদের সভাধিপতি মোশারফ হোসেন মণ্ডল, বিধায়ক আবু তাহের খান, নিয়ামত শেখ, রবিউল আলম চৌধুরী প্রমুখরা।

 

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

লোকসভা ভোটের আগে অধীর চৌধুরীর খাসতালুকে শুভেন্দু অধিকারীর এই সভা যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। এমনিতেই পঞ্চায়েত নির্বাচনে জেলায় কংগ্রেসের কোমর ভেঙে দিয়েছে তৃণমূল। লোকসভা নির্বাচনে যাতে জেলা থেকে কংগ্রেসের নামগন্ধ মুছে ফেলা যায় তার জন্যেই কোমর বেঁধে ময়দানে নেমেছে শাসকদল। কংগ্রেসকে তৃণমূলের শক্তিপ্রদর্শন করতেই সভায় ব্যাপক লোক জমায়েত করার লক্ষ্যমাত্রা রেখেছে তৃণমূল।

এ প্রসঙ্গে তৃণমূলের জেলা সহ সভাপতি অশোক দাস বলেন,এই শহরে অনেকদিন আগেই কংগ্রেসের কোমর ভেঙে গিয়েছে। এবার ওদের সাফ করার শপথ নিয়ে মিনি ব্রিগেড করার উদ্যোগ নেওয়া হল। তবে বহরমপুরে যে কংগ্রেসের শক্তি কমেছে একথা অস্বীকার করলেন প্রদেশ কংগ্রেসের মুখপাত্র জয়ন্ত দাস। বললেন,’নিজেদের চাকরি বাঁচাতে তৃণমূলের কিছু নেতা বড় বড় কথা বলছেন। তবে, তৃণমূলেরই একাংশ চায়, এখান থেকে কংগ্রেসকে ভালোমতো জেতাতে।’

এদিকে জেলার দুটি ব্যস্ততম শহরে এতো সংখ্যক লোক জমায়েত করার ফলে ব্যাপক যানজটের সম্মুখীন হতে হল নাগরিকদের। তবে যানজট এড়াতে বিভিন্ন ব্লক থেকে আসা যানবহন শহরের স্টেডিয়ামের কাছে,ওভারব্রিজের নীচে এবং গোরাবাজারে কুমাী হস্টেলের কাছে রাখা হয়েছে বলেই জানালেন তৃণমূলের বহরমপুর মহকুমা কমিটির সভাপতি অরিৎ মজুমদার।

এছাড়া শহরের জনজীবন স্বাভাবিক রাখতে বিভিন্ন ব্লক থেকে আসা যানবহনগুলোকে সরাসরি শহরে ঢোকানো হয়নি বলেই জানালেন তৃণমূলের জঙ্গিপুর মহকুমা কমিটির সভাপতি বিকাশ নন্দ। প্রসঙ্গে আরো বললেন, জঙ্গিপুর শহরের এসডিও অফিসের কাছে,ব্যারেজ মাঠ এবং ভাটার মাঠে যানবহনগুলো পার্কিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। এছাড়া দুটি শহরেই যানজট এড়াতে পুলিশের পাশাপাশি রাস্তায় নামানো হয়েছে ৭০০ জন করে দলীয় ভলেন্টিয়ার। উক্ত সভায় জনজোয়ার দেখে ব্যাপক সন্তোষ প্রকাশ করলেন জেলা তৃণমূল নেতৃত্বরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!