এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > দুর্গাপুরের জন্য বড়সড় পরিকল্পনার কথা ঘোষণা করলেন পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী

দুর্গাপুরের জন্য বড়সড় পরিকল্পনার কথা ঘোষণা করলেন পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী

পুজোর মুখেই রাজ্যের পরিবহন দপ্তরের তরফ থেকে দুর্গাপুরবাসীদের জন্য এক গুচ্ছ খুশির খবর! দুর্গাপুরে একটি আন্তঃরাজ্য বাস টার্মিনাস গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আরো ৭০ টি বাস দেওয়া হবে দক্ষিণবঙ্গ পরিবহন সংস্থাকে। দুষণমুক্ত শহর গড়ার লক্ষ্যে আসানসোল এবং দুর্গাপুরে আরো ২০ টি সিএনজি গ্যাসের বাস চালু করা হবে। শহরবাসীদের নিরাপত্তার জন্য থাকবে গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার মোড়ে মোড়ে সিসিটিভি ক্যামেরা। এছাড়া সিটি সেন্টার বাসস্ট্যান্ডে ইলেক্ট্রিক বোর্ড এবং ওয়াচ টাওয়ার বসানোর পরিকল্পনাও রয়েছে। তৈরি হবে বিশ্ব বাংলা গ্লোব।

এডিডিএকে এসব করার জন্য পরিবহন দপ্তর থেকে আর্থিক সাহায্য করা হবে। দুর্ঘটনা কমানোর জন্য দেওয়া হবে গাড়ির গতিবেগ কমানোর মেশিন। এমনটাই জানালেন পরিবহনমন্ত্রী দুর্গাপুরের সিটি সেন্টারএডিডিএ ও দক্ষিণ পরিবহণ সংস্থার যৌথ উদ্যোগে তৈরি নতুন বাস টার্মিনাসের অফিসের উদ্বোধন করতে এসে। এদিন হলদিয়া ও খড়গপুরগামী চারটি রাত্রিকালীন বাস পরিষেবা উদ্বোধণ করা হল। অনুষ্ঠানে শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটক ও এডিডিএর চেয়ারম্যান তাপস বন্দ্যোপাধ্যায়ই উপস্থিত ছিলেন। পাশাপাশি এদিনই বিষ্ণুপুরে বাস টার্মিনাসের উদ্বোধন করেন পরিবহনমন্ত্রী।

তবে এদিনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসে তিনি জানান,আসানসোল ও দুর্গাপুর বাসমালিকদের বেশ কিছু সিদ্ধান্তে তাঁর আপত্তি রয়েছে। বনধের দিনগুলোতে বেশিরভাগ বাসড্রাইভাররা বাস চালান না। অথচ বনধের কট্টর বিরোধী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অল্প সিটের বাস বিভিন্ন রুটে চালানোর ভাবনা চিন্তা করা হচ্ছে সমস্যার সমাধানে। পাশাপাশি তুলে ধরলেন দীর্ঘদিন ধরে অটো নিয়ে যে সমস্যা হচ্ছে তার কথা। রেজিস্ট্রেশানহীন অটোগুলোকে বিমা সুবিধা পাইয়ে দিতে রেজিস্ট্রেশান করানোর কথা জানালেন তিনি। এই সমস্যা সমাধানের জন্য পরিবহন দপ্তরের আধিকারিকেরা আসানসোলে যাবেন বলেও জানালেন তিনি। এ প্রসঙ্গে আইনমন্ত্রী মলয় ঘটক বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আমলে সাত বছরে রাজ্যের যা উন্নতি হয়েছে বামেরা ৩৪ বছর থেকে তা করতে পারেনি। রাজ্য সরকারের সব দপ্তরের উন্নয়নই সমান গতিতে চলছে।

একইদিনে বিষ্ণুপুরেও অত্যাধুনিক বাস টার্মিনাসের উদ্বোধন করলেন পরিবহনমন্ত্রী। সেখানে তিনি বললেন,নেত্রীর নির্দেশ অনুযায়ীই সমস্ত কাজ করা হবে। বছর দুই আগে মুখ্যমন্ত্রী বাঁকুড়ার প্রশাসনিক সভায় এসে বিষ্ণুপুরে আরো উন্নত বাস টার্মিনাস তৈরির নির্দেশ দিয়েছিলেন,সেই নির্দেশেরই বাস্তব রূপায়ন হল আজ।সঙ্গে আরো জানালেন,গত বছর বিষ্ণুপুর বাস টার্মিনাসের শিলান্যাস করে গিয়েছেন তিনি। বলেছিলেন আগামী একবছরের মধ্যে কাজ সম্পূর্ণ হবে। সেই কথারই মান রাখলেন তিনি। শুধু তাই নয়,মুখ্যমন্ত্রীর পরামর্শ মতো আগামী দিনে বাঁকুড়া জেলা সোনামুখী,রাইপুর,মুকুটমনিপুরের সরকারি বাস ডিপো তৈরী করা হবে। জমি পেলে বিষ্ণুপুরেও বাস ডিপো তৈরি করা হবে। জেলাশাসকদের তরফ থেকে ৩৯ টি বাসরুটের প্রস্তাব রয়েছে। তার মধ্যে ৩০ টি রুট মঞ্জুর করা হয়েছে। বাকিগুলো পর্যায়ক্রমে অনুমোদন করা হবে। বিষ্ণুপুরের পাশাপাশি বাঁকুড়া জেলার বাসস্ট্যান্ডের উন্নতিকল্পে ৭০ লক্ষ এবং খাতড়ার জন্য ২ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে। সঙ্গে দক্ষিণবঙ্গের পরিবহন দপ্তরের প্রশংসা করতে ভুললেন না তিনি।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

বললেন,উত্তরবঙ্গের মালদহ এবং দক্ষিণবঙ্গের বাঁকুড়া মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ’ প্রকল্পে ভালোই কাজ করেছে। যার জেরে দুর্ঘটনার পরিমান কমেছে। জানালেন, সেজন্যই দুই জেলার পুলিশকে আরো উৎসাহ জোগানোর জন্য গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার মোড়ে মোড়ে সিসিটিভি,ট্রমা অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা সহ আরো প্রয়োজনীয় পরিকাঠামোর উন্নয়ন ঘটানোর প্রতিশ্রুতি দেওয়া হল এদিন। আসলে রাজ্যসরকার পরিবহন ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজিয়ে লোকসভা ভোটের আগে রাজ্যবাসীকে খুশি করতে চাইছেন। সবমিলিয়ে কর্মতৎপরতা তুঙ্গে রয়েছে পরিবহন দপ্তরে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!