এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বড়সড় ক্ষতি ভারতের রাজনীতিতে, চলে গেলেন সুষমা স্বরাজ

বড়সড় ক্ষতি ভারতের রাজনীতিতে, চলে গেলেন সুষমা স্বরাজ

এ যেন ভারতবর্ষের রাজনীতিতে নক্ষত্র পতন হল। সবাইকে বিদায় জানিয়ে ইহলোক ছেড়ে পরলোকে গমন করলেন সুষমা স্বরাজ। তার নামের পাশে কোনো বিজেপি নেত্রী বা প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী শব্দ লাগানোর প্রয়োজন নেই। কারণ তিনি সকলের কাছে নয়নের মনি ছিলেন। জীবনের শেষ সময়টুকুও রাজনীতির মধ্যে দিয়ে কাটিয়েছিলেন সুষমা স্বরাজ।

সম্প্রতি কেন্দ্রের মোদি সরকার 370 ধারা অনুচ্ছেদ বিলোপ করেছে। সেজন্য মঙ্গলবার সন্ধ্যায় 7 টা 23 মিনিটে প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়ে টুইটও করেছিলেন সুষমাদেবী। আর এর কয়েক ঘন্টার মধ্যেই আচমকা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত হন দেশের প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী।

জানা যায়, রাত সাড়ে আটটা নাগাদ বুকে ব্যথা নিয়ে দিল্লির এইমসে ভর্তি হন তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল 67 বছর। বস্তুত, রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের ছাত্র সংগঠন এবিভিপির সদস্য হিসেবে নিজের রাজনৈতিক জীবন শুরু করে জরুরি অবস্থার পরবর্তীকালে বিজেপিতে যোগ দেন প্রয়াত এই বিজেপি নেত্রী। পরে 1977 সালে বিজেপি হরিয়ানায় ক্ষমতা দখল করলে প্রথম 27 বছরে শিক্ষামন্ত্রী হন সুষমা স্বরাজ। এরপর আর তাকে ফিরে তাকাতে হয়নি।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

1990 সালে রাজ্যসভার সাংসদ হিসেবে জাতীয় রাজনীতিতে পা রাখেন। 1998 সালে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী হন। কিন্তু পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির ঘটনায় সরকার পড়ে যাওয়ায় জাতীয় রাজনীতিতে ফিরে গিয়ে অটল বিহারী বাজপেয়ীর আমলে তথ্য সম্প্রচার মন্ত্রী এবং পরবর্তীতে স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দায়িত্ব সামলান সুষমা স্বরাজ।

পরবর্তীতে 2009 থেকে 2014 সাল পর্যন্ত লোকসভার বিরোধী দলনেতার দায়িত্ব সামলে 2014 সালে মোদী সরকার আসার পর বিদেশমন্ত্রী হন তিনি। যেখানে বিদেশ মন্ত্রী হিসেবে তার কাজ ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের নয়া উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছিল বলে দাবি বিশ্লেষকদের। যার জন্য মার্কিন সংবাদমাধ্যমের কাছে তিনি “সুপার মম” হিসেবেও অভিহিত হয়েছিলেন। আর এহেন বাঙ্মিতার অধিকারী তথা বিশিষ্ট রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের হঠাৎই চলে যাওয়াতে হতবাক রাজনৈতিক মহল।

এদিন এই প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি টুইট করে বলেন, “সুষমা স্বরাজ দুর্দান্ত বক্তা এবং অসাধারণ সাংসদ ছিলেন। দল নির্বিশেষে তার গ্রহণযোগ্যতা ছিল।” অন্যদিকে ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে সুষমা স্বরাজের মৃত্যুর খবর পেয়ে হতবাক হয়ে যান কংগ্রেসের রাহুল গান্ধী। তিনি বলেন, “খবরটা শুনে আমি স্তম্ভিত। অসাধারণ নেত্রী ও ভালো বক্তা ছিলেন। সকলের কাছে তার গ্রহণযোগ্যতা ছিল।”

অন্যদিকে একইভাবে অতীতের সমস্ত স্মৃতি তুলে ধরে প্রয়াত নেত্রীর সাথে তাঁর সম্পর্কের কথা লিখে ট্যুইট করেন তৃণমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। সব মিলিয়ে আজ বুধবার দুপুর তিনটেয় পঞ্চভূতে বিলীন হয়ে যাবেন ভারতবর্ষের রাজনীতির অন্যতম স্তম্ভ সুষমা স্বরাজ। ভারতবাসী যার গভীর শূন্যতা পরতে পরতে অনুভব করছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!