এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > রাফালের দাম নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের নতুন নির্দেশে কি ব্যাকফুটে প্রধানমন্ত্রী? বাড়ছে জল্পনা

রাফালের দাম নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের নতুন নির্দেশে কি ব্যাকফুটে প্রধানমন্ত্রী? বাড়ছে জল্পনা

কেন্দ্রীয় সরকারের উদ্বেগকে বাড়িয়ে আগামী ১০ দিনের মধ্যে রাফাল যুদ্ধ বিমানের দাম সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য মুখবন্ধ খামে করে আদালতে পেশ করার নির্দেশ দিলেন সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ। রাফাল যুদ্ধবিমানের দাম প্রকাশ্যে আনতে যে যথেষ্ট আপত্তি রয়েছে মোদীসরকারের তা সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের বিরুদ্ধে সওয়াল তুলে স্পষ্ট করে দিলেন কেন্দ্রের তরফের অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে বেনুগোপাল।

জানালেন,অফিসিয়াল সিক্রেটস আইন অনুযায়ী অনেক কিছুই প্রকাশ্যে আনা যায় না। সংসদেও তাই রাফালের দাম সংক্রান্ত তথ্য জানানো হয়নি। তাহলে কী করে এখন তা প্রকাশ করা সম্ভব? এই প্রেক্ষিতে আদালতে লিখিতভাবে জানাতে বলা হয়েছে প্রকাশ করতে না পারার কারণ উল্লেখ করে। আগামী ১৪ নভেম্বর দীপাবলির ছুটির পরে এই মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে।

আদালত সূত্রে জানা গিয়েছে,গত ১০ অক্টোবর রাফাল মামলার পূর্ববর্তী শুনানির দিন দামের প্রসঙ্গ তোলেনি সুপ্রিম কোর্ট। কেবল যুদ্ধ বিমান কেনার প্রক্রিয়াই মুখবন্ধ খামে করে সরকারকে জানাতে নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রধান বিচারপতি।

কিন্তু আজ বিচারপতি উদয় উমেশ ললিত এবং বিচারপতি কে এম জেসেফের উপস্থিতিতে প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ রাফালের দাম বিষয়ে প্রশ্ন করে সরকারকে চরম অস্বস্তিতে ফেলেন। বিচারপতি রঞ্জন গগৈ আদালতে জমা দেওয়া ৩৬ টি রাফাক যুদ্ধবিমান কেনার সিদ্ধান্তগত প্রক্রিয়া নিয়ে গোপন রিপোর্টের উপর কোনো মন্তব্য করতে ইচ্ছুক নন। তবে কত দামে যুদ্ধবিমানগুলো কেনা হয়েছে তা জানা অত্যন্ত জরুরি বলেই মনে করছেন তিনি। মামলাকারীদের মধ্যে রয়েছেন প্রাক্তন দুই বিজেপি নেতা যশবন্ত সিনহা এবং অরুণ শৌরি।

এদিন,সিবিআই কিংবা সুপ্রিম কোর্টের বিশেষ তদন্ত কমিটির নজরদারিতে দুর্নীতির তদন্ত করার পক্ষে সওয়াল করেন আবেদনকারীদের পক্ষের আইনজীবী প্রশান্ত ভূষণ। তবে সিবিআই-দের দায়িত্বের কথা উঠলেই কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে কটাক্ষ শোনা যায় প্রধান বিচারপতির গলায়। বলেন,”কোন সিবিআই? সিবিআই আগে তাদের ঘর গোছাক। তারপর সেসব নিয়ে ভাবা যাবে!”

উল্লেখ্য,এর আগে লোকসভার বাদল অধিবেশনে রাফাল যুদ্ধবিমান ইস্যুতে মোদীসরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল তুলেছিলেন জাতীয় কংগ্রেস সুপ্রিমো রাহুল গান্ধী। এই ইস্যুকে হাতিয়ার করে বিজেপি সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে উঠে পড়ে লেগেছিল কংগ্রেস। এখনও এই ইস্যুতে মোদীসরকারকে কাঠগড়ার তুলতে রীতিমতো সক্রিয় কংগ্রেস।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

তারপর সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের জেরে উদ্বিন্ন অবস্থা মোদী-শাহর। লোকসভা ভোটের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে এই ইস্যুটাকেই যে বিরোধীরা বিজেপিকে আক্রমণ করার প্রধান অস্ত্র বানিয়েছে তা আর বুঝতে বাকি নেই পদ্মশিবির কর্তাদের। এর পাশাপাশি সিবিআই-দের অন্তর্দ্বন্দ্বও বিরোধীদের বিজেপি আক্রমণের অন্যতম প্রধান অস্ত্র হয়েছে। এরকম পরিস্থিতিতে বিরোধীদের কীভাবে মোকাবিকা করা সম্ভব হবে,তা নিয়ে ব্যাপক চাপে রয়েছেন পদ্মশিবির কর্তারা,এমনটাই মনে করছেন ওয়াকিবহালমহল।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!