এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > সুপারস্টারদের সুপার পাওয়ারেই কি করিমপুরের ভাগ্য নির্ধারণ? প্রচারে ঝড় বিজেপি-তৃণমূল 2 শিবিরেই

সুপারস্টারদের সুপার পাওয়ারেই কি করিমপুরের ভাগ্য নির্ধারণ? প্রচারে ঝড় বিজেপি-তৃণমূল 2 শিবিরেই

 

আগামী 25 নভেম্বর করিমপুর বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচন। তাই তার আগে শেষ মুহূর্তে প্রচারে ঝড় তুলতে ইতিমধ্যেই সমস্ত রাজনৈতিক দলের হেভিওয়েটরা ময়দানে নেমে পড়েছেন। 2016 সালে এই করিমপুর বিধানসভা কেন্দ্রে জয়লাভ করেছিল তৃণমূল কংগ্রেস। তবে এবার সেখানকার উপনির্বাচনে তৃণমূল যেমন নিজেদের কেন্দ্র নিজেদের হাতে রাখার চেষ্টা করছে, ঠিক তেমনই বিরোধী দল বিজেপি তৃণমূলের কাছ থেকে এই কেন্দ্র নিজেদের দখলে আনতে মরিয়া হয়ে উঠেছে।

স্বাভাবিকভাবেই একটি নির্বাচনে রাজনৈতিক হেভিওয়েট নেতাদের প্রচারে দেখা যাবে, এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু বর্তমান সময়ে রাজনৈতিক নেতাদের যেমন প্রচারে দেখা যায়, ঠিক তেমনই প্রার্থীদের সমর্থনে প্রচারে অবতীর্ণ হতে দেখা যায় সেলেব মহলকেও। সোমবার তৃণমূল এবং বিজেপি দুই দলই সেই এক ঝাঁক অভিনেতা-অভিনেত্রীকে নিয়ে এসে প্রচারে ঝড় তুলল করিমপুরে।

জানা যায়, এদিন তৃণমূল প্রার্থী বিমলেন্দু সিংহ রায়ের হয়ে করিমপুরে প্রচারে আসেন বিশিষ্ট অভিনেতা সোহম চক্রবর্তী। করিমপুর 2 ব্লকের ধোড়াদহ গ্রামের একটি ফুটবল মাঠ থেকে তৃণমূলের এই রোড শো শুরু হয়। যেখানে উপস্থিত ছিলেন অভিনেতা সোহম চক্রবর্তী, তৃণমূল প্রার্থী বিমলেন্দু সিংহ রায়, করিমপুরের ভূতপূর্ব তৃণমূল বিধায়িকা তথা কৃষ্ণনগরের সাংসদ মহুয়া মৈত্র সহ প্রচুর তৃণমূল নেতাকর্মীরা। তৃণমূলের এই রোড শো শেষ হয় মহিষবাথান রোডে।

তবে একটি রোড শো শেষ করে সোহম চক্রবর্তী করিমপুর 1 ব্লকের হোগলবাড়িয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের বিভিন্ন জায়গায় রোড শো শুরু করেন। যা শেষ হয় সুন্দলপুরে। আর তৃণমূল প্রার্থীর হয়ে প্রচারে আসা সোহম চক্রবর্তীকে দেখতে এদিন সাধারণ মানুষের মধ্যে উৎসাহ-উদ্দীপনা চরমে উঠেছিল। রাস্তার দু’ধারে প্রচুর মানুষ মোবাইলের ক্যামেরায় গোটা ঘটনা বন্দি করার চেষ্টা করছিলেন। এদিন রোড শো করতে করতে সাধারণ মানুষের উদ্দেশ্যে আবেদন জানিয়ে সোহম চক্রবর্তী বলেন, “দিদির উন্নয়নের জন্য আপনারা তৃণমূলকে ভোট দিন।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

 

তবে তৃণমূল যখন সোহম চক্রবর্তীকে ময়দানে নামিয়ে বাজিমাত করতে চাইছে, ঠিক তখনই পিছিয়ে নেই গেরুয়া শিবিরও। এদিন করিমপুরের বিজেপি প্রার্থী জয়প্রকাশ মজুমদারের হয়ে রোড শো করেন বিজেপি নেতা রাহুল সিনহা। যেখানে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট অভিনেত্রী অঞ্জনা বসু, দেবিকা মুখোপাধ্যায়, ভারতী ঘোষ, রুপা ভট্টাচার্য সহ একঝাঁক কলাকুশলীরা। বালিয়াডাঙ্গা থেকে শুরু হওয়া বিজেপির এই রোড শো শেষ হয় গোয়াস এলাকায়।

এদিন দলীয় প্রার্থীর সমর্থনে প্রচারে এসে তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হন বিজেপির রাহুল সিনহা। তিনি বলেন, “রাজ্যে যে সরকার চলছে, তা তোলাবাজির সরকার। এই সরকার দুর্নীতির সরকার। এই সরকারের আমলে কোনো উন্নয়ন হয়নি। কৃষকেরা আত্মহত্যা করছে। এই বিধানসভা উপনির্বাচনে যে তিনটি কেন্দ্রে নির্বাচন হচ্ছে, সেই তিনটি আসনে আমরা জিতব। এই নির্বাচনে বর্তমান সরকারের কোনো পরিবর্তন হবে না। তবে 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনের জন্য রাজ্যের মানুষের কাছে একটা বার্তা যাবে। অনেক নেতা, মন্ত্রী আজকে দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত। তাদের জন্য আগামীদিনে জেলযাত্রা নিশ্চিত। এনআরসি নিয়ে সবাই মানুষকে ভুল বোঝাতে শুরু করেছেন। অনুপ্রবেশকারী ছাড়া কোনো মানুষকে বাইরে যেতে হবে না। তাই দেশের স্বার্থে, মানুষের স্বার্থে করিমপুরের মানুষ বিজেপিকে ভোট দেবেন।”

সব মিলিয়ে এবার করিমপুর দখলে একে অপরকে টেক্কা দিতে প্রচারে তৃণমূল এবং বিজেপি দুই দলই হেভিওয়েট নিয়েসে বাজিমাতের আপ্রাণ চেষ্টা করল। তবে শেষ পর্যন্ত ভোটবাক্সে কারা বাজিমাত করে, এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!