এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > সাবাশ কমরেড! সাংবাদিকদের প্রশ্নে মেজাজ হারিয়ে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি থেকে অশ্লীল বার্তা – সবই দিলেন বিমান বসু

সাবাশ কমরেড! সাংবাদিকদের প্রশ্নে মেজাজ হারিয়ে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি থেকে অশ্লীল বার্তা – সবই দিলেন বিমান বসু



ফের সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মেজাজ হারিয়ে বেফাঁস মন্তব্য করে বসলেন বামফ্রন্টের চেয়ারম্যান বিমান বসু। সূত্রের খবর, গত কাল সকাল ১১ টায় বীরভূমের তারাপীঠের ফুলিডাঙা বাসস্ট্যান্ড থেকে একটি সম্প্রীতি পদযাত্রার সূচনা করেন বিমান বসু।

সেখানে উপস্থিত ছিলেন বাম পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তী, ফরওয়ার্ড ব্লকের সম্পাদক নরেন চট্টোপাধ্যায়, সিপিএম নেতা মিহির বাইন সহ অন্যান্যরা। আর এই পদযাত্রা শেষে রামপুরহাট শহরের পাঁচমাথায় বক্তব্য রাখতে ওঠেন বিমান বসু।

জানা যায়, এদিন বিমান বসু যখন মঞ্চে বক্তব্য রাখছিলেন তখনই কীর্নাহারের এক প্রবীণ সিপিএম সমর্থক সেই বিমান বসুর সঙ্গে সেলফি তোলার আবেদন জানিয়ে মঞ্চে উঠতেই রেগে যান বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান।

দেখা যায়, ক্ষিপ্ত হয়ে এই প্রবীণ দলীয় সমর্থকের মোবাইলটি কেড়ে নিয়ে তাকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে মঞ্চ থেকে নেমে যেতে বলেন বিমান বসু। আর এরপরই মাইকের সামনে তিনি বলেন, “সেলফি তুলতে আসছে।” আর বিমান বসুর এহেন আচরণ দেখে তাজ্জব বনে যান উপস্থিত বামেদের অনেক নেতাকর্মী।

অনেকেই কটাক্ষ করে বলেন, যে দলের নিজেদের সর্বহারা বলে পরিচয় দেন সেখানে সেই রাজ্যের সর্বোচ্চ বাম নেতার এহেন আচরণ মানুষ আদৌ ভালো চোখে নিল কি? একাংশের মতে, বর্তমানে এই রাজ্যে সিপিএমের যা অবস্থা তাতে নেতাদের সঙ্গে প্রবীণ সমর্থকদের সেলফি তোলা তুলতে যাওয়াটা ঠিক হয়নি।

কিন্তু রাজ্য বামফ্রন্টের চেয়ারম্যান বিমানবাবুও যে এত তাড়াতাড়ি ক্ষিপ্ত হয়ে যাবেন তা বুঝতে পারেনি কেউই। তবে শুধু দলের প্রবীণ সমর্থককে ঘাড় ধাক্কা দেওয়াই নয়, এদিন সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরেও কার্যত এক অশ্লীল মন্তব্য করে বসেন বিমান বসু।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

রাজ্যের মোদি বিরোধী জোটে আদৌ কি বামফ্রন্ট থাকবে? এদিন এই প্রসঙ্গে রাজ্য বামফ্রন্টের চেয়ারম্যান বলেন, “যারা বিজেপির সঙ্গে বোঝাপড়া করে কাজ করে তাদের সঙ্গে বিরোধী জোট গড়ে তোলা সম্ভব নয়।” অন্যদিকে এদিন বিজেপির রথযাত্রা ও আগামী 19 শে জানুয়ারি দেশের সমস্ত বিরোধী দলকে নিয়ে কলকাতায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডাকা ব্রিগেড সমাবেশেরও প্রবল কটাক্ষ করেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান।

বিজেপির রথযাত্রা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “কোর্ট অর্ডার দিলেই রথ হবে। তবে এখনও চূড়ান্ত কোনো রায় ঘোষণা হয়নি। ওঁরা (বিজেপি) অনেক ভুলভাল বলে ফেলে। তাই এখন চুপচাপ থাকতে বলা হয়েছে। কারণ অনেকে আছে যাদের মাথায় আবার অক্সিজেন কম যায়। ওরা পাথর খাওয়াচ্ছে, বিক্রি করছেন, পাচন দিচ্ছে। এখন পাচনের রাজনীতি হচ্ছে।”

কিন্তু আগামী 19 জানুয়ারি দেশের সমস্ত বিজেপি বিরোধী দলগুলোকে নিয়ে ডাকা তৃণমূলের ব্রিগেড সমাবেশে যদি কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব তাঁদের থাকার নির্দেশ দেয় তাহলে কি তারা থাকবেন? এদিন সাংবাদিকদের এহেন প্রশ্নের উত্তরেই মেজাজ হারিয়ে ফেলেন বিমান বসু।

সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, “আপনাদের কাজই হচ্ছে আলপিন সঙ্গে নিয়ে ঘোরা। আলপিনটা নিজের পাছায় লাগান। আমি কোনো প্রশ্নের উত্তর দেবো না। আপনাদের আলপিন বাজি আছে।”

সমালোচকদের মতে, এর আগেও কংগ্রেস এবং তৃণমূলকে নিয়ে অশ্লীল মন্তব্য করে বিতর্কে জড়িয়েছিলেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান। কিন্তু গণতন্ত্রের অন্যতম স্তম্ভ সংবাদমাধ্যমের উদ্দেশ্যে এহেন মন্তব্য করে ফের নিজেদের উগ্রতারই পরিচয় দিলেন বামেদের সর্বহারার কমরেড বলে পরিচয় দেওয়া প্রবীণ নেতা বিমানবাবু। অনেকে কটাক্ষ করে বলছেন, রাজ্যপাট চলে গেলেও মেজাজ এখনও কমেনি বাম নেতাদের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!