এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > নিহতদের ‘আত্মার শান্তির’ জন্য গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব ভুলে এক হয়ে লড়াই চান তৃণমূলের মন্ত্রী

নিহতদের ‘আত্মার শান্তির’ জন্য গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব ভুলে এক হয়ে লড়াই চান তৃণমূলের মন্ত্রী

আগামী পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূলের সব পক্ষকে এক গোষ্ঠীভুক্ত করে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে লড়াই করলেই নির্বাচনের সব আসন পাওয়া যাবে এবং তাতে সিপিএমের হাতে নিহত শহিদদের আত্মার শান্তি হবে, বৃহস্পতিবার বিকেলে পুরশুড়ার বটতলা এলাকায় শহিদ দিবসের অনুষ্ঠানে এমনই বার্তা দিলেন রাজ্যের মন্ত্রী তথা তৃণমূলের হুগলি জেলার কার্যকরী সভাপতি অসীমা পাত্র। পাশাপাশি অন্যান্য দলকেও কটাক্ষ করতে ভোলেননি তিনি। তৃণমূল রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর থেকে প্রতিবছরই ১৪ ডিসেম্বর পুরশুড়া ব্লক তৃণমূলের পক্ষ থেকে শহিদদের স্মৃতি রক্ষার্থে স্মরণসভার আয়োজন করা হয়। এদিন স্মরণসভায় উপস্থিত দলীয় নেতা-কর্মীরা বুকে কালো ব্যাজ লাগিয়ে শহিদ বেদিতে শ্রদ্ধা জানান। দলের পক্ষ থেকে নিহতদের সমবেদনা জানানো হয়।
এদিন অসীমাদেবী বলেন,পূর্বতন শাসক সিপিএমের সময় তৃণমূলের প্রায় ৫০ জন কর্মীকে নিহত হতে হয়েছিল। তাদের বন্দুকের ডগায় শুধু কর্মী পরিজনই নয় সাধারণ মানুষেরও জীবন নষ্ট হয়েছিল। ক্ষমতার পরিবর্তনের পর একজনেরও মৃত্যু হয়নি, কারণ মুখ্যমন্ত্রী বদলা নয় বদলের নীতিতে বিশ্বাসী। তিনি আরও বলেন, যারা একদিন মানুষের প্রকল্পের টাকাকে লুটেপুটে খেয়েছিলো আজ তারাই গেরুয়া রঙের আশ্রয় নিয়ে অন্য দলের ঝান্ডা ধরে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এদিন তিনি বার বার সিপিএমের পাশাপাশি বিজেপিকেও নিজের কড়া ভাষায় বিঁধেছিলেন। তিনি বলেন, আমাদের মুখ্যমন্ত্রীকে বাংলার শাসনপদ থেকে সরানোর জন্য বিজেপি, সিপিএম, কংগ্রেস একসঙ্গে জোট বেঁধে চক্রান্ত করছে। কিন্তু এই জোটকে যোগ্য জবাব দেবার জন্য দলের সবাইকে একত্রিত হতে হবে। প্রসঙ্গত পুরশুড়া বিধানসভা এলাকায় তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দলের কারণে লড়াই বোমাবাজির ঘটনার দৃষ্টান্ত অনেক। এমনকি কর্মীদের এর জন্য ঘর পর্যন্ত ছাড়তে হয়েছে। তাই পঞ্চায়েত ভোটের মুখে দলকে একজোট হয়ে কাজ করবার বার্তা দেন অসীমাদেবী।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!