এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > পার্শ্ব শিক্ষকদের পাশে দাঁড়িয়ে রাজ্য সরকারকে তীব্র আক্রমণ প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদের, জোর শোরগোল

পার্শ্ব শিক্ষকদের পাশে দাঁড়িয়ে রাজ্য সরকারকে তীব্র আক্রমণ প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদের, জোর শোরগোল

 

সল্টলেকে পার্শ্ব শিক্ষকদের অনশন এখন চরম আকার ধারণ করেছে। হাইকোর্টের অনুমতি নিয়ে গত সাতদিন ধরে 35 জন পার্শ্বশিক্ষক তাদের অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকজন অসুস্থ হয়ে গিয়েছেন। মারা গিয়েছেন রেবতী রাউত নামে এক শিক্ষিকা। আর এই পরিস্থিতিতে একমাত্র শাসক দল ছাড়া বিভিন্ন সংগঠন থেকে শুরু করে বিরোধী রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিরা সেই পার্শ্ব শিক্ষকদের অনশন মঞ্চে এসে তাদের পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন।

সরকারের মানবিকতার অভাব নিয়ে অনেকে নানা প্রশ্ন তুললেও এখনও পর্যন্ত সরকারকে সেইভাবে এই অনশন নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে দেখা যায়নি। আর এই পরিস্থিতিতে এবার তৃণমূলের প্রাক্তন সাংসদ তথা বর্তমান বিজেপি নেতা এবং পেশায় অধ্যাপক অনুপম হাজরা যোগ দিলেন পার্শ্ব শিক্ষকদের অনশন মঞ্চে। যেখানে এসে নিজের প্রাক্তন দল তৃণমূল কংগ্রেস ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মন্তব্য করতে দেখা গেল তাঁকে।

রাজ্যের শাসকদলের মানবিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলার পাশাপাশি কেন এইভাবে পার্শ্ব শিক্ষকরা বঞ্চনার শিকার হচ্ছেন, সেই ব্যাপারেও সরব হন এই বিজেপি নেতা। সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার অনশন মঞ্চে উপস্থিত হয়ে অনুপম হাজরা বলেন, “আমি এখানে এসেছি অধ্যাপক হিসেবে। আমি আগে অধ্যাপক, পরে রাজনীতিবিদ। এই ঘটনা শুনেই তাই আমি ছুটে এসেছি। রাজ্য সরকারের লাঞ্ছনা-বঞ্চনা সারা ভারত দেখছে। অধ্যাপকদের এখন অনশনে বসতে হচ্ছে। এর থেকে লজ্জার কিছু হয় না।”

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

বেতন বৈষম্য নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে বিজেপি নেতা বলেন, “বাইরের রাজ্যে আমার চেনাশোনা বন্ধু-বান্ধবদের বেতন যেখানে কম করে 30 হাজার টাকা, সেখানে এই রাজ্যে একই পদে থেকেও পার্শ্বশিক্ষকদের মাইনে 13 কিংবা 25000 টাকা দেওয়া হচ্ছে। এখন পার্শ্বশিক্ষকদের থেকে একজন টোটোওয়ালা বেশি টাকা ইনকাম করে।” নিজের প্রাক্তন নেত্রী তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করে অনুপম হাজরা বলেন, “মমতা নামে দয়া মায়া আছে। কিন্তু আমাদের মুখ্যমন্ত্রীর কোনো দয়া মায়া কিছু নেই। যেন-তেন প্রকারেণ তিনি বিরোধী মতকে দমন করতে চান। এখন কোর্টের নির্দেশ আছে বলেই আপনারা আন্দোলন করতে পারছেন। নয়তো আপনাদের পিটিয়ে মেরে ফেলত।”

আজ বেতন বৈষম্য নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে বিজেপির অনুপম হাজরার এহেন সরকারবিরোধী আক্রমণ রাজ্যের শাসকদলের বিড়ম্বনাকে বাড়িয়ে দিল বলেই মনে করছে একাংশ। এদিন এই পার্শ্ব শিক্ষকদের অনশন মঞ্চে উপস্থিত হয়ে গোটা ব্যাপারটি কেন্দ্রীয় মানবাধিকার কমিশনের সচিবের কাছে পৌঁছে দেওয়ার আশ্বাস দেন অনুপম হাজরা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পার্শ্ব শিক্ষকদের অনশন সরকারের অস্বস্তিকে এমনিতেই বাড়িয়ে দিয়েছে। ইতিমধ্যেই নানা সংগঠন থেকে শুরু করে বিরোধীরা, সেই অনশন মঞ্চে এসে পার্শ্বশিক্ষকদের পাশে দাঁড়িয়ে সরকারের বিরুদ্ধে মন্তব্য করেছেন। আর এবার তৃণমূলের প্রাক্তন সাংসদ তথা বিজেপি নেতা এবং পেশায় অধ্যাপক অনুপম হাজরা সরকারের বিরুদ্ধে মন্তব্য করে শোরগোল তুলে দিলেন বলে দাবি বিশেষজ্ঞদের। তবে এতকিছুর পরেও পার্শ্বশিক্ষকদের ব্যাপারে সরকারের কোনো নরম মনোভাব প্রকাশ পায় কিনা, এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!