এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বর্ধমান > দুসপ্তাহেই মেয়াদ শেষ তবুও নির্বাচনের পথে যাচ্ছে না রাজ্য সরকার- ক্রমশ বাড়ছে জল্পনা

দুসপ্তাহেই মেয়াদ শেষ তবুও নির্বাচনের পথে যাচ্ছে না রাজ্য সরকার- ক্রমশ বাড়ছে জল্পনা

মেয়াদ শেষ হতে কোথাও বা দু সপ্তাহ আবার কোথাও বা 23 দিন রয়েছে। অথচ ভোটের কোনো নামগন্ধই নেই বর্ধমান এবং গুসকরা পুরসভায়। ওয়ার্ডভিত্তিক চূড়ান্ত সংরক্ষন তালিকা প্রকাশিত হলেও ভোট নিয়ে সরকারের তরফে কোনো হেলদোল না থাকায় ধন্দে এই দুই পুরসভার কাউন্সিলর থেকে নাগরিকেরা। কিন্তু যদি মেয়াদ শেষের পরেও ভোট না হয় তবে সেখানে দ্বায়িত্ব নেবেন প্রশাসকেরা। ফলে ইনকাম সার্টিফিকেটের মত বিভিন্ন কাগজ পেতে হয়রানির স্বীকার হতে হবে নাগরিকদের।

কেননা, জনপ্রতিনিধি ছাড়া এই ইনকাম সার্টিফিকেট, স্কলারশিপ ফর্মে সই করতে পারেন না সরকারি প্রশাসকেরা। তাই এখন এই দুই পুরসভার বাসিন্দারা চাইছেন যে মেয়াদ শেষের আগেই জারি হোক ভোটের বিজ্ঞপ্তি। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, 35 আসনবিশিষ্ট সবকটিই নিজেদের দখলে রেখে গত 2013 সালের 23 অক্টোবর বর্ধমান পুরসভায় চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং কাউন্সিলর পদে শপথ নেন তৃনমূলের সদস্যরা। হিসেবমত চলতি বছর 22 অক্টোবর এই বোর্ডের মেয়াদ শেষের আগেই এখানে পুরভোট হওয়ার কথা। কিন্তু এখনও ভোটের কোনোরূপ বিজ্ঞপ্তে জারি হয়নি। ফলে 22 অক্টোবর থেকে এই পুরসভার দ্বায়িত্ব প্রশাসকের হাতে যাওয়ার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

অন্যদিকে একই অবস্থা 16 আসনবিশিষ্ট গুসকরা পুরসভারও। 11 টি আসন পেয়ে গত 2013 র 3 নভেম্বর এইখানে বোর্ড গঠন করে তৃনমূল কংগ্রেস। ফলে সেখানেও ভোটের কোনো বিজ্ঞপ্তি জারি না হওয়ায় পুরভোট নিয়ে ধন্দে রয়েছেন অনেকেই। তবে তারাতারি ভোট হ্ওয়ার পক্ষে এদিন সওয়াল করেন গুসকরা পুরসভার পূর্ত বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি নিত্যানন্দ চট্টোপাধ্যায়। সব মিলিয়ে এখন মেয়াদ শেষের আগেই রাজ্যের আসন্ন পুরসভাগুলির ভোট হবে না কি তা প্রশাসকের হাতে যাবে তা নিয়ে জনসাধারনের মনে তৈরি হয়েছে বড় প্রশ্নচিহ্ন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!