এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > ‘উন্নয়ন’ দেখাতে গিয়ে এবার আইনের প্যাঁচে দুই বিধায়ক সহ কংগ্রেস সাংসদ, তীব্র ক্ষোভ

‘উন্নয়ন’ দেখাতে গিয়ে এবার আইনের প্যাঁচে দুই বিধায়ক সহ কংগ্রেস সাংসদ, তীব্র ক্ষোভ

কংগ্রেসের বিরুদ্ধে মামলা করলো রাজ্য সরকার। জানা গেছে যে মালদহের চাঁচলে অসম্পূর্ণ স্টেডিয়াম উদ্বোধন কাণ্ডের জেরেই এই মামলা। ঘটনা হলো উত্তর মালদহের সাংসদ মৌসম নুর ২৪ ডিসেম্বর ওই স্টেডিয়ামের উদ্বোধন করেন। চাঁচল ও মালতীপুরের দুই বিধায়ক, চাঁচল গ্রাম পঞ্চায়েতের কংগ্রেস প্রধান সহ হাজির ছিলেন ব্লক কংগ্রেস নেতারাও উপস্থিত ছিলেন অনুষ্ঠানে। আর এরপরেই তিনটি ধারায় মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। সরকারি জমিতে অবৈধ জমায়েত, সরকারি প্রতিষ্ঠানে জোর করে অনুষ্ঠান ও অনুমতি না নিয়ে মাইকের ব্যবহার এই তিনটি অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা করা হয়েছে বলে জানা গেছে। আর ঘটনাকে কেন্দ্র করেই কংগ্রেস বনাম প্রশাসনের দ্বন্দ্ব কার্যত প্রকাশ্যে এসে পড়েছে। এদিকে কংগ্রেসের তরফ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে যে শাসকদলের নির্দেশেই এমনটা করেছে প্রশাসন। যদিও কংগ্রেসের ওই অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছে প্রশাসনের কর্তারা। এদিন চাঁচলের মহকুমাশাসক দেবাশিস চট্টোপাধ্যায় বলেন সরকারি জায়গায় বিনা অনুমতিতে দলীয় অনুষ্ঠান করা যায় না, বিষয়টি বিডিও দেখছেন।

পাল্টা দিয়ে চাঁচল-১ ব্লক কংগ্রেস সভাপতি ইন্দ্রনারায়ণ মজুমদারের দাবি করেন সাংসদের প্রতিনিধি হয়ে আমরা পুলিশের কাছে অনুমতি চেয়ে চিঠি দিয়েছিলাম। কিন্তু ছুটি থাকায় প্রশাসনের তরফে পরে অনুমতি দেওয়া হবে বলে জানিয়েছিল, কিন্তু তা আর দেয়নি। তা ছাড়া এই অনুষ্ঠান ব্লক কংগ্রেস করেনি। বিধায়ক, প্রধান ছাড়াও মহকুমা ক্রীড়া সংস্থার প্রতিনিধিরাও হাজির ছিলেন। বিডিওর বক্তব্য হলো, শুধু অনুমতি চেয়ে চিঠি দিলেই তো হয় না, অনুমতি মেলা ছাড়া সেটা করা অবৈধ। ব্লক কংগ্রেস অবৈধভাবে অনুষ্ঠান করায় ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ মেনে ওই মামলা করা হয়েছে। সাংসদ মৌসম অবশ্য সরাসরি গোটা ঘটনার পিছনে শাসকদলের মদত রয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছেন। তিনি বলেন যে প্রশাসনকে আর কী দোষ দেব? তারা তো শাসকদলের নির্দেশ মেনে চলতে বাধ্য। উন্নয়ন দেখে ওদের গাত্রদাহ হচ্ছে বলে প্রশাসনকে ব্যবহার করে বিপাকে ফেলতে চাইছে। এসব না করে ওদের শুভবুদ্ধি হোক এটাই কামনা করব। অবশ্য তাঁর এই অভিযোগ মানতে নারাজ জেলা তৃণমূল সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন। তিনি উল্টে দাবি করে বলেন আমরা প্রশাসনের কাজে নাক গলাতে যাব কেন? কোনটা ঠিক, কোনটা নয়, সেটা কি সাংসদ জানেন না? ওখানে কী হয়েছে সেটা মানুষও দেখেছেন। ঘটনার পুলিশ তদন্ত করছে আর খুব শীঘ্রই আসল ঘটনা জানা যাবে বলে পুলিশ সূত্রে দাবি।

Top
error: Content is protected !!