এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > এবার মদ বিরোধী বৃহত্তর আন্দোলনে রাজ্য সরকারের ঘুম ওড়াতে চায় বিজেপি – জানুন বিস্তারিত

এবার মদ বিরোধী বৃহত্তর আন্দোলনে রাজ্য সরকারের ঘুম ওড়াতে চায় বিজেপি – জানুন বিস্তারিত

এবার লোকসভা ভোটের আগে রাজ্যসরকারকে ফের চাপে ফেলতে কোচবিহারে মদ বিরোধী আন্দোলনে জোরদার করতে আসরে নামল বিজেপি যুব মোর্চা। কিন্তু তাতে খুব একটা সফল হল না বিজেপি। এদিনও ‘মদ নয়,শিল্প চাই’ এই শ্লোগান তুলে হাতে মোটা বাঁশে বাঁধা দলীয় পতাকা নিয়ে মিছিলে সামিল হন হাজার হাজার বিজেপি যুব মোর্চার কর্মীরা।

দলের জেলা কার্যালয় থেকে মিছিল করে শহর পরিক্রমা করে তাঁরা। কিন্তু আগাম জানিয়ে রাখা সত্ত্বেও এদিন স্মারকলিপি জমা দিতে গিয়ে অফিসে কোনো প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের উপস্থিত না থাকতে দেখে হতাশ হলেন বিজেপি যুব মোর্চার কর্মীরা। নিরুপায় হয়ে দপ্তরেই দাবীপত্র জমা দিতে হয়েছে তাঁদেরকেই।

যুব মোর্চার নেতৃত্ব দাবীতে জানিয়েছেন,আগাম বলে রাখা সত্ত্বেও এদিন স্মারকলিপি জমা দিতে গিয়ে অফিসে কোনো পদাধিকারীর দেখা মেলেনি। সেকারণেই দপ্তরেই তাঁদের দাবীপত্র জমা করতে হয়েছে। দাবীতে তাঁরা আরো জানায়,গ্রামেগঞ্জের দেদার মদের দোকান খোলার লাইসেন্স দিয়ে দেওয়ায় মদের ভাটির সংখ্যা দিনের পর দিন বেড়েই চলেছে। আর অত্যন্ত গোপনীয়তার সঙ্গে একাজ করে তরুনপ্রজন্মের মেরুদন্ড ভেঙে দিতে চাইছে রাজ্যসরকার।

এ প্রসঙ্গে একইভাবে শাসকদলকে কাঠগড়ায় তুলে প্রতিবাদে সরব হলেন বিজেপির যুব মোর্চার জেলা সভাপতি সমীর রায়। তিনিও একইভাবে জানান,একের পর এক মদের দোকান খোলার লাইসেন্স দিয়ে রাজ্যের যুবসমাজকে নেশায় বুঁদ করে রাখতে চাইছে রাজ্যসরকার। কিন্তু এটা আর চলতে দেওয়া যাবে না। জেলায় আর একটাও মদের দোকান খুলতে দেবেন না তাঁরা,এমনটাই গর্জে উঠে জানালেন তিনি।

পাশাপাশি আরো জানালেন,জেলায় উন্নয়নের স্বার্থে কোনো শিল্প কারখানা তৈরি হচ্ছে না অথচ মদের দোকান বেড়েই চলেছে। এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধকে আরো শক্তিশালী করতে এবার দলের মহিলা মোর্চার সঙ্গেও কথাবার্তা বলেছেন বলেই জানালেন তিনি। আগামী দিনে প্রয়োজন হলে মহিলাদের সহায়তায় মদবিরোধী বাহিনী তৈরি করা হবে বলেও আশ্বাস দিলেন তিনি।

 

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

তবে যুব মোর্চার মদ বিরোধী আন্দোলনকে তীব্র কটাক্ষ করেছেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী তথা তৃণমূলের জেলা সভাপতি রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। তাঁর বক্তব্য,’ওরা আগে নিজেদেরকে শোধন করুক। তারপী মদ বিরোধী আন্দোলনে নামবে।” উল্লেখ্য,এর আগে ফরওয়ার্ড ব্লকের যুব সংগঠন যুব লিগ রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে মদ বিরোধী আন্দোলনে পথে নেমেছে। এছাড়া এসইউসি প্রভাবিত বিভিন্ন সংগঠনও মাঝেমধ্যেই মদ বিরোধী আন্দোলনে পথে নামে। এবার একই ইস্যুতে আন্দোলনে ঝাঁপিয়েছে বিজেপির যুব মোর্চাও। তবে এই কর্মসূচিতে তেমন সফল হতে পারল না তাঁরা। আবগারি দপ্তরে স্মারকলিপি জমা দিতে গিয়েই নিরাশ হতে হয় তাঁদের।

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের অভিমত,কোচবিহারে একের পর এক কর্মসূচিতে নেমে ব্যর্থ হতে হয়েছে বিজেপি যুব মোর্চাকে। এর জেরে স্বাভাবিকভাবেই দলীয় কর্মীদের আত্মবিশ্বাস ব্যাহত হয়েছে। এই প্রেক্ষিতে দলীয় সংগঠনকে চাঙ্গা করে তুলতেই মদবিরোধী আন্দোলনকে হাতিয়ার করে ময়দানে নামার পরিকল্পনা করেছিল বিজেপি যুব মোর্চা সংগঠন। কিন্তু সে আদৌও ফলপ্রসূ হল কিনা তা নিয়ে রীতিমতো সন্দেহ তৈরি হয়েছে দলীয় অন্দরেই।

সোশ্যাল মিডিয়ার সাহায্য নিয়েও বিজেপি যুব মোর্চা তাঁদের আন্দোলনের প্রচারে সাড়া ফেলতে চাইছে বর্তমানে। কিন্তু দলীয় সাংগঠনিক দূর্বলতার কারণে সেটাও সেভাবে সফল হচ্ছে না বলেই মনে করছেন অভিজ্ঞমহল। এই প্রেক্ষিতে পরবর্তী কোনো ইস্যুভিত্তিক আন্দোলন রাজ্যসরকারের বিরুদ্ধে পথে নামবে বিজেপির এই সংগঠন,আর কীভাবে তাঁদের আন্দোলনকে সফল করা যাবে তা নিয়েই এখন দলীয় অন্দরে ছক কষাকষি চলছে বলেই জানা গিয়েছে বিজেপি সূত্রের খবরে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!