এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > আসছে রাজ্য বাজেট- খরচের খতিয়ান অনুযায়ী এবার বড় সিদ্ধান্তের পথে অর্থমন্ত্রক

আসছে রাজ্য বাজেট- খরচের খতিয়ান অনুযায়ী এবার বড় সিদ্ধান্তের পথে অর্থমন্ত্রক



অবশেষে 2019-20 আর্থিক বছরের জন্য রাজ্যের প্রায় সমস্ত দপ্তর নিজেদের বাজেট বরাদ্দের প্রস্তাব জমা দিল অর্থ দপ্তরের কাছে। সূত্রের খবর, যে সমস্ত দপ্তর নিজেদের বরাদ্দ অর্থের সমস্ত টাকা এখনও খরচ করতে পারেনি তাদের বাজেট বরাদ্দ করা হবে না। অন্যদিকে যে সমস্ত দপ্তরগুলো ভালো কাজ করেছে এবং তাদের সমস্ত অর্থই খরচ করেছে- তাদের বাজেটের বরাদ্দ বাড়ানোর সুর শোনা গেছে অর্থ দপ্তরের গলায়।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য গত 26 অক্টোবর রাজ্যের অর্থ সচিব হরেকৃষ্ণ দ্বিবেদী রাজ্যের সমস্ত দপ্তরের প্রধান সচিবকে চিঠি দিয়ে গত 16 ই নভেম্বরের মধ্যে 2018-19 রং রিভাইজড বাজেট এবং 2019-20 অর্থবছরের জন্য বাজেট বরাদ্দের প্রস্তাব জমা দেওয়ার নির্দেশ দেন। এমনকি এই বাজেট বরাদ্দের তিনি একটি ফরম্যাটও তৈরি করে দেন। যেখানে কোন খাতে কোন দপ্তর কত টাকা খরচ করেছে বা কত পড়ে আছে তার হিসেব দিতে সুবিধা হবে।

জানা গেছে, অর্থ সচিবের জারি করা এই নির্দেশিকা মোতাবেক প্রায় সমস্ত দপ্তর তাদের তথ্য জমা দিলেও এখনও পর্যন্ত চার- পাঁচটি দপ্তর তা জমা দিতে পারেনি। তবে গত 26 শে নভেম্বরের মধ্যে তাদের রিভাইজড এবং নতুন বাজেটের বরাদ্দ প্রস্তাব জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হলে তারা তা ইতিমধ্যেই দিয়েছে বলেই জানা গেছে। কিন্তু এখনও ঠিক কোন কোন দপ্তর তাদের বাজেটের টাকা খরচ করতে পারেনি?

জানা গেছে, রাজ্যের মোট 52 টি দপ্তরের মধ্যে 40 টি দপ্তর তাদের পুরো টাকা খরচ করতে পারেনি। যার ফলে তাদের এবার বাজেটে বরাদ্দের 90 শতাংশ টাকা দেওয়া হবে। অন্যদিকে যে সমস্ত দপ্তর তাদের পুরো টাকা খরচ করতে পেরেছে সেগুলি হল, আবাসন, সেচ, জনসাস্থ্য কারিগরি, পূর্ত, নারী, শিশু ও সমাজকল্যাণ, পুর- নগরোন্নয়ন, জলসম্পদ উন্নয়ন, শিক্ষা, পঞ্চায়েত, স্বাস্থ্য এবং খাদ্য দপ্তর। তাহলে কি রাজ্য বাজেটের দিন আসন্ন?

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

একাংশের মতে, চলতি বছর 31 জানুয়ারি বাজেট পেশ করা হয়েছিল। এবার সেই দিন এগিয়ে আসতে পারে। আর তাই জানুয়ারি মাসের মধ্যেই এই বাজেট তৈরীর কাজ সম্পূর্ণরূপে শেষ করে ফেলতে চান প্রশাসনিক আধিকারিকেরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!