এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > রাজ্যের ২০০ কলেজে নেই এই বিশেষ অনুমোদন! বিস্মিত উচ্চশিক্ষা দপ্তরের বিশেষ পদক্ষেপ

রাজ্যের ২০০ কলেজে নেই এই বিশেষ অনুমোদন! বিস্মিত উচ্চশিক্ষা দপ্তরের বিশেষ পদক্ষেপ

রাজ্যের ৫১৫ টি সরকার পোষিত বা সরকারি কলেজে মধ্যে এখনো ২০০ টি কলেজই ন্যাশনাল অ্যাক্রেডিটেশন অ্যান্ড অ্যাসেসমেন্ট কাউন্সিলের (ন্যাক) অনুমোদন পায়নি। উচ্চশিক্ষা দপ্তরের কাছে জমা পড়া রিপোর্টের ভিত্তিতে উঠে আসা এই তথ্য দেখে চোখ কপালে উঠেছে আধিকারিকদের। অক্টোবরের ১০ তারিখ ন্যাক নিয়ে দপ্তরের আয়োজিত বৈঠকেই এই বিষয়টি প্রকাশ্যে এসেছে।

অনুমোদনহীন যে কলেজগুলোর নাম সামনে এসেছে তার মধ্যে তাদের বেশ কয়েকটির পথ চলা শুরু হয়েছে স্বাধীনতার আগেই। তারপর স্বাধীনতার ৭০ বছর পেরিয়ে গেলেও এখনো অনুমোদনহীনভাবেই পঠনপাঠন চলছে কলেজগুলোতে। ন্যাকের জন্মের (১৯৯৫ সাল) ২৩ বছর পরিয়ে গেলেও শতাধিক কলেজ এখনো অনুমোদনের আওতাতেই এল না। এইসব কলেজগুলো যাতে দ্রুত ন্যাকের অনুমোদনের জন্য আবেদন করে, তার জন্য এবার বিশ্ববিদ্যালয় ভিত্তিক নোডাল অফিসার নিযুক্ত করল উচ্চ শিক্ষা দপ্তর।

চলতি মাসে আয়োজিত উচ্চ শিক্ষা দপ্তরের বৈঠকে ন্যাকের কর্মকর্তারা স্পষ্ট নির্দেশিকা দিয়েছেন, ন্যাকের অনুমোদন না নেওয়া কলেজগুলিকে আগামী বছরের মার্চের মধ্যে সেল্ফ স্টাডি রিপোর্ট (এসএসআর) আপলোড করতে হবে। এই রিপোর্টে সাধারণত উল্লেখ করতে হয় কলেজের সার্বিক অবস্থা,উন্নয়ন সংক্রান্ত সমস্ত খুঁটিনাটি তথ্য। এরপর ন্যাকের প্রতিনিধিদল কলেজ পরিদর্শনে গিয়ে সেই রিপোর্টের সত্যতা মিলিয়ে দেখবেন।

যেসব কলেজ এখনো রিপোর্ট জমা করত পারেনি,তাদের নোডল অফিসাররা এসএসআর তৈরি করতে সাহায্য করবেন বলেও জানিয়ে দিয়েছেন উচ্চশিক্ষা দপ্তরের এক আধিকারিক। তাঁর কথায়, এসএসআর তৈরিতে সাহায্য করার ক্ষেত্রে নোডল অফিসাররা এককথায় মেন্টারের ভূমিকাই পালন করবেন। এরজন্য ছ’দিনেট একটি প্রশিক্ষণ প্রক্রিয়ার আয়োজন করেছে দপ্তরে। প্রতিটি কলেজ থেকে তিনজনকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে এরজন্য।

দপ্তর সূত্রের খবর,কোলকাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের আওতাধীন সবথেকে বেশি কলেজ (৩৫টি) এখনো ন্যাকের ছাড়পত্র নেয়নি। দৌড়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় (২৬টি), বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় (২৪টি)। এছাড়াও বিদ্যাসাগার বিশ্ববিদ্যালয়ের ২১টি, কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের ২১টি এবং রাষ্ট্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৯টি কলেজ ন্যাকের অনুমোদনের বাইরে রয়েছে। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনস্থ ন্যাকের অনুমোদনের জন্য আবেদন না করা কলেজগুলোর মধ্যে রয়েছে ক্ষুদিরাম কলেজ, যোগেশচন্দ্র ল’ কলেজ, মহারানি কাশেশ্বরী কলেজ, বিদ্যাসাগর সান্ধ্য সহ একাধিক কলেজ।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

কোলকাতা ছাড়াও প্রায় সব জেলাতেই ন্যাকের অনুমোদনহীন বহু কলেজই ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। জেলাগুলির মধ্যে শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে উত্তর ২৪ পরগনা (১৯টি)। তারপর কলকাতা (১৬টি), দক্ষিণ ২৪ পরগনা (১৪টি)। উল্লেখ্য,একটি কলেজ শুরু হওয়ার চার বছরের পর থেকে ন্যাকের অনুমোদন করার নিয়ম রয়েছে। কিন্তু যাত্রাশুরুর এতোগুলো বছর কেটে গেলেও অনুমোদন নেয়নি যেসব কলেজগুলো তাদের ব্যাপারে এবার পদক্ষেপ নেওয়ার সঠিক সিদ্ধান্ত নিল উচ্চশিক্ষা দপ্তর।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!