এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > SSC-র নিয়োগ মামলায় কী হল আদালতে দেখে নিন

SSC-র নিয়োগ মামলায় কী হল আদালতে দেখে নিন

দীর্ঘদিন ধরে ঝুলে আছে স্কুল সার্ভিস কমিশনের নিয়োগ প্রক্রিয়া। ২০১৬ সালের লিখিত পরীক্ষা এবং তারপর সফল পরীক্ষার্থীদের ২০১৭ তে ভেরিফিকেশান এবং ইন্টারভিউ প্রক্রিয়া মিটলেও শিক্ষক নিয়োগ- এর শেষ পর্বের প্রক্রিয়াটি কচ্ছপের গতিতে এগোচ্ছে। এ নিয়ে রীতিমতো উদ্বেগে রয়েছে শিক্ষক হতে যাওয়া হাজার হাজার বেকার পরীক্ষার্থী। এদিকে নিয়োগ প্রক্রিয়াতে বাধা সৃষ্ট করছে নানারকম আইনি জটিলতা এবং রাজ্যসরকারের গয়ংগচ্ছ মনোভাব। সম্প্রতি কাউন্সিলিং এর বিজ্ঞপ্তি জারি হলেও তাতেও দেখা দিল নতুন সমস্যা। সরকারের তরফ থেকে বলা হয়েছিলো এই নোটিশ জারির আগে স্কুল সার্ভিস কমিশনের তরফ থেকে সফল প্রার্থীদের একটি তালিকা প্রকাশ করা হবে। কিন্তু তা এখনো প্রকাশ করা হয় নি। ওদিকে এই ইস্যু নিয়ে কোর্টেও মামলা চলছে। এদিন এসএসসির সফল প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে কি না তা নিয়ে কাল রিপোর্ট পেশের নির্দেশ দিল কোলকাতা হাইকোর্ট। হাইকোর্টের বিচারপতি শেখর ববি সারাফ এই নির্দেশ দেন এসএসসি-র আইনজীবী সুতনু পাত্রকে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

প্রসঙ্গত, গতকাল এই মামলাকারীর আইনজীবী আশিষ কুমার চৌধুরীর তরফ থেকে হাইকোর্টকে জানানো হয়েছিলো যে, ২০১৬ সালে স্কুল সার্ভিস কমিশন একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছিলো, তাতে উচ্চ মাধ্যমিক স্কুলগুলোতে ৭৩ হাজার ৫৬৩ জন শিক্ষক ভ্যাকান্সির কথা। সেই মোতাবেক ওই বছরই ২৭ নভেম্বর এবং ৪ ডিসেম্বর লিখিড পরীক্ষা নেওয়া হয়। কিন্তু লিখিত পরীক্ষার সফল প্রার্থীদের তালিকা এখনো প্রকাশ করেনি কমিশন। এরই মধ্যে দেড় মাস আগে আবার এসএসসি-র চেয়ারম্যান পদ থেকে সুবীরেশ ভট্টাচার্যকে সরিয়ে, তাকে উওরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়েরর উপাচার্যের দায়িত্ব দেওয়া হয়।

এদিনের শুনানির দিনও আশিসবাবু আদালতকে বলেন যে, এসএসসি গত ৬ জুলাই কাউন্সিলিং এর যে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে তা সম্পূর্ণই অবৈধ। যুক্তিতে তিনি জানিয়েছেন যে, সফল প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ না করে এসএসসি চাকরি প্রার্থীদের ডাকতে পারে না। কারণ নিয়োগ সংক্রান্ত আইনে উল্লেখ রয়েছে যে,চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করার পরই চাকরি প্রার্থীরা কাউন্সিলিং-এ ডাক পাবেন। কিন্তু এসএসসি নিয়োগের নিয়মকেই উলঙ্ঘন করছে। এটা অবৈধ। এরপর বিচারপতি এসএসসি তরফের আইনজীবী সুতনু পাত্রের কাছে জানতে চান এসএসসি এধরনের বিজ্ঞপ্তি জারি করতে পারে কিনা। জবাবে তিনি জানসন যে, এসএসসির চাকরিপ্রার্থীদের ব্যক্তিগতভাবে ডাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এরপট বিচারপতি পাল্টা প্রশ্ন করেন যে, নিয়মের বিরুদ্ধে গিয়ে এসএসসি কীভাবে চূড়ান্ত প্রার্থীর তালিকা প্রকাশ না করে কাউন্সিলিং-এর বিজ্ঞপ্তি জারি করল? এবং সফল প্রার্থীদের তালিকা সংক্রান্ত নথি আগামীকাল সকাল ১০ টা ৩০ মিনিটে আদালতে জমা করতে বলেন এসএসসিকে। আপাতত এই ইস্যু নিয়ে তীব্র চাপানউতোর চলছে মামলাকারী এবং এসএসসি কর্তৃপক্ষের মধ্যে। এর জেরে তীব্র নাকানিচোবানি খেতে হচ্ছে হবু শিক্ষক শিক্ষিকাদের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!