এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > তৃণমূলে মুকুল রায়ের ‘জায়গা’ নিতে চলেছেন ইনি? ক্রমশ তীব্র হচ্ছে জল্পনা!

তৃণমূলে মুকুল রায়ের ‘জায়গা’ নিতে চলেছেন ইনি? ক্রমশ তীব্র হচ্ছে জল্পনা!

অধুনা বিজেপি নেতা মুকুল রায় একদা রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের সেকেন্ড ইন কম্যান্ড ছিলেন। কিন্তু, দলীয় নেতৃত্বের সঙ্গে মতভেদের জেরে তিনি দলত্যাগ করে গেরুয়া শিবিরে নাম লেখান। তাঁর দলত্যাগের পরেই তাঁকে ‘মীরজাফর’, ‘গদ্দার’, ‘মমতা ব্যানার্জির ছত্রচ্ছায়া থেকে বেরিয়ে যাওয়ায় রাজনীতি থেকে হারিয়ে যাবেন’ প্রভৃতি বলে তীব্র আক্রমন করতে থাকেন তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী-সমর্থকরা।

কিন্তু, মুকুল রায় দাঁতে দাঁত চেপে, তাঁর নতুন দল বিজেপিতে গিয়ে তাঁর নতুন রাজনৈতিক লড়াই লড়ে যান। আর, পঞ্চায়েত নির্বাচন থেকে যে ইঙ্গিত মিলছিল – লোকসভা নির্বাচনে গিয়ে পরিপূর্ন রূপ পায়। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে মুকুল রায়ের ‘মগজাস্ত্রের’ জোরেই, বিজেপি তৃণমূলের পায়ের তলার মাটি নড়িয়ে দিয়ে ১৮ আসন ছিনিয়ে নেয়। ৪২-এ-৪২ করার স্বপ্ন দেখা তৃণমূল সমর্থকরা স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনার পর মুষড়ে পড়েন।

এতদিন, মুকুল রায়কে তীব্র আক্রমন করলেও, ঘরোয়া আলোচনায় স্পষ্ট হতে থাকে মুকুল রায়ের অভাব! কেননা, প্রার্থী নির্বাচন থেকে শুরু করে ভোট পরিচালনা, দলীয় দ্বন্দ্ব মেটানো থেকে সংগঠন মজবুত করা – সবই কার্যত একার হাতে সামলাতেন মুকুলবাবু। সেই তিনিই, বিপক্ষ শিবিরে গিয়ে, তৃণমূলের সেই দুর্বল জায়গাগুলিতে আঘাত হেনেই পদ্মশিবিরের হয়ে ফুল ফোটাচ্ছেন – সেই ব্যাপারে কার্যত নিশ্চিত রাজনৈতিক মহল।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এই পরিস্থিতিতে, তৃণমূলের মধ্যে তীব্র জল্পনা শুরু হয়ে যায় – দলে মুকুল রায়ের জায়গা নেবেন কে? কেননা, তৃণমূলের শীর্ষনেতারা দাবি করেছিলেন – একরাতের মধ্যেই নাকি এরকম ২ লক্ষ মুকুল রায় তৈরী করে ক্ষমতা রাখে শাসকদল! কিন্তু, সে কথা যে শুধু কথার কথা, তা তো পঞ্চায়েত থেকে লোকসভা সব নির্বাচনেই প্রমাণিত হয়ে গেছে! এই পরিস্থিতিতে তৃণমূল কংগ্রেস দায়িত্ব দেয় ভোট বিশেষজ্ঞ প্রশান্ত কিশোরকে। তিনি দায়িত্ব নিয়েই ‘দিদিকে বলো’ থেকে শুরু করে একগুচ্ছ রাজনৈতিক কর্মসূচি তৃণমূল নেতাদের জন্য ঠিক করেন।

এমনকি, আসন্ন উপনির্বাচনে ৩ কেন্দ্রের প্রার্থী নির্বাচন থেকে শুরু করে, নির্বাচনে ভালো ফল করার স্ট্র্যাটেজি নির্ধারণ করা – সব কিছুই করছে প্রশান্ত কিশোরের টীম বলে গুঞ্জন। এমনকি, স্ট্র্যাটেজি মত প্রচার সম্পন্ন হচ্ছে কিনা – তার খুঁটিনাটিও নজরে রাখছে টীম পিকে। উপনির্বাচনের প্রচারপর্বে, তৃণমূলের নিচুতলার রিপোর্ট – ফলাফল কি হবে জানা নেই! তবে, লোকসভা নির্বাচনের পরে দলে যে ছন্নছাড়া ভাব এসেছিল – তা অনেকটাই কেটে গেছে। দল দুর্দান্ত লড়াই দেওয়ার জন্য তৈরী।

আর এইসব কিছুর পিছনেই প্রশান্ত কিশোরের ‘মস্তিস্ক’ রয়েছে, প্রকারান্তরে মেনে নিচ্ছে ঘাসফুল শিবিরের তৃণমূলস্তর। তাঁদের দৃঢ় বিশ্বাস লোকসভা নির্বাচনের থেকে দল অনেক ভালো ফল করতে চলেছে আসন্ন উপনির্বাচনে। অন্যদিকে, এতদিন প্রশান্ত কিশোরের মস্তিষ্কপ্রসূত কর্মসূচি, তৃণমূলের আদৌ ভালো করতে পারল কিনা ৩ আসনের উপনির্বাচন কার্যত তার অ্যাসিড টেস্ট! যদি নির্বাচনে ফলাফল খারাপ হয় – তাহলে মোটামুটি টীম পিকের উপরও আস্থা হারিয়ে ফেলবেন তৃণমূল কর্মী-সমর্থকরা, তা এক কথায় নিশ্চিত। অন্যদিকে, যদি উপনির্বাচনে তৃণমূলের ফলাফল দুর্দান্ত হয়?

তৃণমূল কর্মী-সমর্থকদের মনের কথা, সেক্ষত্রে দলে মুকুল রায়ের ‘জায়গা’ নেওয়ার লোক পাওয়া হয়ে গেল! কেননা, যিনি সাফল্য দেবেন, স্বাভাবিকভাবেই তিনিই নির্বাচন স্ট্র্যাটেজি নির্ধারণে অন্যতম প্রধান হয়ে উঠবেন। সেক্ষত্রে প্রশান্ত কিশোর যদি সদর্থক রেজাল্ট দিতে পারেন, তাহলে প্রমাণিত হয়ে যাবে তিনি বাংলার পাল্স বুঝে সঠিক ওষুধ প্রয়োগ করতে সক্ষম। সুতরাং, বিজেপির তীব্র উত্থান আটকে তৃণমূলকে তৃতীয়বারের জন্য ক্ষমতায় আনতে স্বাভাবিকভাবেই তিনি বড় ভূমিকা পালন করবেন। সব মিলিয়ে আসন্ন উপনির্বাচন ভোট বিশেষজ্ঞ প্রশান্ত কিশোরের জন্য বড়সড় অ্যাসিড টেস্ট হতে চলেছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!