এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > কেন্দ্রীয় সংস্থা ইডিকে আটকাতেই কি রাজ্যের নতুন বিভাগ তৈরির পথে মুখ্যমন্ত্রী? বাড়ছে জল্পনা

কেন্দ্রীয় সংস্থা ইডিকে আটকাতেই কি রাজ্যের নতুন বিভাগ তৈরির পথে মুখ্যমন্ত্রী? বাড়ছে জল্পনা



কেন্দ্রের অধীনে রয়েছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট বা ইডি। আর এবার সেই এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের ধাঁচেই রাজ্যের অধীনে তৈরি করা হবে ডিরেক্টরেট অব রেভিনিউ ইন্টিলেজেন্স অ্যান্ড এনফোর্সমেন্ট। সূত্রের খবর, শুক্রবার রাজ্য বিধানসভায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন রাজ্য মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই ব্যাপারে একটি প্রস্তাব অনুমোদিত হয়। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এতদিন কেন্দ্রের অধীনে থাকা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটই কর ফাঁকি সংক্রান্ত বিষয়ে রাজ্যে তদারকি চালাত। কিন্তু এবার থেকে রাজ্য নিজেদের অধীনে সংস্থা তৈরি করে সেই ব্যাপারে তদারকি চালাবে বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

আর এজন্য বিশেষ থানার পাশাপাশি বিশেষ আদালতও তৈরি করা হবে বলে খবর। অন্যদিকে এদিনের মন্ত্রিসভার বৈঠক ৬১ টি নতুন পদ তৈরী করার ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও কল্যাণীতে অবস্থিত এনএসএস টিবি হাসপাতালের উদ্বৃত্ত জমি কেন্দ্রের আয়ুশ মন্ত্রককে দিয়ে সেখানে যোগ ও ন্যাচারোপ্যাথির গবেষণা কেন্দ্র এবং ১০০ শয্যার হাসপাতাল তৈরি করার ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এদিকে সরকারের তরফে এহেন সিদ্ধান্ত নেওয়ায় এদিনে এই প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন ওয়েস্ট বেঙ্গল কাউন্সিল অফ যোগ ন্যাচারোপ্যাথির সভাপতি তুষার শীল।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে রাজ্য শিল্পোন্নয়ন নিগমের পক্ষ থেকে হলদিয়া অ্যাডভান্সড পারফর্মার মেটিরিয়াল প্রাইভেট লিমিটেডকে ৩.৫৩ একর জমি দেওয়ার ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এছাড়া এদিনের এই মন্ত্রিসভার বৈঠকে দীঘায় হোটেল, কটেজ সহ পর্যটনের পরিকাঠামোর উন্নতিতেও জমি বরাদ্দ করার জন্য এক প্রস্তাব অনুমোদিত হয়েছে। সম্প্রতি কেন্দ্রের আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্পে রাজ্য কোনো টাকা দেবে না বলে জানিয়ে দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন সেই প্রসঙ্গে ফের মুখ খুলে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্পে আমরা থাকবো না। সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, শস্য বীমাতেও কেন্দ্রের থেকে কোনো সাহায্য আমরা নেব না। আমরা যদি ৮০% দিতে পারি তাহলে বাকি ২০%-ও দিতে পারব”।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, আয়ুষ্মান ভারতের পাশাপাশি কৃষকদের শস্য বীমার টাকা কেন্দ্র দিচ্ছে বলে এতদিন গেরুয়া শিবিরের পক্ষ থেকে প্রচার করা হলে সেই ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়ে কৃষকদের শস্য বীমার টাকা পুরোটাই রাজ্য সরকার দেবে বলে জানিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রসঙ্গত, অন্ধ্রপ্রদেশের মতোই বাংলাতেও সিবিআই অনুমতিতে তদন্ত করতে পারবে না বলে আগেই সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য মন্ত্রীসভা। অন্যদিকে, একের পর এক মামলাতে ইডির জেরার মুখোমুখি হয়েছেন একাধিক শাসকদলের হেভিওয়েট নেতা-মন্ত্রী। ফলে, ইডিকে আটকাতেই কি মুখ্যমন্ত্রীর নতুন ডিরেক্টরেট অব রেভিনিউ ইনটেলিজেন্স অ্যান্ড এনফোর্সমেন্ট তৈরীর ভাবনা? জল্পনা তীব্র রাজনৈতিক মহলে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!