এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > মমতা ব্যানার্জিকে তীব্র কটাক্ষ, শুভেন্দু অধিকারীর উচ্চ প্রশংসা! জল্পনা বাড়ালেন মুকুল রায়

মমতা ব্যানার্জিকে তীব্র কটাক্ষ, শুভেন্দু অধিকারীর উচ্চ প্রশংসা! জল্পনা বাড়ালেন মুকুল রায়

লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের ভরাডুবির পরই ফলাফল পর্যালোচনায় বৈঠক করে সংগঠনকে ঘুরে দাঁড় করানোর জন্য শুভেন্দু অধিকারীকে বাড়তি দায়িত্ব দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর দায়িত্ব পেয়েই বিভিন্ন জেলায় চষে বেড়াতে শুরু করেন তিনি। ইতিমধ্যেই লোকসভা ভোটে খারাপ ফলাফল হওয়া জঙ্গলমহলে দলীয় সংগঠনকে ঘুরে দাঁড় করানোর জন্য জনসংযোগ যাত্রার মাধ্যমে সেখানে ঝড় তুলছেন তৃণমূলের এই হেভিওয়েট মন্ত্রী।

তবে দলের অন্দরে শুভেন্দু অধিকারী ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাইপো তথা তৃণমূল যুব সর্বভারতীয় সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সম্পর্ক খুব একটা ভালো নেই বলে তীব্র জল্পনা সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে। ইতিমধ্যেই শুভেন্দু অধিকারীকে প্রতিটি জেলার অবজারভার করে রাখলেও, কেন তাঁকে সম্পূর্ণ দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে না? তা নিয়ে শুভেন্দুবাবুর অনুগামীরা সোশ্যাল সাইটে সরব হয়ে পরোক্ষে নাম না করে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে শুরু করেছেন।

পাল্টা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুগামীদের তরফেও আসতে শুরু করেছে কটাক্ষ! আর এহেন একটা পরিস্থিতিতে এবার বঙ্গ বিজেপির হেভিওয়েট নেতা মুকুল রায়ের গলাতে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে তীব্র কটাক্ষ শোনা গেলেও, ভূয়সী প্রশংসা শোনা গেল শুভেন্দু অধিকারীর নামে। একদা, দুজনেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেস করলেও, মুকুলবাবু তৃণমূল ছাড়ার পর তাঁদের পথ আলাদা হয়ে গেছে! কিন্তু, তা সত্ত্বেও মুকুলবাবু যেভাবে উচ্চকিত প্রসংসা করলেন শুভেন্দুবাবুর – তা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে ছড়িয়ে পড়েছে তীব্র জল্পনা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, এদিন পাত্রসায়রে আহত কর্মীদের দেখতে এসে বিজেপি নেতা মুকুল রায় বলেন, “তৃণমূলের একজন নেতা (পড়ুন শুভেন্দু অধিকারী) জনসংযোগ যাত্রা করে জনসমর্থন ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছেন, আর মুখ্যমন্ত্রী এলাকার মানুষের মুখে জয় শ্রীরাম সহ্য করতে না পেরে পুলিশকে গুলি চালানোর নির্দেশ দিচ্ছেন!” বিশেষজ্ঞদের মতে, বর্তমানে রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় জনসংযোগ যাত্রা করছেন শুভেন্দু অধিকারী। আর সেই শুভেন্দুবাবুর প্রশংসা করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জয় শ্রীরাম শুনে রেগে যাচ্ছেন বলে তৃণমূল নেত্রীকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করলেন মুকুল রায়।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের একাংশ বলছেন, আসলে রাজনীতিতে তো কম দিন কাটানো হল না মুকুল রায়ের! ফলে সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে ঘুরে বেড়ানো তৃনমূলের অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং শুভেন্দু অধিকারীরা সম্পর্ক নিয়ে তাঁদের অনুগামীদের ‘বিবাদ’ নিয়ে তিনি যথেষ্টই অবগত। আর তাই তো এদিন শুভেন্দু অধিকারীর কিছুটা প্রশংসা করে দিয়ে দলের অন্দরেই বিড়াম্বনা বাড়াতে চাইলেন তিনি। অন্যদিকে অপরপক্ষের প্রশ্ন, তাহলে কি ভাবে এবার দক্ষ সংগঠক শুভেন্দু অধিকারীকেও নিজেদের দলে আনতে সচেষ্ট হচ্ছেন মুকুল রায়?

আর যখন এইসব প্রশ্ন ঘোরাফেরা করছে রাজ্য রাজনীতির অন্দরমহলে, ঠিক তখনই তৃণমূলের তরফে অবশ্য এই সমস্ত দাবিকে নস্যাৎ করে দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে বিজেপির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, রাজনীতিতে কোনো কিছুই অসম্ভব নয়। তাই অপেক্ষা করুন, চমক রয়েছে। সত্যিই কি তাহলে চমক রয়েছে? হঠাৎ কেনই বা শুভেন্দু অধিকারীর নাম নিতে গেলেন মুকুল রায়! এখন এই নিয়েই প্রবল জল্পনা চলছে রাজ্য রাজনীতিতে। যার সত্যিটা বুঝতে গেলে আরও কিছুদিন অপেক্ষা করা ছাড়া উপায় নেই বলেই অভিমত রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!