এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > অবশেষে কি তৃনমূলে শোভন চট্টোপাধ্যায়? বান্ধবীর কথায় বাড়ল জল্পনা!

অবশেষে কি তৃনমূলে শোভন চট্টোপাধ্যায়? বান্ধবীর কথায় বাড়ল জল্পনা!

Priyo Bandhu Media


 

প্রায় অনেকদিন হয়েছে তিনি তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। বান্ধবী বৈশাখী বন্দোপাধ্যায়কে নিয়ে দলের অন্দরে আপত্তির জন্য মন্ত্রিত্ব, মেয়রপদ ত্যাগ করেছেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। আর তারপর গত 14 আগস্ট দিল্লিতে গিয়ে বিজেপির সদর দপ্তরে গেরুয়া শিবিরের পতাকা নিজের হাতে তুলে নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্ক ছিন্ন করতে দেখা গেছে তাকে। তবে বিজেপিতে গিয়েও সেইভাবে বান্ধবী বৈশাখী বন্দোপাধ্যায় গুরুত্ব না পাওয়ায় কার্যত খবরের শিরোনামে আর দেখা যাচ্ছিল না শোভন চট্টোপাধ্যায়কে। যা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে ব্যাপক গুঞ্জন সৃষ্টি হয়েছিল।

অনেকেই মনে করছিলেন, হয়ত বা এবার রাজনীতি থেকে সন্ন্যাস নেবেন শোভনবাবু। কিন্তু উৎসবের মরসুম শেষে ভাতৃদ্বিতিয়ার দিন প্রাক্তন নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে সেই শোভন চট্টোপাধ্যায়ের ভাইফোঁটা নিতে যাওয়া প্রবল জল্পনা বাড়িয়ে দেয়।

একাংশ দাবি করতে থাকেন, হয়ত বা অবশেষে তৃণমূলেই ফিরবেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। তবে এত সব জল্পনা চললেও এখনো পর্যন্ত বিজেপিতে রয়েছেন শোভনবাবু। দলে সক্রিয় না থাকলেও পাকাপাকিভাবে এখনই তাঁকে বিজেপি ত্যাগী নেতা হিসেবে অভিহিত করা যাবে না। আর প্রাক্তন নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে শোভন চট্টোপাধ্যায় ভাইফোঁটা দিয়ে এলেও তার তৃণমূলে যোগ দেওয়া নিয়ে বিভিন্ন মহলে জল্পনার মাঝে যখন তিনি কার্যত নীরব রয়েছেন, সেই সময়ই ঘটে গেল এক আশ্চর্য ঘটনা।

বস্তুত, যে বৈশাখী বন্দোপাধ্যায়কে নিয়ে আপত্তির জন্য তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে নাম লিখিয়েছিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়, এদিন সেই বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠক করতে দেখা গেল তৃণমূল মহাসচিব তথা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে। সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের অফিসে যান বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রায় ঘন্টা দেড়েক ধরে উভয়ের মধ্যে নানা বিষয়ে আলোচনা হয় বলে খবর। আর এই আলোচনাই এখন উস্কে দিচ্ছে নানা জল্পনা।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

জানা যায়, এদিন তিনটে নাগাদ শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের অফিসে পৌঁছন শোভন চট্টোপাধ্যায়ের বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তিনি শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে সমস্ত আলোচনা পর্ব সেরে তার অফিস থেকে বেরোন সাড়ে চারটে নাগাদ। তবে এই প্রথম নয়, বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর এর আগে আরও একবার পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে দেখা গেছে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে। আর তারপর সরাসরি শোভন চট্টোপাধ্যায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে গিয়ে ফোঁটা নেওয়ায় শোভনবাবুর তৃণমূলে প্রত্যাবর্তন নিয়ে প্রবল জল্পনা ছড়িয়েছিল।

আর এবার ফের তাঁর বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল মহাসচিব শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গেকার এই সাক্ষাৎ তীব্র জল্পনা বাড়িয়ে দিল বলেই মত বিশেষজ্ঞদের। কিন্তু শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে ঠিক কী কী বিষয়ে কথা হল বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের! তাহলে কি তৃণমূলে যোগ দেওয়ার পাকাপাকি বন্দোবস্ত করে এলেন তিনি! এদিন এই প্রসঙ্গে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “কিছুদিন অপেক্ষা করুন আমার মত সামান্য শিক্ষিকার বিজেপিতে দরকার নেই। তাই বিজেপিতে আমি থাকলাম কি থাকলাম না, তাতে বিজেপির কিছু আসে যায় না।” আর এখানেই বিশ্লেষকরা বলছেন, বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথাতেই একপ্রকার স্পষ্ট যে, তারা এবার বিজেপির সঙ্গে সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করতে চলেছেন।

তবে তারা তৃণমূলের সঙ্গে সম্পর্ক করবেন কিনা, তা একপ্রকার জল্পনা হিসেবেই জিইয়ে রাখলেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে যেদিকে জল এগোচ্ছে, তাতে শোভন চট্টোপাধ্যায় ও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূলে যোগ দেওয়া শুধুই সময়ের অপেক্ষা বলে দাবি বিশেষজ্ঞদের। এদিন তার সাথে শিক্ষামন্ত্রীর কলেজের নানা বিষয় নিয়েও কথা হয়েছে বলে জানান বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, “আমার কলেজে নানা সমস্যা। দীর্ঘদিন ধরে গভর্নিং বডি নেই। তাই আমরা কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারছি না। ওনাকে সব জানালাম। উনি সবসময় আমাদের সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসছেন। আমরা এতজন যে কাজ করছি, তা ওনারই জন্য।”

কিন্তু শিক্ষামন্ত্রী তথা তৃণমূল মহাসচিবের সাথে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের বৈঠকে কি একবারও উঠে আসেনি শোভন চট্টোপাধ্যায়ের নাম! এদিন এই প্রসঙ্গে পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের কথা হওয়া নিয়ে কার্যত জল্পনা বাড়িয়ে দেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, “ওনারা দীর্ঘদিনের সহকর্মী। এক সহকর্মীর সঙ্গে আরেকজনের কথাবার্তা হবে, এটাই স্বাভাবিক। না হলেই অস্বাভাবিক। তবে কি কথাবার্তা, তা আমার পক্ষে বলা সম্ভব নয়।”

আর তৃণমূল মহাসচিব তথা শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের বান্ধবীর এই বৈঠক এবং এহেন মন্তব্য এবার শোভন চট্টোপাধ্যায়ের তৃণমূলে যোগের জল্পনাকে আরও প্রবল পরিমাণে বাড়িয়ে দিল বলে রাজনৈতিক মহলের। ফলে কবে শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় তৃণমূলে যোগ দেন, এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!