এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > তৃণমূলের সাংগঠনিক বৈঠকে কি হাজির হলেন শোভন চট্ট্যোপাধ্যায় ? জেনে নিন

তৃণমূলের সাংগঠনিক বৈঠকে কি হাজির হলেন শোভন চট্ট্যোপাধ্যায় ? জেনে নিন



শেষ রক্ষা হলো না তৃণমূলের, বৈঠকে এলেন না কানন !যা নিয়েই নয়া জল্পনা শুরু রাজনৈতিক মহলে। আজ বৃহস্পতিবার ৭ ই নভেম্বর কালীঘাটের দলীয় কার্যালয়ে সংগঠনের বৈঠক করেন তৃণমূল কংগ্রেস। আর সেখানে বিজেপি নেতা শোভন চট্টোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল।আর তা ঘিরেই রাজনৈতিকমহলের ধারণা ছিল এ দিনই তিনি গেরুয়া শিবির ছেড়ে তৃণমূলে ফিরবেন। আর এও জল্পনা উঠেছিল তার জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কোনো মন্ত্রিত্ব উপহারস্বরূপ রেখে দিয়েছেন। আর সেটা আজ তার হাতে তুলে দেবেন। আর সকাল থেকে রাজনৈতিক মহলে এ নিয়ে কোটি টাকার প্রশ্ন উঠেছিল আজ আসছেন কি আসছেন না শোভন চট্ট্যোপাধ্যায়। শেষমেষ তৃণমূলের দাবিকে নস্যাৎ করে এদিন তৃণমূলের বৈঠকে এলেন না শোভন চট্টোপাধ্যায় যা নিয়েই এই শুরু ফের জল্পনা।

বান্ধবী বৈশাখী বন্দোপাধ্যায়কে নিয়ে মমতা বন্দোপাধ্যায়ের আপত্তিকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের সঙ্গে দূরত্ব বাড়ান শোভন চট্টোপাধ্যায়। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে চলে যায়, যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে একসময় মা বলে ডাকতেন শোভন চট্টোপাধ্যায়, সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সংসর্গ ত্যাগ করে তিনি বিরোধী দল বিজেপিতে নাম লেখান।

গত ১৪ ই আগস্ট দিল্লিতে গিয়ে বান্ধবী বৈশাখী বন্দোপাধ্যায়কে নিয়ে গেরুয়া শিবিরের উত্তরীয় নিজের গলায় পড়ে নেন কলকাতা পৌরসভার প্রাক্তন মেয়র। আর শোভনবাবুর এই বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর থেকেই রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকেরা মনে করেছিল, এবার সেই শোভন চট্টোপাধ্যায়ের হাত ধরেই কলকাতা পৌরসভায় ক্ষমতা দখল করবে বিজেপি।

কিন্তু বিজেপিতে যাওয়ার পরও দলে বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে গুরুত্ব না দেওয়ায় সেই গেরুয়া শিবিরের সঙ্গে দূরত্ব বাড়াতে থাকেন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী। পরবর্তীতে দিল্লিতে গিয়ে মুকুল রায়ের সঙ্গে দেখা করে আসার পর সেই ভাবে বিজেপির আর কোনো কর্মসূচিতে দেখা যায়নি এই শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং বৈশাখী বন্দোপাধ্যায়কে।

যা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে তীব্র জলঘোলা হয়েছিল। তবে সম্প্রতি ভাতৃদ্বিতীয়ার দিন কালীঘাটে নিজের প্রাক্তন নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে গিয়ে শোভন চট্টোপাধ্যায়কে ভাইফোঁটা নিতে দেখা যায়। যার পরেই তাঁর তৃণমূলে যোগ দেওয়ার সম্ভাবনা প্রবল ভাবে তৈরি হয়।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এদিকে এই ঘটনার পরেই আশ্চর্যজনকভাবে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের নিরাপত্তা বাড়িয়ে দেয় রাজ্য সরকার। যা তার বিজেপি ছাড়া এবং তৃণমূলে যোগ দেওয়ার আগের মুহূর্ত বলেই দাবি করে রাজনৈতিক মহল। কিন্তু সত্যিই কি শোভন চট্টোপাধ্যায় তাঁর পুরনো দল তৃণমূল কংগ্রেসে ফিরে যাচ্ছেন! আর যদিও যান, তাহলে ঠিক কবে তিনি আবার ঘাসফুল শিবিরে নাম লেখাবেন!

জানা গিয়েছিলো আজ অর্থাৎ ৭ ই নভেম্বর তৃণমূলের সমস্ত বিধায়কদের নিয়ে একটি বৈঠক ডেকেছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর সেখানেই এই বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন দলের প্রাক্তন সৈনিক শোভন চট্টোপাধ্যায়। আর আজকেই তিনি ফের ফিরছেন তৃণমূলে। আর তাঁকে উপহার স্বরূপ কোনো এক মন্ত্রিত্ব তুলে দিচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

শোভন চট্টোপাধ্যায় দলে ফিরে এলে তাঁকে ফের একবার মন্ত্রিত্ব দেওয়া হতে পারে বলে মনে করা হয়েছে। এছাড়া সামনের বছরে ২০২০ সালে কলকাতা পুরসভার নির্বাচন রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে কলকাতার মেয়র ছিলেন শোভন। কলকাতার পুর এলাকায় তাঁর যথেষ্ট দাপট রয়েছে। সেটাকে কাজে লাগিয়ে তৃণমূলের জয় পেতে চাইবে। আর সেক্ষেত্রে বড় ভূমিকা নিতে পারেন শোভন। সেজন্যই সম্ভবত তৃণমূলের তরফ থেকে তাঁকে দলে টানার চেষ্টা চলছিল আর সেই ডাকে খনিকের জন্য হলেও সাড়া দিয়েছিলেন কিন্তু এদিন দেখা গেলো যে তিনি এলেন না ফলে ফের জল্পনা জোর জল্পনা শুরু হলো রাজনৈতিকমহলে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!