এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > শোভন চ্যাটার্জী ইস্যুতে রত্নাকে নিয়ে মুখে খুলে ঝড় বইয়ে দিলেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়

শোভন চ্যাটার্জী ইস্যুতে রত্নাকে নিয়ে মুখে খুলে ঝড় বইয়ে দিলেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়

এই মুহূর্তে রাজ্যরাজনীতির সবথেকে চর্চিত খবর শোভন চট্টোপাধ্যায়ের মন্ত্রীত্ব থেকে ইস্তফা প্রদান। এমনকি এদিন মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ মতো মেয়র পদ থেকেও ইস্তফা দিয়ে দিলেন তিনি। নিরাপত্তারক্ষীর হাত দিয়েই নেত্রীর দরবারে ইস্তফাপত্র পাঠিয়েছেন শোভন।

ব্যক্তিগত সম্পর্কের টানাপোড়েনের জেরে মন্ত্রীত্বের দায়িত্ব অবহেলিত হচ্ছিল,এই অভিযোগেই পদ খোয়াতে হল তাকে। তবে এতোদিন সম্মানের সঙ্গে যে পদের দায়িত্ব সামলেছেন তিনি,হঠাৎ করেই এক ঝটকায় সবকিছুর ইতি টানায় উষ্মা প্রকাশ করেছেন শোভন-পত্নী রত্না চট্টোপাধ্যায়।

যেভাবে তিনি শোভন-বৈশাখীর বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের খোলাসা করেছিলেন,ঠিক একই ভাবে শোভনের আজ এই পরিনতির জন্যে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কেই কাঠগড়ায় দাঁড় করালেন তিনি। বললেন,বৈশাখীর জন্যেই শোভনের কেরিয়ার শেষ হয়ে গেল। একটু একটু করে গড়ে তোলা রাজনৈতিক কেরিয়ার মাত্র এক বছরের মধ্যে ভেঙে চুরমার হয়ে গেল শোভনের। আর এই সবকিছুর জন্য দায়ী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে এবার এই অভিযোগের পাল্টা জবাব দিয়ে রাজ্যরাজনীতিতে আরো শোরগোল ফেলে দিলেন বৈশাখী।

রত্না চট্টোপাধ্যায় মানসিকভাবে অসুস্থ, এমনটাই দাবী করলেন বৈশাখী। রত্না-শোভনের দাম্পত্য সম্পর্কের অবনতির নেপথ্যে যিনি দায়ী তিনি হলেন তাঁদের পারিবারিক বন্ধু অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। ‘ভাই’ বলে দাবী করলেও আসলে অভিজিৎ এবং রত্নার সম্পর্ক ছিল অন্যরকম।

২০০৫-০৬ সাল থেকেই দুজনের ঘনিষ্ঠতা বাড়ে। ইডি মামলায় যখন শোভনের নাস্তানাবুদ অবস্থা তখন নাকি অভিজিৎ-রত্নার ঘনিষ্ঠতা বাড়ে,এমনটাও দাবীতে জানান বৈশাখী। অভিজিৎ-এর জন্যেই শোভন-রত্নার দাম্পত্য সম্পর্ক বিচ্ছেদের জন্যে আদালত পর্যন্ত গড়ায়,এমনটাই বক্তব্য বৈশাখীর। উল্লেখ্য,রত্না চট্টোপাধ্যায় বহুদিন আগেই মিডিয়ার সামনে জানিয়েছিলেন শোভনে সঙ্গে তাঁর দাম্পত্য সম্পর্ক বিচ্ছেদের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়েছে শুধুমাত্র বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্যে। তাঁর দাবী ছিল,নতুন বান্ধবীর জন্যে স্ত্রী,ছেলে মেয়ের সঙ্গেও সম্পর্কের অবনতি হয়েছিল শোভনের।

কিন্তু সেসব নিয়ে কোনো ভ্রুক্ষেপই ছিল না শোভনের। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও বহুবার তাকে সাবধান করেছেন। কিন্তু কোনোকিছুই কানে নেননি তিনি। যার ফলশ্রুতিতে আজ মন্ত্রীত্ব এবং মেয়র পদ খোয়াতে হল শোভনকে। এর সবকিছু জন্যে একমাত্র দায়ী বৈশাখী। এমনটাই অভিযোগ ছিল শোভন-পত্নীর৷ এই অভিযোগেরই যোগ্য জবাব দিতে রত্না চট্টোপাধ্যায়ের দিকেই কাদা ছুঁড়লেন বৈশাখী।

স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল খোদ শোভন চট্টোপাধ্যায়েরও। রত্মা নাকি তাঁর মেয়ে এবং বৈশাখীকে খুন করার চেষ্টা করেছেন। একই অভিযোগ বৈশাখীরও। রত্না এবং অভিজিৎ -এর যৌথ সংস্থার সম্পত্তির উৎস কী,সে বিষয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

তবে পাল্টা আক্রমণ শানাতে ছাড়েননি রত্নাও।শোভন-পত্নীর ‘প্রেমের সম্পর্ক’ কান্না ভেজা গলায় বৈশাখীকে ফাঁস করতে দেখে কটাক্ষে রত্মা জানান,’মায়াকান্না কাঁদছেন বিদায়ী মেয়রের বান্ধবী’। তবে অভিজিৎ-এর সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক সম্পূর্ণই মিথ্যা,এমনটাই দাবী করলেন রত্না চট্টোপাধ্যায়। গোট বিষয়টি নিয়েই তীব্র জল্পনা শুরু হয়েছে সমালোচকমহলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!