এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন শোভন-বৈশাখী, জেনে নিন

বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন শোভন-বৈশাখী, জেনে নিন

বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতার পরই নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রোষের মুখে পড়তে হয় শোভন চট্টোপাধ্যায়কে। আর তারপর থেকেই মন্ত্রী পদ খোওয়ানোর পাশাপাশি কলকাতা পৌরসভার মেয়র পদ খুইয়ে কার্যত দল থেকে নিজেকে ক্রমশ সরিয়ে নিতে থাকেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একসময়কার প্রিয় ভাই কানন।

আর তখন থেকেই জল্পনা চলছিল, তাহলে কি শোভনবাবু তার শিবির বদল করতে চলেছেন! তবে এতদিন এই ব্যাপারে কিছু জানা না গেলেও এবার সেই শোভন চট্টোপাধ্যায়ের বিজেপিতে যোগ দেওয়ার সম্ভাবনা প্রায় পাকা হয়ে গেল। সূত্রের খবর, আজই গেরুয়া শিবিরের নাম লেখাতে চলেছেন কলকাতা পৌরসভার প্রাক্তন মেয়র তথা রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী তথা বেহালা পূর্ব বিধানসভা কেন্দ্রের তৃণমূল বিধায়ক শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং তার বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। গতকালই তারা দুইজন দিল্লি বিমানে উড়ে গিয়েছেন।

বস্তুত, দল থেকে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের নিষ্ক্রিয়তাকে দলে সক্রিয় করতে তৃণমূলের তরফে একাধিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়। কখনও পার্থ চট্টোপাধ্যায় আবার কখনও বা ফিরহাদ হাকিমকে দিয়ে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের মান ভাঙ্গানোর চেষ্টা করে তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্ব। তখনই অনেকে মনে করেছিল, হয়ত বা এবার শোভন চট্টোপাধ্যায় দলের প্রতি সমস্ত অভিমানকে দূরে সরিয়ে রেখে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়া শুরু করবেন!

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

কিন্তু না, তেমন কিছুতো হয়ইনি, উল্টে বিধানসভার মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ স্থায়ী সমিতির চেয়ারম্যান পদে থাকা শোভন চট্টোপাধ্যায় কেন বৈঠকে যোগ দিচ্ছেন না তা নিয়ে সম্প্রতি তাকে ফোন করেন বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। আর সেই ফোনেই শোভন বাবু জানান যে, সামনের সপ্তাহের সময় পেলে তিনি অবশ্যই দেখা করবেন। কিন্তু দেখা করা তো দূর অস্ত, উল্টে মঙ্গলবারই সেই চেয়ারম্যান পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে দেন তিনি।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের একাংশ মনে করেছিল, দলের শীর্ষ নেতৃত্বকে দিয়ে শোভনবাবুর মান ভাঙানোর চেষ্টা করলেও তৃণমূল তাতে ব্যর্থ হয়েছিল। আর তাই তো শেষ পর্যন্ত বিধানসভার স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান হওয়ার সুবাদে সেই শোভনবাবু কেন বৈঠকে উপস্থিত হচ্ছেন না, তা নিয়ে শোভন চট্টোপাধ্যায়কে ফোন করে তাকে বৈঠকে যোগ দেওয়ার জন্য চাপ দেওয়ার সৃষ্টি করেছিল। কিন্তু তাতেও সাফল্য মিলল না। উল্টে হিতে বিপরীত হয়ে গেল।

গতকাল মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ বিভাগের স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান থেকে ইস্তফা দেওয়ার পর অবশেষে দিল্লির বিমান উড়ে গেলেন সেই শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং তার বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। সূত্রের খবর, আজ নয়াদিল্লিতে বিজেপির সদর দপ্তরে তৃণমূলের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করে গেরুয়া শিবিরে নাম লেখাবেন মমতা বন্দোপাধ্যায়ের প্রিয় ভাই কানন।

আর দক্ষ সংগঠক হিসেবে পরিচিত শোভন চট্টোপাধ্যায় যদি কলকাতা কর্পোরেশনের নির্বাচনের আগে সত্যি সত্যিই আজ বিজেপিতে নাম লেখান, তাহলে অদূর ভবিষ্যতে তৃণমূলের কপালে যে শনি নাচতে চলেছে, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত রাজনৈতিক মহল। সবমিলিয়ে দিল্লির বিমানে শোভন-বৈশাখী উড়ে গেলেও আজ তারা গলায় পদ্ম শিবিরের উত্তরীয় পড়ে নেন কিনা, এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

Top
error: Content is protected !!