এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > শ্রীনিবাসনের “ঘূর্নি” উড়িয়ে অমিত শাহের আস্থাতেই আজ বোর্ড প্রেসিডেন্ট হিসাবে মনোনয়ন সৌরভের

শ্রীনিবাসনের “ঘূর্নি” উড়িয়ে অমিত শাহের আস্থাতেই আজ বোর্ড প্রেসিডেন্ট হিসাবে মনোনয়ন সৌরভের

অবশেষে শেষ হাসি হাসতে চলেছেন প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক তথা বঙ্গসন্তান সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। জানা গেছে, বিসিসিআইয়ের পরবর্তী সভাপতি আসনে বসা প্রায় নিশ্চিত হয়ে গিয়েছে একসময় ক্রিকেট ময়দান কাঁপানো এই খেলোয়াড়ের। সূত্রের খবর, আজ সোমবার সৌরভ গাঙ্গুলী এই পদে তার মনোনয়নপত্র জমা করবেন। তবে সৌরভ গাঙ্গুলীর পাশাপাশি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের পুত্র জয় শাহ এবং কোষাধ্যক্ষ হিসেবে মনোনয়ন জমা দেওয়ার কথা রয়েছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুরের ভাই অরুণ ধুমালের।

তবে ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি পদকে কেন্দ্র করে রবিবার পর্যন্ত যেভাবে বিভিন্ন ঘটনা প্রবাহ এগোতে দেখা গেল, তা নিঃসন্দেহে বড় কোনো ক্রিকেট ম্যাচকেও হার মানাতে পারে বলে মত বিশ্লেষকদের। রবিবার হঠাৎই রাত সাড়ে দশটার পর জানতে পারা যায় যে, বঙ্গসন্তান সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় নয়, ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি হচ্ছেন কর্নাটক ক্রিকেট সংস্থার ব্রিজেশ প্যাটেল। তবে সব শেষে দাদাগিরির দাদাই বাজিমাত করলেন।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

জানা যায়, সৌরভ গাঙ্গুলীর বদলে ব্রিজেশ প্যাটেলকে বিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট করবার জন্য উঠেপড়ে লেগেছিলেন এন শ্রীনিবাসন। যেখানে শ্রীনিবাসন গোষ্ঠী তাদের যুক্তি হিসেবে দেখিয়েছিল যে, সৌরভ গাঙ্গুলী যদি প্রেসিডেন্ট হয়, তাহলে দশ মাস পরেই তাকে কুলিং অফে যেতে হবে। আর সে দিক থেকে ব্রিজেশ প্যাটেল সভাপতি হলে তিনি তার 3 বছরের মেয়াদ পূর্ণ করতে পারবেন। তবে শেষ পর্যন্ত সেই যবনিকার পতন ঘটে।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের ঘনিষ্ঠ এক বিজেপি নেতার সাথে সৌরভ গাঙ্গুলী এবং অভিষেক ডালমিয়ার গোপন বৈঠকের পরই জট খুলতে শুরু করে। একাংশ প্রশ্ন তোলেন যে, অমিত শাহর ছেলে জয় শাহ যদি 10 মাসের জন্য এই ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি হতে পারেন, তাহলে কেন যোগ্যপ্রার্থী হওয়া সত্ত্বেও সৌরভ গাঙ্গুলী সভাপতি পদে তার মনোনয়ন জমা দিতে পারবেন না!

আর এই প্রশ্নের মুখে পড়েই কিছুটা সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়াকে আটকাতে পারেননি বিরোধীরা। শেষ পর্যন্ত সর্ব সম্মতিক্রমে বঙ্গসন্তান বাংলার মহারাজ হিসেবে পরিচিত সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের নামই বোর্ড সভাপতি হিসেবে গৃহীত হয়। যা নিয়ে এখন রীতিমত উজ্জীবিত বাংলার ক্রিকেটপ্রেমী থেকে শুরু করে সৌরভ-ভক্তরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!