এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট শেয়ার করে তৃণমূলের তীব্র কটাক্ষের মুখে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ

সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট শেয়ার করে তৃণমূলের তীব্র কটাক্ষের মুখে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ

Priyo Bandhu Media

রাজ্য-রাজনীতিতে এখন যেকটি নাম নিয়ে দিনরাত আলোচনা চলে তার মধ্যে অন্যতম হল দিলীপ ঘোষ। আর হবে নাই বা কেন? একদিকে যখন তাঁর সভাপতি থাকালীন গেরুয়া শিবির বাংলায় চতুর্থ স্থান থেকে একলাফে দ্বিতীয়স্থানে উঠে এসেছে, অন্যদিকে একই সঙ্গে নানা সময় নানা বিতর্কিত কথা বলে সংবাদ শিরোনামে জায়গা করে নিয়েছেন দিলীপবাবু। দিলীপবাবুর সভাপতিত্ত্বেই বিজেপির বিধায়ক সংখ্যা ১৩ বা সাংসদ সংখ্যা ১৮ হলেও – এর পাশাপাশিই কোথাও পুলিশকে মারধর করার সরাসরি হুমকি দেওয়া কিংবা তৃণমূল নেতাদের হুঁশিয়ারি একের পর এক বিতর্কে জড়িয়েছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি।

শুধু তাই নয় তাঁর বিরুদ্ধে এই বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য, এর আগে অনেকবার পুলিশে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে শাসক দল তৃণমূলের তরফ থেকে। পঞ্চায়েত নির্বাচনের পরেই ইঙ্গিত পাওয়া গিয়েছিল, আর লোকসভা নির্বাচনের পরে তো তা জলের মত স্পষ্ট – যে রাজ্যের প্রধান দুই যুযুধান প্রতিপক্ষ বর্তমানে তৃণমূল ও বিজেপি। ফলে, সামান্যতম কোনো ত্রুটি-বিচ্যুতি থাকলেই, একে অপরকে বিদ্ধ করতে ছাড়ছে না দু’দলই। আর সেই আক্রমণের ঢেউ – সোশ্যাল মিডিয়া থেকে শুরু করে, সরাসরি সাংবাদিক বৈঠক কিংবা প্রকাশ্য সভামঞ্চেও প্রতিনিয়ত দেখা যাচ্ছে।

আর এদিন ফের বিতর্কে জড়ালেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। ‘দিলীপ ঘোষ বিজেপি’ নামক একটি পেজ থেকে ‘সেবা শপথ’ দিয়ে একটি পোস্ট শেয়ার করা হয়। সেই পোস্টে দিলীপবাবুর তরফে দাবি করা হয়, যে তিনি মেদিনীপুর জেলার নারায়ণগড়ের বেলদা গ্রামীণ হাসপাতালে গিয়ে রুগীদের সঙ্গে দেখা করেন ও তাঁদের হাতে ফল ও মিষ্টির প্যাকেট তুলে দেন। কিন্তু ইংরেজিতে লেখা হাসপাতাল শব্দটি হয়ে গেছে ‘Hispital’! আর এরফলেই সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে তৃণমূল সমর্থকদের তীব্র কটাক্ষ শুরু হয়েছে বিজেপি রাজ্য সভাপতি তথা মেদিনীপুরের সাংসদকে নিয়ে! দিলীপবাবুকে তীব্র কটাক্ষ করে সোশ্যাল মিডিয়ায় একের পর এক পোস্ট শেয়ার করা হচ্ছে তৃণমূল কর্মী সমর্থকদের তরফ থেকে।

তৃণমূল সমর্থকদের বক্তব্য, বিজেপির মত একটা সর্বভারতীয় দলের একজন রাজ্য সভাপতি তথা সাংসদ সামান্য হাসপাতালের বানান লিখতে গিয়ে এইভাবে হোঁচট খাবেন! কারোর বক্তব্য সেবার মোড়কে ‘প্রচার’ করতে গেলে নাকি এমনই হয়! কিন্তু, রাজনৈতিক মহলের মতে , এই ধরনের পেজগুলি সাধারণত রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীরা চালান না (আমাদের অবশ্য জানা নেই, সংশ্লিষ্ট পেজটি দিলীপবাবু নিজে হ্যান্ডেল করেন কিনা), সাধারণত এই ধরনের পেজগুলি চালায় সোশ্যাল মিডিয়া বা আইটি সেল। সুতরাং, এই ধরনের ভুলের জন্য কি সত্যিই দিলীপবাবুর কটাক্ষ প্রাপ্য?

তারও পাল্টা যুক্তিজাল চলছে – বেশিরভাগেরই বক্তব্য, হয়ত আইটি সেল চালায়, কিন্তু পেজ যে ব্যক্তির নামে সেখানে ভালো কিছু প্রচার হলে তার লাভ তো সরাসরি সেই ব্যক্তিই পান। আইটি সেলের হয়ে যাঁরা কাজ করেন, তাঁদের নামও মানুষ জানেন না! সুতরাং সংশ্লিষ্ট পেজ বা প্রোফাইলে যা কিছু পোস্ট হবে, তার দায়িত্ত্ব তো সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে নিতেই হবে! আর এই সব কিছু নিয়েই, দিলীপবাবুর সেই পোস্টার স্ক্রিনশট নিয়ে তা সোশ্যাল মিডিয়ায় তৃণমূলের তরফ থেকে রীতিমত ভাইরাল করে দেওয়া হয়েছে। আর তার সাথেই, পাল্লা দিয়ে চলছে দিলীপবাবুকে নিয়ে কটাক্ষ।

এর পাশাপাশিই, রাজনৈতিক মহলে জল্পনা চলছে, যদি ধরেও নেওয়া হয়, দিলীপবাবুর পোস্টের ‘ভুল’ আদতে আইটি সেলের ভুল। তাহলেও প্রশ্ন থেকে যায়, সেই ‘ভুল’ পোস্টের পর প্রায় ২৪ ঘন্টা পার হতে চললেও, তা সংশোধন করা হয় নি! অর্থাৎ গেরুয়া শিবিরের কারোর চোখে নিশ্চয় পরে নি! কিন্তু, দিলীপবাবু বারেবারেই দাবি করে আসেন, তাঁর হাত ধরে বাংলায় সংগঠন নাকি মজবুত হয়েছে। অন্যদিকে, বিজেপির আইটি সেল নাকি এতটাই ‘নিখুঁত’ কাজ করার ক্ষমতা রাখে যে, তৃণমূলকে বলে বলে টেক্কা দিতে পারে! তারপরেও, কি করে এই ভাবে ‘ভুলের বোঝা’ বয়ে বেড়াচ্ছে দিলীপবাবুর সেই পোস্ট?

Visited various wards of "Belda Gramin Hispital", Narayangarh (Medinipur Zela) and also distributed fruits among the patients.#SevaSaptah

Posted by Dilip Ghosh on Sunday, September 15, 2019

 

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

 

সবথেকে বড় কথা – দিলীপ ঘোষই এখন বাংলায় বিজেপির ‘মুখ’ বলে বিভিন্ন মহল থেকে দাবি করা হয়। এমনকি তাঁর অতি উৎসাহী অনুগামীরা এখন থেকেই তাঁকে বাংলার পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে দেখতে চেয়ে তীব্র প্রচার করেন সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে। তাঁর বিরুদ্ধে কোনো পোস্ট বা খবর হলে ‘রে রে’ করে তেড়েও আসেন হুমকির ডালি নিয়ে! অথচ, গেরুয়া শিবিরের বাংলার সেই ‘মুখ’ দিলীপ ঘোষের পোস্টের ভুল শুধরানোর তাগিদ নেই কারোর? বিশেষ করে যখন তা নিয়ে, প্রবল প্রতিপক্ষ তৃণমূল শিবির থেকে তির্যক মন্তব্যে ছেয়ে যাচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়া!

স্বাভাবিকভাবেই, এর ফলে বিজেপির আইটি বা মিডিয়া সেলের কার্যকর্তাদের ‘কর্মপদ্ধতি’ ও ‘কর্মদক্ষতা’ নিয়ে বড়সড় প্রশ্নচিহ্ন উঠে গেল! যদিও এই ধরনের ঘটনা প্রথম নয়! এর আগেও বিজেপির মিডিয়া ও আইটি সেলের কাজের ‘বহরে’ বড়সড় অস্বস্তিতে পড়তে হয়েছিল গেরুয়া শিবিরকে! বিজেপির রাজ্য সদর দপ্তরে অফিসিয়াল ফেসবুক লাইভ করার সময়, কিছুক্ষণের জন্য নেতা মন্ত্রীদের মুখের উপর বিড়ালের ছবি দেখতে পাওয়া যায়! সাধারণত যা লোকে মজা করার জন্য করে থাকে! কিন্তু রাজ্য বিজেপির সাংবাদিক বৈঠক তো আর মজা করার জায়গা নয়! তাই রাজ্যে বিজেপির উত্থান হলেও, বিজেপির আইটি ও মিডিয়া সেল নিয়ে বড়সড় প্রশ্নচিহ্ন এখন গেরুয়া সমর্থকদের মনেই!

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!