এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > আবার খবরের শিরোনামে সিঙ্গুর! আন্দোলনকারীদের ইটের ঘায়ে জখম পুলিশ! উত্তপ্ত পরিস্থিতি

আবার খবরের শিরোনামে সিঙ্গুর! আন্দোলনকারীদের ইটের ঘায়ে জখম পুলিশ! উত্তপ্ত পরিস্থিতি

এককালে বিগত বাম সরকারের আমলে প্রবল আন্দোলন গড়ে কৃষকদের পাশে থেকে সিঙ্গুরে অনশন, আন্দোলন গড়ে তুলেছিলেন তৎকালীন বিরোধী নেত্রী তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যে আন্দোলন সারা রাজ্য তথা দেশকে আলোড়িত করে তুলেছিল। এখন সিঙ্গুরে সেইভাবে আর কোনো আন্দোলন হতে দেখা যায় না। কিন্তু এবার ফের অশান্ত হয়ে উঠল সিঙ্গুর।

পুলিশের দাবি, আন্দোলনের নামে জমায়েত করে সিঙ্গুর থানায় হিন্দু জাগরণ মঞ্চ নামে এক সংগঠনের বিরুদ্ধে হামলা চালানোর অভিযোগ উঠেছে। কিন্তু কেনই হিন্দু জাগরণ মঞ্চের সদস্যরা থানায় হামলা চালালো!

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত বিজয়া দশমীর দিনে এই সিঙ্গুরের দিয়ারা গ্রামে একটি মারামারির ঘটনায় এক যুবককে গ্রেফতার করে পুলিশ। আর তারপর কিছুদিন পেরিয়ে গেলে রবিবার দুপুরে সেই যুবককে নিরাপরাধ দাবি করে তাকে ছেড়ে দেওয়ার দাবিতে হিন্দু জাগরণ মঞ্চের সদস্যরা সিঙ্গুর থানার সামনে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

জানা যায়, এদিন বাইরে বিক্ষোভ চললেও হঠাৎই এই সংগঠনের সদস্যরা থানার ভেতরে ঢুকে পড়েন। আর এরপর পুলিশ তাদের থানা থেকে বের করে দিলে ইটপাটকেল নিয়ে থানায় হামলা চালান হিন্দু জাগরণ মঞ্চের সদস্যরা। আর এতেই রণক্ষেত্রের আকার নেয় পরিস্থিতি। সংগঠনের সদস্যদের ইটের আঘাতে জখম হন পাঁচজন পুলিশকর্মী।

পরবর্তীতে বিরাট পুলিশ বাহিনী এসে পরিস্থিতি শান্ত করে। ইতিমধ্যেই এই ঘটনায় 14 জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তবে একাংশের দাবি, হিন্দু জাগরণ মঞ্চ দিয়ে থানায় এই বিক্ষোভ এবং হামলার ঘটনা ঘটলেও এর পেছনে ছিল বিজেপি কর্মীরাই। যদিও বা এই প্রসঙ্গে তাদের যোগ থাকার কথা সম্পূর্ণরূপে অস্বীকার করেছেন জেলা বিজেপি নেতৃত্ব।

এদিন এই প্রসঙ্গে বিজেপির শ্রীরামপুর সাংগঠনিক জেলার সভাপতি শ্যামল দাসের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, “আমি একটি বৈঠকে ব্যস্ত রয়েছি পরবর্তীতে খোঁজ নিয়ে দেখব।”

তবে এই ব্যাপারে হিন্দু জাগরণ মঞ্চের সাথে কোনো যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। সব মিলিয়ে সিঙ্গুর থানার সামনে হিন্দু জাগরণ মঞ্চের সদস্যদের বিক্ষোভ এবং ইটের আঘাতে পুলিশের আক্রান্ত হওয়ার ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হল।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!